গবেষণা: ''কোভিড-১৯ প্রতিষেধক বের না হলে লকডাউন চলবে''


Published: 2020-04-10 04:07:23 BdST, Updated: 2020-05-28 09:58:23 BdST

লাইভ ডেস্ক: সারা দুনিয়ার এখন একটাই আতঙ্ক। একটাই দুশ্চিন্তা। পৃথিবীজুড়ে হাহাকার। কে কখন এই কোভিড-১৯ ভাইরাসের শিকার হবে কেউ জানে না। গত ৫ মাসেও এর কোন প্রতিষেধক আবিস্কার হয়নি। বাঘা বাঘা বিজ্ঞানীরা এখন ক্লান্ত। দিশেহারা। এই ভাইরাসের তাণ্ডবে গোটা বিশ্ব আজ টালমাতাল । প্রতিদিনই প্রাণ যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষের। আক্রান্ত হচ্ছেন অসংখ্য বনি আদম ।

লকডাউন

 

মহামারির কারণে লকডাউন প্রায় সব দেশই। সংক্রমিত এলাকাগুলো থেকে বাইরে বের হওয়ায় রয়েছে কড়া নিষেধাজ্ঞা। মানুষ দুনিয়া ব্যাপি রয়েছে অবরুদ্ধ। এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাওয়ার পথও রয়েছে অবরুদ্ধ বা লকডাউন।

কোথাও পুলিশ, কোথাও সেনাবাহিনী আবার কোথাও যৌথবাহিনী দিয়ে কড়া নজরদারি ও লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

লকডাউন

এই কোভিড-১৯ নিয়ে বিশ্বব্যাপি নানান গবেষণা চলছে। কিন্তু কিছুতেই কিছু হচ্ছে না।

তাই বিশ্ববিখ্যাত গবেষকরা বলেছেন করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক বের না হওয়া পর্যন্ত কোনো এলাকা থেকেই পুরোপুরি লকডাউন তুলে নেয়া ঠিক হবে না। তারা বিশ্বনেতাদের হুশিয়ারি দিয়ে বলেছেন বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখতে হবে। লকডাউন কোন অবস্থাতেই তুলে নেয়া যাবে না। প্রতিষেধক হাতে আসলেই লকডাউন উঠানো যাবে।

সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে চীনে করোনা সংক্রমণের ওপর ভিত্তি করে পরিচালিত এবং দ্য ল্যানসেট মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ সতর্কবার্তা দেয়া হয়েছে।

লকডাউন

 

বলা হয়েছে প্রতিষেধক হাতে না পেয়ে লকডাউন তুলে নিলে বিশ্বের পরিস্থিতি হবে আরো ভয়াবহ। লাশের স্তুপ পড়বে রাজপথে।

ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরুর পরপরই ব্যাপক অবরোধ-নিষেধাজ্ঞার (লকডাউন) ফলে মাত্র তিনমাসের মধ্যেই মহামারির প্রথম ধাক্কা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এনেছে তারা।

লকডাউন

 

একারণে গত বুধবার টানা ৭৬ দিন পর তুলে নেয়া হয়েছে উহান শহরের লকডাউন । তারা এখন অনেকটাই কন্ট্রোলে এনেছেন।

ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের প্রফেসর জোসেফ টি উ বলেন, যদিও এই ব্যবস্থাগুলো কোভিড -১৯ সংক্রমণের হার একেবারে নিম্নস্তরে নিয়ে এসেছে। তবে ব্যবসা-বাণিজ্য, কল-কারখানা পরিচালনা, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালযের কার্যক্রম আবারও শুরু হলে সামাজিক সংস্পর্শ বাড়বে।

ফলে সংক্রমণ আবারও বাড়তে পারে। বিশেষ করে সারাবিশ্বে কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়ায় বহিরাগতদের মাধ্যমে এর ঝুঁকি আরও বাড়বে। জোসেফ টি উ বলেন,কড়া সতর্কবার্তা দিয়ে বলেন, নিষেধাজ্ঞাগুলো ধীরে ধীরে তুলে নিতে হবে।

লকডাউন

 

সংক্রমণের বিষয়টি গভীরভাবে নজরদারিতে না রাখলে মহামারি আবারও ছড়িয়ে পড়তে পারে। ওই গবেষণায় যৌথভাবে নেতৃত্ব দেয়া ওই প্রফেসর বলেন, আমি সামনে একটা ভয়াবহ রুপ দেখতে পাচ্ছি। এখনই সতর্ক হতে হবে।

লকডাউন

 

ওই গবেষক বলেন, যদিও শারীরিক দূরত্ব ও আচরণগত পরিবর্তনের মতো নীতিগুলো বেশ কিছু সময় ধরে জারি রয়েছে। তবে কার্যকর প্রতিষেধক সহজলভ্য না হওয়া পর্যন্ত অর্থনৈতিক কার্যক্রম পুরোপুরি শুরু থেকে বিরত থাকাই সেরা উপায় হতে পারে।

ঢাকা, ১০ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।