অনিয়ম নজিরবিহীন : হাবিপ্রবির ভর্তি পরীক্ষায় এসব কী হয়েছে!


Published: 2017-11-19 01:43:23 BdST, Updated: 2017-12-14 04:26:25 BdST

দিনাজপুর লাইভ : হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ২০১৭ সালের ভর্তি পরীক্ষায় ব্যাপক অনিয়ম এবং অসংগতির অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের পক্ষ থেকে এমন অভিযোগ আনা হয়েছে।

দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করা হয়েছে। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড.বলরাম রায়।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ৫-৮ নভেম্বর হাবিপ্রবিতে ৭টি অনুষদে ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে। ওই ভর্তি প্রক্রিয়ায় নজিরবিহীন অনিয়ম, প্রশ্নপত্র ও ওএমআর শিটে গড়মিল, আসন বিন্যাসে ব্যাপক অনিয়ম এবং বিশেষ গোষ্ঠীকে সুবিধা দেয়া হয়েছে। তাই ঘোষিত ফলাফল বাতিল করে সংশোধিত আকারে তা প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি অবিলম্বে ভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিবসহ সংশ্লিষ্টের বিরুদ্ধে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন তদন্ত কমিটি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ভর্তি কমিটির সহকারী সদস্য সচিব ড. মোঃ খালিদ হোসেন প্রশ্নপত্রসহ গোপনীয় কাজে জড়িত থাকার পরেও “প্লাসমিড প্লাস” নামক একটি ভর্তি সহায়িকা প্রকাশনার উদ্বোধন ও পৃষ্ঠপোষকতা করে ভর্তি প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী গাইড বাণিজ্য একটি শাস্তিমূলক অপরাধ। আসন বিন্যাসে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে একই পরীক্ষা রুমে কেবল ছাত্রী, একই জেলার পরীক্ষার্থী, কেবল ছাত্রদের আসন বিন্যাসের মাধ্যমে বিশেষ গোষ্ঠীকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে অনৈতিক সুযোগ দেয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ভিসির নেতৃত্বে ১৮ সদস্যের ভর্তি পরীক্ষা কমিটির ৭ জন সদস্য ফলাফল শিটে অনিয়ম, অব্যবস্থা ও রীতি বিরুদ্ধ প্রক্রিয়া গ্রহণের প্রতিবাদে স্বাক্ষর করেননি। চরম ত্রুটিপূর্ণ প্রশ্নের কারণে বিভিন্ন অনুষদে মেধাবী ছাত্রদের সঠিক ফলাফল থেকে বঞ্চিত করার অভিযোগ এনে বলা হয়, ফলাফল বিশ্লেষণে নজিরবিহীন ঘটনা ঘটেছে। এফ-১ শিফটে মাত্র ৪৭ জন আর এফ-২ শিফটে ২৬৩ জন পরীক্ষার্থী মেধায় চান্স পেয়েছেন। এ ধরনের ফলাফল কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। ব্যাপক অনিয়মের কারণেই ৭টি ইউনিটের ত্রুটিপূর্ণ ফলাফল হয়েছে। এ কারণে প্রকৃত মেধা সম্পন্ন শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থেকে অন্যায়ভাবে বঞ্চিত হয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের প্রফেসর ড. আনিস খান, প্রফেসর ড. সাইফুর রহমান, প্রফেসর ড. এটিএম শফিকুল ইসলাম, প্রফেসর ড. এস এম হারুন-উর-রশিদ, প্রফেসর ড. মোঃ নাজিমুদ্দিন, প্রফেসর ড. মোঃ মামুনুর রশিদ এবং ড. মোঃ ফেরদৌস মেহেবুব প্রমুখ।


ঢাকা, ১৯ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।