পাবিপ্রবিতে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, গোলাগুলি, আহত ১৫


Published: 2017-10-28 17:01:07 BdST, Updated: 2017-11-24 06:15:12 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (পাবিপ্রবি) শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক লাঞ্ছিতের ঘটনায় শনিবার দফায় দফায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১৫ আহত হয়েছেন। 

আহতরা হলেন, সেকশন অফিসার রফিকুল ইসলাম, সেকশন অফিসার তৌফিকুর রহমান সৈকত, সিনিয়র স্টোর কিপার জমসেদ হোসেন পলাশ, নিরাপত্তা প্রহরী লিটন হোসেন, জনি, বাংলা বিভাগের মাস্টার্স শেষ পর্বের ছাত্র আবু জাফর, শামীম হোসেন ও সাইফুল ইসলাম চতুর্থ বর্ষসহ আরও অনেকে। 

আহতদেরকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসময় শিক্ষার্থীরা প্রায় ২০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। 

সেকশন অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল আলীমের নেতৃত্বে একদল শিক্ষার্থী লাঠিসোটা নিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় কয়েক রাউণ্ড গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটেছে। 

তবে বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এম আব্দুল আলীম এ  অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমার ওপর হামলা হয়েছে এমন খবর পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষার্থীরা একাডেমিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছিল। আমাকে জড়িয়ে যে বক্তব্য দেওয়া তারা দিয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা বা ভিত্তিহীন। এ ঘটনার সঙ্গে আমার কোনও ধরনের সংশ্লিষ্টতা নেই।’ 

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ড ও সামাজিক অনুষদ বিভাগের ডিন পদ থেকে ড. আব্দুল আলীমকে অপসারণ না করা পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে কর্মকর্তা-কর্মচারী সমিতি। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার পাবিপ্রবির প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ডিউটির সময় সামাজিক অনুষদের ডিন ও বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এম আব্দুল আলীমের সঙ্গে গেটের নিরাপত্তা কর্মীদের বাকবিতণ্ডার ঘটনা ঘটে। ক্যাম্পাসে ওই দিন সন্ধ্যায় নিরাপত্তা কর্মীরা সংঘবদ্ধ হয়ে ড.আলীমের ওপর হামলা চালায়। পরে ঘটনার রাতেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা শিক্ষককে মারধর ও লাঞ্ছিতের খবর জানতে পারে।  শনিবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে বিভাগের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের প্রশাসনিক ভবনের সামনে গিয়ে অবস্থান নেয়। এ সময় কয়েকজন শিক্ষকও শিক্ষার্থীদের পাশে অবস্থান নেয়। 

এ খবর পেয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা লাঠিসোঠা নিয়ে অবস্থানকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দিকে এগিয়ে গেলে উভয় গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনাও ঘটে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের নারী কর্মচারী, শিক্ষার্থীসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। এদিকে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বেলা ১১টার দিকে ক্যাম্পাসের বঙ্গবন্ধু হলে হামলা চালিয়ে শিক্ষার্থীদের মারপিট ও লাঞ্ছিত করে। এ সময় বিক্ষুব্ধরা ক্যাম্পাসে রাখা প্রচুর মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। 

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স পাঠানো হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।

 

ঢাকা, ২৮ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।