ছাত্র পরিষদ: ''ভিসি, প্রোভিসি ও রেজিস্ট্রারের পদত্যাগের দাবি''


Published: 2020-10-25 01:32:16 BdST, Updated: 2020-11-30 20:26:43 BdST

রাবি লাইভঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনে দায়িত্বরত ভিসি প্রফেসর মো: আব্দুস সোবহান, প্রো-ভিসি প্রফেসর চৌধুরী মো: জাকারিয়া ও রেজিস্ট্রার এম এ বারীর দুর্নীতি প্রমাণিত। আর তাই রাবি শাখা ছাত্র অধিকার পরিষদ দাবি ভিসি, প্রোভিসিসহ রেজিস্ট্রার স্বসম্মানে পদত্যাগ করুক এবং তাদের আইনানুগভাবে শাস্তি নিশ্চিতকরন করা হক। শনিবার বিকেলে এক লিখিত বিজ্ঞপ্তিতে এই দাবি জানানো হয়।

লিখিত বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, "সম্প্রতি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার বরাত দিয়ে আমরা জানতে পেরেছি যে, ভিসি মহোদয়, প্রো-ভিসি মহোদয় এবং সেই সাথে রেজিস্ট্রার বিভিন্ন নিয়োগ বানিজ্যের সাথে জড়িত যা ইউজিসি কর্তৃক প্রমাণিত হয়েছে। এমতাবস্থায়, তাঁরা তাঁদের পদে থাকার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে বলে আমরা মনে করি। তাই আমাদের দাবি তারা স্বসম্মানে পদত্যাগ করুক এবং সেই সাথে তাদের সকল অন্যায়ের আইনানুগভাবে শাস্তি নিশ্চিতকরনে প্রশাসনের জোরালো পদক্ষেপ প্রত্যাশা করছি।"

এছাড়াও আরো বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে, " উল্লেখ্য যে উপরোক্ত দুর্নীতি সহ বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৮ সাল থেকে প্রতিবাদ করে আসছে।

বিশেষ করে ১ অক্টোবর ২০১৯, উপ উপাচার্য "চৌধুরী মো.জাকারিয়া"র নিয়োগ বাণিজ্যের অডিও ফোনালাপ দদধদফাঁস হওয়ার পর "বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ",ছাত্র ফেডারেশন," রাকসু আন্দোলন মঞ্চ সহ প্রগতিশীল ও সাংস্কৃতিক ছাত্র সংগঠন এবং রাবির সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এ ব্যানারে লাগাতার প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করে আসছিল।

২০২০ সালের মার্চ মাসে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরিক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া ৪৩ জন শিক্ষার্থী ভিসির অবৈধ হস্তক্ষেপে ভর্তি হওয়ার পরও আন্দোলন করে বাংলাদেশ,ছাত্র অধিকার পরিষদ- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

কিন্তু,অদৃশ্য ক্ষমতাবলে তারা স্বপদে বহাল থাকে তাদের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে।
অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ আসনগুলোতে বহাল থাকার নৈতিকতা হারিয়েছে বলে মনে করি, তাই তাঁদের অপসারণ চাই।"

ঢাকা, ২৪ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জিএস ওয়ান

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।