ছাত্রীনিবাসে চুলা বিস্ফোরণে দুই কলেজছাত্রীর মৃত্যু


Published: 2019-07-03 19:04:39 BdST, Updated: 2019-12-10 17:54:18 BdST

নাটোর লাইভ: নাটোর শহরের বড়গাছা এলাকার একটি ছাত্রীনিবাসে কেরোসিনের চুলা বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কলেজছাত্রী শামীমা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

শামীমার পূর্বে একই হাসপাতালে কলেজছাত্রী সানজিদা মারা যায়। তারা দু’জনই নাটোর নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারী কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিল। নিহত শামিমা খাতুন গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর গ্রামের সোহরাব হোসেনের মেয়ে এবং সানজিদা আক্তার লালপুর উপজেলার আবদুুলপুর এলাকার শাহাবুদ্দিনের মেয়ে।

নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারী কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর শামসুজ্জোহা বলেন, সানজিদা ও শামিমার অকাল মৃত্যুতে পুরো কলেজে শোকাহত পরিবেশ বিরাজ করছে। দুটি প্রাণোচ্ছ্বল ছাত্রীর অকাল মৃত্যু মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে। দুই শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২৭শে জুন শহরের বড়গাছা এলাকার জ্যোতি ছাত্রীনিবাসে রান্না করার সময় কোরোসিনের স্টোভ বিস্ফোরণে শামিমা, সানজিদা ও ফাতেমা দগ্ধ হয়। ফাতেমা কিছুটা দগ্ধ হলেও শামীমা ও সানজিদার শরীরের ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ পুড়ে যায়।

পরে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে সানজিদা আক্তার এবং শামিমা খাতুনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানে শামিমা।


ঢাকা, ০৩ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।