রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা


Published: 2019-05-03 12:38:47 BdST, Updated: 2019-07-21 09:24:14 BdST

রাবি লাইভ : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. এম আব্দুস সোবহানসহ প্রশাসনের ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করা হয়েছে। আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার পরও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগে সভাপতি নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগে বৃহস্পতিবার ওই মামলা করা হয়েছে। রাজশাহী সিনিয়র সহকারি জজ আদালতে আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর শাহরিয়ার পারভেজ এই মামলাটি দায়ের করেন বলে নিশ্চিত করেন মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী নূরে কামরুজ্জামান ইরান।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামিরা হলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি প্রফেসর ড. এম আব্দুস সোবহান, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এম এ বারী এবং আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগের যোগদান করা আইন বিভাগের এসোসিয়েটর প্রফেসর ড. রফিকুল ইসলাম।

বাদি পক্ষের আইনজীবী নূরে কামরুজ্জামান ইরান বলেন, গত ২১ এপ্রিল আদালতে ৬৭/১৯ নম্বর মোকদ্দমায় বাদী অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রার্থনা করলে ২৪ এপ্রিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগের সভাপতি নিয়োগে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দেন আদালত। এরপর ২৫ এপ্রিল সকাল ৯ টা ০৫ মিনিটে আদালতের প্রসেস সার্ভার নিষেধাজ্ঞার কপি নিয়ে রেজিস্ট্রার দপ্তরের হাজির হন।

কিন্তু রেজিস্ট্রার অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা তার কাছ থেকে নিষেধাজ্ঞার কপি নেননি। ওই সময়ে তাকে বসিয়ে রেখেছেন। অবমাননাকর কথা বলেছেন। যখন ৯ টা ৫৫ মিনিটে বলা হয়েছে আপনি নিবেন কিনা তখন নেওয়া হয়েছে এবং তাকে অবমাননাকর কথা বলা হয়েছে।

তাই দেওয়ানি কার্যবিধি আইনের আদেশ ৩৯ ধারাবিধি ২ এর ৩ মতে কেন তাদেরকে সিভিল জেলে ৬ মাস আটক করা হবে না বা তাদের সম্পতি ক্রোক করা হবে না এই মর্মে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগে জেষ্ঠ্যতার বিধান লঙ্ঘণ করে সভাপতি নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ উঠে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে। এনিয়ে আদালত পর্যন্ত গড়ায় বিষয়টি। মামলা দায়ের করেন ওই বিভাগের সংক্ষুব্ধ শিক্ষকরা। সেই প্রেক্ষিতে বিভাগ সভাপতি নিয়োগের বিষয়ে অন্তবর্তীকালীন একটি নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেন আদালত। তবে আদালতের কাগজ পৌছানোর আগেই ২৫ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় ওই বিভাগে সভাপতি হিসেবে যোগদান করেছেন আইন বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর ড. মো. রফিকুল ইসলাম।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২১ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসোসিয়েট প্রফেসর রফিকুল ইসলামকে আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগের সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেন। যদিও এই নিয়োগ অবৈধ বা বিধি সঙ্গত হয়নি বলে দাবি করেছেন বিভাগটির শিক্ষকরা।

তাদের অভিযোগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন ১৯৭৩ এর ২৯ ধারা ‘দ্যা ফাস্ট স্টাটাস অফ দ্যা ইউনিভার্সিটিথ এর ৩ এর ১ ধারা লঙ্ঘন করে গত ২১ শে এপ্রিল আইন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রফিকুল ইসলামকে আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগে প্রেষণে একই পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে তাকে ২৫ এপ্রিল থেকে ওই বিভাগে তিন বছরের জন্য সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় এবং সাবেক সভাপতি বিশ্বজিৎ চন্দকে আবারও আইন বিভাগে ফেরত পাঠানো আদেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওই বিভাগের এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর মো. শাহরিয়ার পারভেজ ও সাবেক সভাপতি ড. বিশ্বজিৎ চন্দ বাদী হয়ে রাজশাহী সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে ২৪ এপ্রিল বুধবার চলতি বছরের ২৭ শে জুন পর্যন্ত অন্তঃবর্তী কালিন নিষেধাজ্ঞা আদেশ প্রদান করেন আদালত।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, প্রফেসর শাহরিয়ার পারভেজ ২০০৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগে লেকচারার হিসেবে নিয়োগ পান এবং ২০১০ সালে পদন্নতি পেয়ে এসোসিয়েট প্রফেসর হন। পরে ২০১৬ সালে ৪৬৬তম সিন্ডিকেট সভার ৫৯তম সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে আইন বিভাগ হতে আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগে স্থায়ীভাবে স্থানান্তর করা হয়। কিন্তু জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে সভাপতি হওয়ার যোগ্য হওয়া সত্ত্বেও তাকে সভাপতি হিসেবে নিয়োগ না দিয়ে আইন বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর রফিকুল ইসলামকে সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ।


ঢাকা, ০৩ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।