রাবিতে অধিভুক্ত হচ্ছে নতুন কলেজ!


Published: 2018-07-22 11:25:03 BdST, Updated: 2018-10-18 16:00:43 BdST

রাবি লাইভ: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অধিভুক্ত হচ্ছে নতুন কলেজ। আরও ২টি কলেজ অধিভূক্তির অনুমোদন দিতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। অবকাঠামো ও জনবলসহ গুরুত্বপূর্ণ শর্তাবলী পূরণে ব্যর্থ হলেও কলেজ দুটিকে রাবির অধিভূক্ত করা হয়েছে।

জানা গেছে, কলেজ অধিভুক্তির সংবিধিতে শর্তপূরণ করতে না পারলেও তাদের অর্ন্তভূক্তি করা হয়। অবকাঠামোগত ১৩ শর্তের ১০টি শর্তও পূরণ করতে পারেনি কোনো কলেজই। তাছাড়া জনবল সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়ে কলেজ অধিভুক্তির আবেদন করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

বিশেষ একটি সূত্রে জানা গেছে, কলেজগুলো সম্পর্কে সঠিকভাবে খোঁজ-খবর নিচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কলেজ অধিভুক্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাড়তি আয়ের পথ তৈরি হচ্ছে ঠিকই তবে শিক্ষার প্রসারে কলেজগুলো কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না। এরপরও অধিভুক্ত করা হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান অধিভুক্ত মোট কলেজের সংখ্যা ১৪টি। যার মধ্যে ১১টি ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ৩টি কৃষি কলেজ রয়েছে। যার একটি অ্যাডভান্স ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ।

কলেজ অধিভুক্তি সংবিধিতে বর্ণিত প্রথম শর্ত কলেজের নামে ক্রয়কৃত নিজস্ব জায়গার ওপরে কলেজ ভবন থাকতে হবে। কিন্তু ভাড়া বাড়িতে পরিচালনা করছে এই কলেজটি। যেখানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা মাত্র ৫ জন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজশাহী শহরের অধিভুক্ত কলেজগুলোতেও একই অবস্থা। অধিকাংশ কলেজই ভাড়া ভবনে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। একটি অথবা দুইটি কক্ষে চলে এই সব কার্যক্রম। শিক্ষার্থী পাচ্ছে না, শিক্ষক চলে যাচ্ছে এমন সমস্যা নিত্যদিনের। এর মধ্যে শিক্ষার্থী না পাওয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে রাজশাহীস্থ ইফসিলন ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও গ্লোবাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ নামের দুটি কলেজ।

কলেজগুলোর হালচাল এমনই হলেও নতুন দুইটি কলেজ অধিভুক্ত করতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। দিনাজপুরে আনোয়ারা কলেজ অব বায়ো সায়েন্স নামে একটি কৃষি কলেজ ও কেএসএফএল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ এই দুইটি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্তির আবেদন জমা পড়ে আছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ পরিদর্শক দফতর।

দফতর সূত্র জানায়, আগামী শিক্ষা পরিষদের সভায় অধিভুক্তির সুপারিশ করা হবে কলেজ দুটি। শর্ত পূরণে ব্যর্থ হলেও কলেজগুলোর অধিভুক্তির সিদ্ধান্ত উচ্চশিক্ষার প্রসারের কাজটি হোঁচট খাচ্ছে বলে জানাচ্ছেন বিশ্লেষকরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বায়োলোজিক্যাল সায়েন্সের পরিচালক প্রফেসর ড. মঞ্জুর হোসেন জানান, যখন একটা আইন ভাঙা হয় তখন পুরো পরিবেশ বা সিস্টেম লস হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার পরিবেশটাও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কলেজগুলোর অধিভুক্তির ক্ষেত্রেও একই সমস্যা। উচিত হবে কলেজগুলোর ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেয়া এবং প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণের মাধ্যমে তাদেরকে অধিভুক্ত করা।

বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর ড. এম মুজিবুর রহমান জানান, কলেজগুলো একধরনের প্রতারণা করে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। যেমন প্রথমে একটি ভবন দেখায়, পরে দেখা যায় ভবনটি স্থানান্তর করে ফেলেছে। শিক্ষক ২০ জন দেখালেও অধিভুক্তির পর শিক্ষক সংখ্যা কমে যায়।

 


ঢাকা, ২২ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।