বাকৃবি: ‌‍‌‌‌‌‌'নদীর স্রোতের মতো থেমে গেলে মরে যায়’


Published: 2017-02-09 15:09:24 BdST, Updated: 2019-11-19 08:09:18 BdST



 

বাকৃবি লাইভ: 'প্রাণীর প্রতি ভালোবাসা' একজন মানুষকে সৎ মানুষ হিসেবে নিজেকে তৈরী করতে সহায়তা করে। ‘জ্ঞাণ বড় সম্পদ, চর্চায় বেড়ে যায়, নদীর স্রোতের মতো থেমে গেলে মরে যায়’ কবিতার ছন্দে কথাগুলো বলেছেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান ।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ২০১১-২০১২ শিক্ষাবর্ষের বি এসসি, এ এইচ(অনার্স) ৪৮ তম ব্যাচের গ্র্যাজুয়েটদের স্নাতক শিক্ষা সমাপনী উৎসবে তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে এসব কথা বলেন।

প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ও ডীন, পশুপালন অনুষদ এর প্রফেসর, ড. মোঃ জসিমউদ্দিন খানের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত উৎসবে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর মহা-পরিচালক ড. তালুকদার নুরুন্নাহার।

প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ আলী আকবর।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর মহা-পরিচালক ড. তালুকদার নুরুন্নাহার বলেন, কৃষি ক্ষেত্রে দেশে আজ বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা একটি বাড়ী-একটি খামার প্রকল্পের সঠিক বাস্তবায়নে কৃষির সাথে প্রাণীসম্পদের গুরুত্ব অপরিসীম। সরকারের দিন বদলের সনদ বাস্তবায়নে ২০২১ সালের মধ্যে জনগণের পুষ্টি চাহিদা মেটানোসহ আত্ম কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র বিমোচন ও নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা সম্ভব প্রাণী সম্পদের উন্নয়নের মাধ্যমে। এ জন্য সর্বদা পশুপালন গ্রাজুয়েটদেরও প্রস্তুত থাকতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান পৃষ্ঠপোষক বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ আলী আকবর বলেন, আমরা এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। দেশ আজ খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য নতুন নতুন প্রযুক্তি খামারীদের মাঝে পৌঁছে দিতে পশুপালন গ্রাজুয়েটদের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন স্নাতক শিক্ষা সমাপনী উৎসব উদযাপন কমিটি-২০১৭ এর আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মোঃ নুরুল ইসলাম।

ছাত্র প্রতিনিধি অনুষদীয় ছাত্র সমিতির ভিপি কৃষিবিদ ইফতেখার সুমন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্নাতক শিক্ষা সমাপনী উৎসব উদযাপন কমিটির সদস্য-সচিব ড. মোঃ মুনরি হোসেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম এ ধরনের অনুষ্ঠান ‘স্নাতক শিক্ষা সমাপনী উৎসব’ অনুষ্ঠানে ২০১১-২০১২ শিক্ষাবর্ষের বি এসসি এ এইচ(অনার্স) ৪৮ তম ব্যাচের গ্র্যাজুয়েটসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ অংশ গ্রহণ করে।

 

ঢাকা, ৯ ফেব্রয়ারী (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এএসটি

 

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।