ইবির নিয়োগ বোর্ডের বৈধ্যতা চ্যালেঞ্জ; হাইকোর্টে প্রার্থীর রিট


Published: 2018-12-06 18:16:37 BdST, Updated: 2018-12-13 06:08:57 BdST

ইবি লাইভ: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) গণিত বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে প্রশাসনের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেছে এক চাকরি প্রার্থী। রিটের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড.হারুন-উর-রশিদ আসকারীকে উকিল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার( ভারপ্রাপ্ত) এসএম আব্দুল লতিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর দুই জন (একজন লেকচারার এবং এ্যাসিসটেন্ট প্রফেসর) শিক্ষক চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ওই সময় বিজ্ঞাপিত দু’টি পদের বিপরীতে মোট ৮৬ জন প্রার্থী আবেদন করে। কিন্তু প্ল্যানিং কমিটির সুপারিশ ছাড়াই ত্রুটিপূর্ণভাবে নিয়োগ বোর্ড গঠনের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করে ওই বিভাগের এক শিক্ষক। যার ফলে ওই নিয়োগ বোর্ড সম্পন্ন করতে পারেনি তৎকালীন প্রশাসন।

তবে মামলা সুরাহা না করে কয়েকদিন আগে তড়িঘড়ি করে নিয়োগ বোর্ডের তারিখ ও সময় নির্ধারণ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গত ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত নিয়োগ বোর্ডে ২৪ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। এতে মোট নয়জন প্রার্থী কৃতকার্য হয়। পরে ওই নয়জনের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়।

এই নিয়োগ বোর্ডে প্রার্থীদের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘন হয়েছে বলে অভিযোগ আনেন রোকনুজ্জামান নামে এক প্রার্থী। এর প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার রোকনুজ্জামানের হয়ে সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট মো: ইসমাইল হোসাইন বাংলাদেশ সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। তার দায়ের করা রিট নম্বর ১৫৩৮৭। রোকনুজ্জামান মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর থানাধীন জয়পুর গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে।

রিট সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘২০১৫ সালের ওই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে যে প্রক্রিয়ায় নিয়োগ বোর্ড অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল সেই প্রক্রিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেওয়া প্রার্থীদের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে।’

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামীকাল শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪৩ তম সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হবে। সিন্ডিকেটে ওই বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ চূড়ান্ত করা হবে।

এ বিষয়ে রেজিস্টার(ভারপ্রাপ্ত) এসএম আব্দুল লতিফ বলেন, ‘আমরা একটি উকিল নোটিশ পেয়েছি। শুক্রবার সিন্ডিকেটে বোর্ডের বিষয়টি উত্থাপিত হবে। তবে হাইকোর্ট থেকে নির্দিষ্ট কোনো নির্দেশনা না পাওয়ায় কার্যক্রম চালাতে আইনি কোনো বাধা নেই। উচ্চ আদালত কোনো নির্দেশনা দিলে সেটা অবশ্যই মানা হবে।’

 

 

 


ঢাকা, ০৬ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।