সব বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অনির্দিষ্টকাল ধর্মঘট


Published: 2018-05-14 01:42:16 BdST, Updated: 2018-05-21 13:04:03 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে সোমবার সকাল ১০ টা থেকে অনির্দিষ্টকালের ছাত্র ধর্মঘট ও অবস্থান কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। কোটা সংস্কারে প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে ওই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়া পর্যন্ত ওই কর্মসূচি চলবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। কোটা সংস্কারে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে আলটিমেটাম শেষে ওই ঘোষণা দেয়া হয়।

রোববার বিকাল ৬টার পর আন্দোলনকারীদের ফেসবুক গ্রুপে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম নুরুলহক নুর লিখেছেন, 'প্রজ্ঞাপনের দাবিতে অাগামীকাল (সোমবার) থেকে সকল বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন এবং ১০ টায় সারা দেশে একযোগে বিক্ষোভ মিছিল। সবাই প্রস্তুতি নিন।'

এর আগে বিকেল ৫টার মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে সোমবার (১৪ মে) থেকে দেশের সব কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্নিদিষ্টকালেরর ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ডাক দেয় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। রোববার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) এক সংবাদ সম্মেলনে কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম ‘বাংলাদেশে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ এর পক্ষ থেকে এমন ঘোষণা আসে।

সংবাদ সম্মেলনের আগে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী কেন্দ্রীয়ভাবে সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন শিক্ষার্থীরা। এতে কয়েক হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেন। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে শুরু হয়ে শহীদ মিনার, কার্জন হল, হাইকোর্ট, মৎস্য ভবন হয়ে শাহবাগে প্রবেশ করে। পরে রাজু ভাস্কর্যের সামনে এসে শেষ হয়। এ সময় বৃষ্টি এলে ভিজেই কর্মসূচি পালন করেন তারা।

পরে দুপুরে টিএসসিতে এসে সংবাদ সম্মেলন করে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন।
এর আগে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ঘোষণা ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বাস্তবায়নের দাবিতে ২৬ এপ্রিল আলটিমেটাম দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা।

এই সময়ের মধ্যে গেজেট প্রকাশ না হলে ১ মে থেকে ফের আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা। এমন অবস্থায় ২৭ এপ্রিল কোটা সংস্কার আন্দোলনের ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীমের বৈঠক হয়।

প্রায় দেড় ঘণ্টার ওই বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগ নেতাদের অনুরোধে এবং মামলা প্রত্যাহারের আশ্বাসে ৭ মে পর্যন্ত আলটিমেটামের সময় বৃদ্ধি করেছিলেন আন্দোলনকারীরা। এই সময়েও প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় ৯ মে মানববন্ধন করে ১০ মের মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করতে ফের আলটিমেটাম দেন তারা।

কিন্তু চতুর্থ দফা আলটিমেটাম অনুযায়ী প্রজ্ঞাপন জারি না হলে ১৩ মে রোববার বিক্ষোভের ডাক দেন আন্দোলনকারীরা। ওই বিক্ষোভ থেকে ১৪ মে সোমবার থেকে লাগাতার ছাত্র ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়।

ঢাকা, ১৪ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।