শাবি শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ‘ষড়যন্ত্র’ দাবি


Published: 2018-01-16 13:11:06 BdST, Updated: 2018-02-24 16:20:47 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ওই ছাত্রীর অভিযোগ তাকে শাবির ইংরেজি বিভাগের ছাত্র সাইফুল ৩ তিন মেসে আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে। পরে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সুনামগঞ্জে ফেলে রেখে চম্পট দিয়েছে। ওই অভিযোগে কলেজ ছাত্রীর করা মামলায় সাইফুলকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে শাবি ছাত্রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগের বিষয়টি সাজানো ও ষড়যন্ত্র বলে মন্তব্য করেছেন তার সহপাঠী ও বন্ধুরা। রোববার ক্যাম্পাসলাইভে এনিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে তোলপাড় শুরু হয়। আবার শাবি শিক্ষার্থীদের অনেকেই ধর্ষণের এমন অভিযোগ উঠায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেজ ক্ষুন্ন হয়েছে বলে দাবি করেছেন। এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে। শিক্ষার্থীদের অনেকেই ক্যাম্পাসলাইভের ঢাকা অফিসে এনিয়ে ফোনও করেছেন। তাদের কেউ কেউ বিষয়টিকে শাবি ছাত্রের বিরুদ্ধে বিষয়টি ‘ষড়যন্ত্র’ বলে দাবি করেছে। আবার কেউ কেউ বিষয়টি নিয়ে লজ্জার মুখে পড়েছেন বলেও দাবি করেছেন। এধরনের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেজ ক্ষুন্ন হয়েছে বলেও দাবি করা হয়েছে।

ফেইসবুকে সাইফুলের সহপাঠীদের অনেকেই মন্তব্য করেছেন, যে এলাকার মেস থেকে তাকে আটক করা হয়েছে সেখানে অনেক শিক্ষার্থী বসবাস করেন। আর মেসে প্রতিরুমে অন্তত ৩ জন করে শিক্ষার্থী থাকে। সেখানে একটি ছাত্রীকে ৩ দিন অাটকে রেখে ধর্ষণ করা প্রায় অসম্ভব। ওই ঘটনা কারো না কারো চোখে পড়তো। এরপরেও যদি কোন কিছু হয়ে থাকে তাহলে সেটা স্বইচ্ছায় হয়েছে বলেও মন্তব্য তাদের। এখানে ধর্ষণের মত কোন ঘটনা ঘটতে পারে না বলে মন্তব্য তাদের। সহপাঠীদের দাবি সাইফুলের মত ছেলে এমন কাজ করতে পারে না। এটি একটি পরিকল্পিত ‘ষড়যন্ত্র’।

অন্যদিকে পুলিশের দাবি কলেজ ছাত্রীর সুস্পষ্ট অভিযোগ এবং মামলার ভিত্তিতেই শাবি ছাত্র সাইফুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে পুলিশের হাতে গ্রেফতার থাকায় এব্যাপারে সাইফুলের পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, এর আগে শনিবার রাতে শাবির ইংরেজি বিভাগের সাইফুলকে সিলেটর আখালিয়াস্থ একটি মেস থেকে গ্রেফতার করে সুনামগঞ্জ পুলিশ। পরে রোববার তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার সাইফুল সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কোরবান নগর ইউনিয়নের মাইজবাড়ি পূর্ব পাড়ার আকরাম আলীর ছেলে।

ধর্ষণের মামলায় ওই ছাত্রী অভিযোগ করেন, তার সঙ্গে শাবি ছাত্র সাইফুলের ফেসবুকে পরিচয় হয়। পরে মোবাইলে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত ১১জানুয়ারি সাইফুল তাকে খবর দিয়ে সুনামগঞ্জ শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে সাক্ষাৎ করে এবং তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সিলেটে নিয়ে যায়। পরে তাকে সিলেটের আখালিয়ায় মেসে নিয়ে তুলে। নানা প্রলোভন দেখিয়ে সে গত ১১ থেকে ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত টানা তিন দিন আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করে। ১৩ জানুয়ারী শনিবার বিকেলে সাইফুল তাকে সুনামগঞ্জ শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে রেখে ৫ মিনিটের মধ্যে আসছি বলে নিখোঁজ হয়। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পর তার কোন খোঁজ না পেয়ে তিনি সাইফুলের তার মোবাইলে কল দিয়ে সেটি বন্ধ পায়। এ ঘটনায় তিনি সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশের শরনাপন্ন হন এবং প্রতারক সাইফুলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

ঢাকা, ১৬ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।