সেরা দশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং


Published: 2017-11-11 09:45:08 BdST, Updated: 2017-11-23 11:12:15 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে র‌্যাংকিং করা হয়েছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় বিষয়টি উঠে এসেছে। গবেষণাটি পরিচালনা করেছে ওআরজি কোয়েস্ট রিসার্চ লিমিটেড। বাংলা ট্রিবিউন-ঢাকা ট্রিবিউনের যৌথ উদ্যোগে ওই গবেষণা পরিচালিত হয়েছে।

দেশের ৮৩ টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় বাছাই করে ৩২টি নেওয়া হয়। এরমধ্য থেকেই গবেষণার মাধ্যমে সেরা ২০টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নির্ধারণ করা হয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং প্রকল্পটি একটি উপদেষ্টা কমিটির তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। এতে ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, ওআরজি কোয়েস্টের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মনজুরুল হক, বাংলা ট্রিবিউনের সম্পাদক জুলফিকার রাসেল, প্রথম আলোর নিউজ এডিটর শরিফুজ্জামান পিন্টু, ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেটিক্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের সিইও সাঈদ আহমেদ।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং :

১. ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি

২. নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটি

৩. ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি

৪. আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি

৫. আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ,

৬. ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ

৭. ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি

৮. দ্য ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক

৯. ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

১০. ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

১১. ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি

১২. স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

১৩. নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ

১৪. ইউনিভার্সিটি অব ডেভলপমেন্ট অল্টারনেটিভ

১৫. স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি

১৬. প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটি

১৭. ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগরিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি

১৮. আশা ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ

১৯. সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি

২০. বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির

গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ফ্যাকচুয়াল ও পারসেপচুয়াল থেকে পাওয়া তথ্য-উপাত্তের স্কোরের সমন্বয়ে চূড়ান্ত র‌্যাংকিং করা হয়। যার মধ্যে ফ্যাকচুয়াল থেকে ৪০ শতাংশ ও পারসেপচুয়াল থেকে ৬০ শতাংশ স্কোর নিয়ে মোট ১০০ স্কোরের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর র‌্যাংকিং নির্ধারণ করা হয়েছে। ফ্যাকচুয়াল ডাটার ক্ষেত্রে নেওয়া হয়েছে ইউজিসির ২০১৪ সালের তথ্য।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের মান, শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত সেবা, গবেষণা ও শিক্ষা উপকরণকে ফ্যাকচুয়াল সূচক হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যদিকে পারসেপচুয়ালের ক্ষেত্রে ইউনিভার্সিটির একাডেমিকস (ডিন, বিভাগীয় প্রধান, অধ্যাপক, রেজিস্ট্রার) এবং চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মানবসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তাদের ওপর জরিপ চালানো হয়।

মোট ৩০০ জনের উপর এ জরিপ চালানো হয়। যার মধ্যে ১৫০ জন একাডেমিকস এবং ১৫০ জন মানবসম্পদ ব্যবস্থাপক। এ জন্য ৩২৭ জন শিক্ষক এবং ৩২০ জন চাকরিদাতাকে জরিপে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। অর্থাৎ দুই ক্ষেত্রে অংশ নেওয়ার হার (রেসপন্স রেট) পাওয়া গেছে যথাক্রমে ৪৬ ও ৪৭ শতাংশ।

গবেষণায় দেখা যায়, ফ্যাকচুয়াল র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি (পয়েন্ট ৮০.৬৩), তবে পারসেপচুয়ালে শীর্ষে রয়েছে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি (পয়েন্ট ৬২.৮৪)। তবে দু’টির সমন্বয়ে নর্থ সাউথকে পেছনে ফেলে র‌্যাংকিংয়ের প্রথম হয়েছে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি।


ঢাকা, ১১ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।