প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি: ‍‌‌‌‌‌‌‌'এদেশ ছিল পৃথিবীর সবচে ধনী দেশ'


Published: 2019-01-08 17:13:58 BdST, Updated: 2019-03-22 23:12:17 BdST

প্রিমিয়ার ভার্সিটি লাইভ: আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেছেন, প্রাচীনকালে বাংলাদেশ ছিল পৃথিবীর সবচে’ ধনী দেশ। তিনি বিশ্ববিখ্যাত পর্যটক বার্নিয়ারের কথা উল্লেখ করে বলেন, বার্নিয়ার শাহজাহানের রাজত্বকালে ভারতীয় উপমহাদেশে এসেছিলেন। তিনি দু’বার বাংলাদেশে আসেন।

এদেশের বিস্তারিত বিবরণ তৎকালীন ফরাসি রাজা চতুর্দশ লুই-এর প্রধানমন্ত্রী কোর্লবার্টকে তিনি চিঠি লিখে জানিয়েছিলেন। একটি চিঠিতে তিনি লিখেছিলেন, প্রতি যুগে মিশরকেই বিশ্বের সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী ও ফলশালী দেশ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে, কিন্তু মিশরের এই সম্মান বস্তুত বাংলারই প্রাপ্য।

নগরীর জিইসি মোড়স্থ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি প্রাঙ্গনে এই ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের ৩৪ তম ব্যাচের বরণ ও ২৭ তম ব্যাচের বিদায় উপলক্ষে সোমবার আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিভাগের চেয়ারম্যান সাদাত জামান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ১৭৫৭ সালে নবাব সিরাজদ্দৌলার পতন ঘটিয়ে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এই বাংলাদেশকে ইংল্যান্ডের কলোনিতে পরিণত করে।

তারপর মাত্র তিন বছরের মধ্যে এই দেশের তৎকালীন ৫০০ কোটি পাউন্ডের সম্পদ ইংল্যান্ডে পাচার করে। এরপর থেকে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত তারা ক্রমাগত বাংলাদেশকে শোষণ করেছে। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট বাংলাদেশের মানুষ ইংরেজদের শোষণ থেকে মুক্ত হলেও নতুন করে পশ্চিম পাকিস্তানিদের দ্বারা শোষিত হতে শুরু করে।

প্রায় ২৩ বছর ধরে তাদের শোষণের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের মানুষ ১৯৭১ সালে মহান মুুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এরপর ৩০ লক্ষ মানুষের প্রাণ ও ৩ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা।

ড. সেন ইংরেজি ভাষা সম্পর্কে বলেন, বিশ্বের প্রথম সারির বৃহত্তম কর্পোরেশনগুলোর অধিকাংশের ভাষা ইংরেজি। তারা ইংরেজির মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করেন। সাহিত্যে ইংরেজি ভাষার বিশাল অবদান রয়েছে। শেক্সপিয়ার, শেলি, ওয়ার্ডসওয়ার্থ, কীটস, বায়রন ও ইয়েটস্-এর মতো কবি রয়েছেন।

তেমনি রয়েছেন নিউটনের মতো অসাধারণ বৈজ্ঞানিক, যাঁকে বিজ্ঞানের জনক বলা হয়। সুতরাং ইংরেজদের ঔপনিবেশিক শোষণে আমরা অত্যন্ত দীন হলেও, মননের জগতে তাদের দ্বারা আমরা সমৃদ্ধি পেয়েছি। ইংরেজি ভাষার ছাত্র-ছাত্রীরা ইংরেজি ভাষায় যে-সম্পদ রয়েছে তার দ্বারা যখন নিজেদের জীবনকে আলোকিত করবে, তখন তারা যেন আমাদের দেশের দীন-দরিদ্র-বঞ্চিত মানুষগুলোকে না ভোলে। কারণ এই বঞ্চনায় ইংরেজদের একটা অবদান রয়েছে।

২৭ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী শাকেরা আহমেদ ও মো. শাহেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম।

আরও বক্তব্য রাখেন সহকারী প্রক্টর আবদুর রহিম, সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ জসিম উদ্দিন, রফিকুল ইসলাম, সুমিত চৌধুরী ও প্রভাষক শান্তনু দাশ।
শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

ঢাকা, ০৮ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।