কর্মী সংকট, তবুও সোচ্চার জবির বাম সংগঠনগুলো


Published: 2017-10-11 17:27:47 BdST, Updated: 2017-11-23 11:16:55 BdST

এহসানুল মাহবুব জোবায়ের: বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিভিন্ন অযৌক্তির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, আন্দোলনের পাশাপাশি দেশের  বিভিন্ন গুরুত্বর্পূণ ইস্যুতেও তারা র্সবদা সোচ্চার থেকেছে। কিন্তু ক্যাম্পাসে নিয়মিত বিভিন্ন কর্মর্সূচী পালন করলেও তাদের জনশক্তি খুবই কম। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়সহ বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে গুরুত্বর্পূণ ভূমিকা পালন করে আসছে জগন্নাথ বিশ্ববদ্যিালয়রে (জবি) বাম রাজনৈতিক সংগঠনগুলো। 

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে চারটি বাম সংগঠন আছে। এগুলো হলো ছাত্র ফেডারেশন ,ছাত্র মৈত্রী, ছাত্র ইউনয়িন, ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট। এই চারটির সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

ক্যাম্পাসে বাম সংগঠনগুলোর অধিকাংশ র্কমসূচী প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ব্যানারেই অনুষ্ঠিত হতে দেখা যায়।ক্যাম্পাসে সাধারণ  শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে  হল আন্দোলন, ক্যান্টিনে খাবারের মান বৃদ্ধি, সন্ধ্যাকালীন কোর্স বন্ধ সহ গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় আন্দোলন করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। 

এছাড়া শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দাবীসহ দেশের বিভিন্ন গুরুত্বর্পূণ ইস্যুতে ক্যাম্পাসে বাম সংগঠনগুলো আন্দোলন, প্রতিবাদ র্কমসূচী ঘোষনা করেন। তবে এসব কর্মর্সূচীতে হাতে গোনা কয়কেজন জনশক্তি্র উপস্থিতি থাকে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববদ্যিালয়ের শিক্ষার্থীরা।    

জবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন বলনে, সামগ্রকিভাবে আমি মনে করছি না ছাত্ররা মাঠে নামছে না বা কাজ করছে না। সমস্যা হচ্ছে দেশের রাজনৈতিক পরিবেশ ও শিক্ষার পরিবেশ যখন ঠিক না থাকে তখন ছাত্রদের মধ্যে কি করব, কি করব না এরকম একটি সংশয় তৈরী হয়।গণতান্ত্রিক পরিবেশ যদি একটি প্রতিষ্ঠানে নিশ্চিত থাকে তাহলে সেখানে ছাত্র সংগঠনগুলোও বাড়তে থাকে।গণতান্ত্রিক পরবিশে যদি কোন প্রতিষ্ঠানে বজায় না থাকে তাহলে দু’য়েকটি হাতেগোনা সংগঠন যারা ক্ষমতার কাছাকাছি থাকে তারা বাড়তে থাকবে। 

সংগঠনগুলো মনে করছে জনশক্তি কম  থাকার  কারণে তাদের বিভিন্ন দাবিগুলোতে প্রশাসন  সাড়া দিচ্ছে না । 

জবি সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রেন্টের সভাপতি মেহেরাব আজাদ বলনে ,বিশ্ববিদ্যালয়ে  যদি কখনো সাধারণ শিক্ষার্থীদের স্বার্থ কেন্দ্রীক কোন আঘাত হানে সেই অবস্থায় বাম সংগঠনগুলো মূলত সামনে এগিয়ে আসে।কিন্তু র্বতমানে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কলূসতি অবস্থার বিরাজ করছে যেখানে সবকিছু হয়ে গেছে ক্ষমতা ও স্বার্থকেন্দ্রীক।ছাত্র সংসদ না থাকায় বামপন্থী রাজনীতরি এক ধরণের দুর্দশা বিরাজ করছে।এছাড়াও সাধারণ শিক্ষার্থীদের সচেনতার অভাব রয়েছে।

 

ঢাকা, ১১ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।