জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির নতুন বই উৎসব


Published: 2020-09-04 18:20:48 BdST, Updated: 2020-10-30 18:52:34 BdST

এনইউ লাইভ: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদের নতুন বই প্রকাশ হয়েছে। অন্যপ্রকাশ প্রকাশনী এই গবেষণাধর্মী বইটি প্রকাশ করে। নতুন বইয়ের পাঠ উন্মোচন নিয়ে ভার্চুয়াল প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত রাষ্ট্রবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. রওনক জাহান। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল্লাহ।

আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর প্রফেসর ড. আতিউর রহমান, বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ প্রফেসর সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. রওনক জাহান বলেন, আমার সরাসরি ছাত্র প্রফেসর হারুন। অনেক ছাত্রই বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রেখে চলেছেন। তবে আমার কাছে অবাক লাগে কীভাবে প্রফেসর হারুন দুইটি দিক সমানভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বৃহৎ একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি তাকে প্রশাসন সামলাতে হচ্ছে। একই সঙ্গে তিনি ব্যাপকভাবে গবেষণাও চালিয়ে যাচ্ছেন।

এসময় তিনি আরো বলেন, আমরা দেখেছি যারা প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত তারা গবেষণা করতে পারেন না। কিন্তু হারুন সেক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। আমরা সবাই জানি প্রফেসর হারুন একটি রাজনেতিক আদর্শ ধারণ করেন। কিন্তু তার গবেষণায় তার ছাপ থাকে না। নির্মোহ সত্য তথ্যই গবেষণায় উঠে আসে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক এই প্রফেসর বলেন, "প্রফেসর হারুনকে আমি ধন্যবাদ জানাই। কারণ তাঁর নতুন বইটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও সময়োপযোগী। তিনি এর আগেও অনেক বই লিখেছেন। তবে তার এই বইটি বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ নিয়ে গবেষণা ক্ষেত্রে নতুন দিক উন্মোচন করবে। একটি বইয়ের প্রধান যে বৈশিষ্ট্য, পরিশিষ্ট ও রেফারেন্স সব কিছুই এই বইয়ে অত্যন্ত শক্তিশালী। বইটি প্রকাশে লেখক যে নিরলস পরিশ্রম ও গভীর মনোযোগী ছিলেন বইটি পড়লেই সেটি স্পষ্ট হয়ে ওঠে।"

সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, " বইটি আমি পড়েছি। ইতিহাস ব্যাকগ্রাউন্ডের একজন মানুষ হিসেবে আমি বলবো বইটিতে ঐতিহাসিক বিষয়াবলী সাবলীলভাবে স্থান পেয়েছে। প্রফেসর হারুন প্রচন্ড চাপের মধ্যেও গবেষণা কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।"

'৭ই মার্চ থেকে স্বাধীনতা' শীর্ষক বইয়ের লেখক ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. হাররুন-অর-রশিদ বলেন, "বইটির প্রকাশনা উৎসবে আমার আসলে বিশেষ কিছু বলার নেই। কারণ বইটি আমি যেভাবেই হোক লিখেছি। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষকরা যদি বইটি পড়েন তাহলে বুঝতে পারবেন কী লিখেছি। এটি

তারাই মূল্যায়ন করবেন। তবে লেখার ক্ষেত্রে আমি মৌলিক কিছু বিষয় মেনে চলি। এই বইটির বেলায়ও তার প্রতিফলন ঘটেছে।"

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান বলেন, "বইটিতে ৭ই মার্চের যে বহু মাত্রিকতা সেটি উঠে এসেছে। ভাষণটি যে আকস্মিক ছিল না৷ এর পেছনে ছিল বাঙালির হাজার বছরের আশা আকাঙ্খা। সেই আশা আকাঙ্খার মুক্তি ঘটেছে ৭ই মার্চ। অত্যন্ত ব¯‘নিষ্ঠভাবেই লেখক এটি তুলে ধরেছেন।"

কথাশিল্পী সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, ৭ মার্চ থেকে স্বাধীনতা- বইয়ের লেখক প্রফেসর হারুন একজন জ্ঞান সাধক। তিনি যেকোন কাজ অত্যন্ত নিষ্ঠা নিয়ে করেন যাতে কোন ফাঁক না থাকে। তিনি যখন গবেষণা করেন তখন গবেষণালব্ধ তথ্য ঝালিয়ে নেন। তথ্য উপাত্ত যাচাই-বাছাই করেন।

এ কারণে তিনি যে বই লিখেন সেটি মৌলিক আকর গ্রন্থ হিসেবে রূপ নেয়। ছাত্র- ছাত্রীরাও পাঠ্যবই হিসেবে বইগুলোকে কাজে লাগাতে পারে। একই সঙ্গে যারা গবেষণা করেন তাদের কাছেও বইগুলো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে।

 

ঢাকা, ০৪ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।