ইএমকে সেন্টারে শিক্ষকদের সার্টিফিকেট প্রদান


Published: 2019-07-30 14:55:20 BdST, Updated: 2019-09-16 17:00:20 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: ২১ শতকের দক্ষ শিক্ষক গড়ে তোলার লক্ষ্যে, সম্প্রতি মির্জাপুর টাঙ্গাইলে আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডেশন ও এডওয়ার্ড এম. কেনেডি সেন্টার (ই এম কে সেন্টার)-এর যৌথ উদ্যোগে শিক্ষকদের সার্টিফিকেট প্রদান অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই অনুষ্ঠানে আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডশনের টিচার ডেভেলপমেন্ট ইউনিট আলোকিত টিচার্স উদ্বোধন করা হয়।

যার লক্ষ্য হল ২১ শতকের শিক্ষকদের সমর্থন, পরিচর্যা ও ক্ষমতায়িত করার মাধ্যমে আগামীর জন্য আলোকিত প্রজন্ম গড়ে তোলা।

আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডেশন ২০১৬ সালে মির্জাপুর, টাঙ্গাইলে একটি স্কুল স্থাপনের মধ্য দিয়ে তাদের যাত্রা শুরু করে। স্কুলটি তাদের গবেষণাগার হিসাবে কাজ করে যেখানে প্রতিটি ক্ষেত্রে সহানুভূতিশীলতা চর্চা করা হয়।
তাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল ২১ শতকের শিক্ষার পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য শিক্ষকদের ফ্যাসিলেটর হিসাবে গড়ে তোলা, শিক্ষকদের তাদের মানবিক বুদ্ধিমত্তাকে লালন করা, উদ্যোগ গ্রহনে উৎসাহ প্রদান করা, সমস্যার সমাধান করা ও তাদের মাঝে সহযোগিতার সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে ‘চেঞ্জ মেকার’-দের একটি কমেউনিটি গড়ে তোলা।
গত ২ বছরে তাদের পরীক্ষিত পদ্ধতিগুলো নিয়ে বাংলাদেশের ১১২ জনের অধিক শিক্ষকদের তারা প্রশিক্ষণ প্রদান করেছেন। বিভিন্ন ধরণের শিক্ষা পদ্ধতি যেমন, খেলাধুলার মাধ্যমে শিক্ষা, সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে শিক্ষা, সৃজনশীল প্রশ্ন তৈরি করার মাধ্যমে শিক্ষা পদ্ধতির উপর ভিত্তি করে অভিজ্ঞতা ভিত্তিক ওয়ার্কশপ ও ক্লাসরুম মেন্টরিং-এর মাধ্যমে শিক্ষকদের ট্রেনিং দেয়া হয়। ওয়ার্কশপ পরবর্তী ক্লাসরুম মেন্টরিং আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে একদমই নতুন। এর ফলে শিক্ষকরা ট্রেনিং-এর সময় শেখা নতুন কনসেপ্ট ও এ্যাপ্রোচগুলো ভালোভাবে আত্মস্থ করতে পারে। এই পদ্ধতি অনুসরণের উদ্দেশ্য হল শিক্ষার্থীদের ২১ শতকের শিক্ষার্থী হিসাবে গড়ে উঠতে সাহায্য করা।

ইএমকে সেন্টার ও আলোকিত টিচার্সের এই যৌথ উদ্যোগে টাঙ্গাইলের যে ১০টি সরকারি ও বেসরকারি স্কুলের মোট ৮০ জন শিক্ষকদের ট্রেনিং দেয়া হয়েছে তাদের এই অনুষ্ঠানে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। ওয়ার্কশপ চলাকালীন ও ক্লাসরুমে পারফর্মেন্সের উপর ভিত্তি করে তাদের মধ্য থেকে মোট ১০ জন শিক্ষককে ‘টিচার লিডার’ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। টিচার লিডারদের মতে, শিক্ষকদের স্বীকৃতি ও সহযোগিতা প্রদানের জন্য এই ধরণের অনুষ্ঠানে তাদের আগে কখনো অংশগ্রহণ করার সুযোগ হয় নি, তাই এই উদ্যোগে তারা অনেক বেশি আনন্দিত।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো আলমগীর হোসেন, এডওয়ার্ড এম কেনেডি সেন্টার থেকে এন্টারপ্রেনারশিপ কো-অরডিনেটর শারমিন আক্তার শাকিলা, কিন্ডারগারটেন এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল কাসেম শিকদার এবং আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন আজওয়া নাঈম উপস্থিত ছিলেন।

২১ শতকের শিক্ষকদের একটি কমিউনিটি তৈরি করার লক্ষ্যে আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডেশন উদ্বোধন করেছে একটি ওয়েবসাইটঃ alokitoteachers.com। এই প্ল্যাটফর্মে শিক্ষকরা শিখতে পারবে, আয় করতে পারবে ও নিজেদের ২১ শতকের শিক্ষক হিসাবে গড়ে তুলতে পারবে। ওয়েবসাইটটির মাধ্যমে শিক্ষকরা ঘরে বসেই অনলাইনে নতুন নতুন শিক্ষা পদ্ধতির উপর ট্রেনিং নিতে পারবে এবং বিভিন্ন বিষয় পড়ানোর কিছু সহজ ও ২১ শতকের উপযোগী উপায় টুলকিটের মাধ্যমে জানতে পারবে। আগ্রহী শিক্ষকরা নিজেদের জন্য অনলাইনে ট্রেনিং সেশনও বুক করতে পারবেন।

এর মাধ্যমে তারা বিভিন্ন ধরণের শিক্ষামূলক বিষয় শেয়ার ও আলোচনা করার পাশাপাশি তাদের সৃজনশীলতা শেয়ার করার মাধ্যমে আয়ও করতে পারবে। এই পুরো বিষয়টি আমাদের দেশের স্কুলগুলোর ক্ষেত্রে একটি নতুন সংযোজন যা শিক্ষকদের নিজেদের আত্ম-উন্নয়নে উৎসাহ দিবে।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের ‘দি ফিউচার অফ জবস’ রিপোর্টের মতে, “২০২২ এর মধ্যে ৭৫ মিলিওন চাকরি প্রযুক্তি দ্বারা স্থানান্তরিত হবে। একই সময়ের মাঝে নতুন ধরণের ১৩৩ মিলিওন চাকরির উদ্ভাবন ঘটবে। তবে যারা তাদের চাকরি হারাবে তাদের অনেকেরই এই নতুন ধরণের চাকরি করার দক্ষতা থাকবে না। ফলে এই ধরণের কাজের জায়গাগুলো ফাঁকা পড়ে থাকবে”।

এই ধরণের ‘স্কিল গ্যাপ’ গত অর্ধ-দশকে একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এর সমাধান আমরা ততদিন পাব না যতদিন পর্যন্ত আমাদের প্রতিষ্ঠানগুলো বৈষয়িক অর্থনীতির নতুন ধরণের চাহিদাগুলো পূরণ করার জন্য পর্যাপ্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করবে না।

আলোকিত হৃদয় ফাউন্ডাশন আশা করে, এই উদ্যোগের মাধ্যমে শিক্ষকরা ধীরে ধীরে ২১ শতকের ফ্যাসিলেটর হওয়া সম্পর্কে ধারণা পাবে এবং শিক্ষার্থী-পরিচালিত ক্লাসরুম গঠনে সফল হবে, যা উভয় পক্ষের জন্য সুফল বয়ে আনবে। এই ভাবে শিক্ষার্থীরা আগত চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য তৈরি হবে।


ঢাকা, ৩০ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।