বাবাদের কখনো কি কিছু প্রয়োজন হয়না?


Published: 2020-06-21 23:25:05 BdST, Updated: 2020-07-05 19:51:52 BdST

রিফাত নূর রাব্বি: মা'য়ের সাথে কি বাবার তুলনা চলে? এক কথায় এর উত্তর হতে পারে 'না'। তবু্ও আমাদের পরিবারগুলোতে বাবার ভূমিকা কত বেশি সেটা তার অভাবে প্রতীয়মান হয়। ছেলেবেলায় মনে হতো বাবা কখন বাড়ির বাইরে যাবে আর আমি মাঠে খেলতে যাবো। খেলতে যেতে বাধা দেয়ার জন্য বাবার প্রতি প্রচণ্ড রাগ আর ক্ষোভ নিয়ে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে ইচ্ছা হতো। ভাবতাম বাবা এতো রাগী কেন! এতো পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত থাকতে বলে কেন! একটু বাইরে রোদে খেললে কি হয়।

ছোট থাকতে আমার বাবাকে মনে হতো তিনি প্রচন্ডরকম রাগী আর সবাইকে শাসন করাই তার কাজ। তখন আশেপাশের বন্ধুর বাবাদেরও দেখতাম তারা তাদের সন্তানদেরকে শাসন করা আর খেলতে দিতে চাইতো না।

আমি তখন ভাবতাম বাবারা এমন কেন। বাবারা কথা কম বলে, হাসে কম আর ব্যস্ত থাকেন নিজের কাজে। দিন যেতে থাকে আর বাবাদের সত্যিকারের চেহারাগুলো আমার মনে জায়গা করে নেয় এক অনন্য ভালবাসায়। আমি একসময় ভাবতাম মা'ই আমাদেরকে শুধু ভালোবাসেন আর বাবা তার নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। আমাদেরকে সময় দেয়া বাবার পক্ষে সম্ভব না। বড় হতে হতে ভ্রান্ত ধারণাগুলো পাল্টে গেছে, এখন ভাবি বাবা এক অন্য ব্যক্তি যিনি নীরবে ভালোবাসেন প্রকাশ করেন না। বাবার আচরণে কখনোই তার ভালবাসার প্রকাশ ঘটেনা।

আজ থেকে দশ বছর পূর্বে আমি আমার মা'কে হারানোর পর বুঝেছি বাবা আমাকে কত বেশি ভালবাসেন। তার নিজের কখনো কিছু প্রয়োজন হয়না, জামা ছিড়ে গেলে কখনো তা পুরানো হয়না। তার জুতার বয়স শেষ হয়না।

ঈদ যায় ঈদ আসে নতুন জামা কেনা হয়না তার। বাবার ফোনের বয়স বাড়ছে সেটা পরিবর্তন করার সময় নেই বা টাকা নেই তা নয় তিনি নিজে কখনো চাননা তার জন্য খরচ হোক,ফোনের বাটনগুলো আর দেখা যায়না, এতো ছোট স্ক্রিন যদি ঠিকভাবে দেখা যায়না তবুও নাকি পুরনো হয়নি ফোনটি, দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছেন ফোনের শত সমস্যা নিয়ে। বাবারা সব বিষয়ে কৃপণ হয়ে থাকেন শুধু সন্তানের প্রয়োজনে তার কৃপণতা নেই।

বাবা নামক বিস্তৃত বট বৃক্ষের বয়স বাড়তে থাকলে বুঝা যায় তার দাম কত বেশি। নিজের চোখের সামনে দেখছি তার সবকিছুতে পরিবর্তন। এখন তার বকাঝকাকে অনেক মনে পড়ে। দিন যাবার সাথে গম্ভীর, রাগী মানুষটির চেহারা বদলে বয়সের ছাপে বাড়তে থাকে। চাকরি থেকে অবসরে যান, সারাদিন বাড়িতে একা অবসাদ আর সন্তানের চিন্তায় তখনও ব্যস্ত বাবা। শরীরে আগের মতো চলার শক্তি নেই বাবার, চোখে নেই সেই তীক্ষ্ণতা,নেই গলার স্বরে সেই জোর, ছোটবেলায় অনেক দূর থেকে চুরি করে খেলতে যাওয়া দেখে যিনি ধমক দিয়ে বলতেন ''কোথায় যাস, ব্যাটবল রেখে পড়তে বস।" নেই সেই শাসনের প্রবণতা আছে শুধু সন্তানদের কাছে পাওয়ার ব্যকুলতা।

সন্তান তার পাশে থাকুক আর দূরে থাকলে সুস্থ ও ভালো থাকুক এই আশায় বুক বেধে থাকেন বাবা। সন্তানের ভালোর জন্য শত ত্যাগ স্বীকার করা অনেক বাবা-মারই শেষ বয়সে জায়গা হয় বৃদ্ধাশ্রমে। সেসব সন্তান তাদেরকে সেখানে পাঠায় তাদেরকে পশুর সাথে তুলনা করাও পাপ হবে কারণ পশু রাও তাদের বাবা-মাকে দেখে রাখে।

যারা এমনটা করে থাকে তারা নিকৃষ্ট প্রাণীর দলভুক্ত। সন্তানের চোখে বাবাকে বৃদ্ধ দেখার মতো কষ্ট আর কি হতে পারে। আজ বিশ্ব বাবা দিবসে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হউন তাদেরকে সুন্দরভাবে দেখভাল করার জন্য যেন প্রতিদিনই আপনার নিজের কাছে, আপনার নিজের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে আপনি জবাবদিহি করতে পারেন। না হলে এর দায় নিতে হবে আপনার অনাগত ভবিষ্যতে যেখানে আপনার সন্তানও আপনাকে দেখবে না।

আমরা করোনাকালে দেখেছি করোনা ভয়ে যখন কেউ কারো পাশে আসছে না, তখন এক সন্তানকে তার বাবা কোলে করে নিয়ে গেছেন হাসপাতালের বারান্দা থেকে ভিতরে আর সেই বাবা বলেছিলেন "তোর বাপ এখনো মরে নাই"। একটি ছেলে যখন বাবা হয়, তখন থেকে তার জীবনের মোড় ঘুরে যায়, বাবা তখন তার সবকিছু ব্যয় করে তার সন্তানের সুখের জন্য, সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য।

তবু্ও কেন সন্তানরা বড় হলে মা-বাবার কষ্ট বুঝতে পারেনা। তারাও তো একদিন মা-বাবা হবে, আজকের অবহেলা সময়ে ফিরে আসতে পারে। সময় থাকতে মা-বাবার প্রতি যত্নবান হই, তারা হারিয়ে গেলে পৃথিবীতে আমরা আমাদের সবচেয়ে ভালোবাসার মানুষকে হারাবো।

লেখক: শিক্ষার্থী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

ঢাকা, ২১ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।