"ভালোবাসার স্পষ্ট নিশ্বাস তুমি"


Published: 2018-11-21 14:10:50 BdST, Updated: 2019-06-25 00:19:47 BdST

মেজবাহ উদ্দিন: আমার হৃদয়ে অবস্থানরত মহাকালের বিকলাঙ্গ খড়ায় এক ফোঁটা বৃষ্টির হৃদ্যতা ঢেলে দিয়েছিল সেদিন। তোমার হাসি, হাসির দৃষ্টতা ভালোবাসার ভূপৃষ্ঠে এঁকেছিল অফুরান জন্মশ্বাস। তোমায় ছুঁয়েছিল স্বপ্নের স্পষ্টতা আর আমায় যাদুকরী নিশ্বাস হুম...।

একটা বিয়ের অনুষ্ঠানে তুমি নির্ঝরিনীর মতই হাসির ঝর্ণা বইয়ে দিয়েছিলে সৌহার্দদের সাথে, নিরবে কেড়ে নিয়েছিলে দৃষ্টির অবকাশ। তারপর থেকে কত অবয়ব সৃষ্ট করেছি তোমার কাছে আমাকে উপস্থাপন করার। মনে আছে! সেই রং নাম্বারে দেওয়া প্রথম কলের কথা। যেখানে আমি নিজেকে "ব্ল্যাক ডায়মন্ড" বলি। আর তুমি অনেক কৌতূহল রেখেই বলেছিলে, এ আবার কেমন নাম হাহাহাহ।

তুমি হয়ত জানোনা তোমার সেই কৌতূহলের সাথে সেদিন অনেক কৌতূহলী প্রেরণার কাব্য রচনা হয়েছিল একাকী মনে। তোমার সেই নাম ধরে ডাকা আমার অনেক ভালো লাগতো। এর আগে কোন মেয়ে নাম ধরে ডাকার অনুযোগ পায় নি এমন ভাবে। আর যেদিন আমি প্রথম চুম্বনের চুম্বক শক্তি অনুভব করেছিলাম। এ যেন একটা স্বপ্নের সাগরে প্রথম পা রাখা।

এই বুঝি সর্বসুখের রাজ্য, যদিও তা একটা অপ্রস্তুত পরিবেশে বন্ধুদের নিকট সাহসী গল্পের কাব্য হিসেবে রচনা করেছিলাম। না হয় অত সাহসী কোন যুগেও আমি ছিলাম না। আমি বড়ই স্বার্থপর তোমার দায়িত্ব নেওয়ার প্রশ্নে চিরকালই অসংগতি। আমার হেয়ালী মনের আকাশ কিংবা সময় কাটানোর অবকাশ কষেই তোমার বিকাশটা উদ্ভব ঘটে।

স্বপ্নের চেয়েও যে সুন্দর হয় সময়, যদি ভাবনামুক্ত কারো ভালাবাসার সংস্পর্শ জীবন আসে, প্রতিটা স্পন্দন রংধনুর ছোঁয়া পায়, ঠিক যেন ছেলে বেলার সেই গন্তব্যবিহীন ছুটে চলা নদী। যা আমি বুঝেও বুঝতে দেইনি নিজেকে। আমি শুধু তোমার শ্রাবণ জীবনে মেখে শত বসন্তের বাসন্তী থেকে গুটিয়ে নিয়েছি নিজেকে।

মেজবাহ উদ্দিন

 

কারণ তোমার শ্রাবনেই যে সুখের সুরা আমি পান করেছি তা শত বসন্ত অপেক্ষা শ্রেয়। এত প্রাপ্তি নিবারনেও শেষ হবার নয়। সত্যিই বাস্তবতা থেকে বলছিল, তোমার হাতটা শক্ত করে ধরতে, যখন তোমার ছায়া পেতে চাই, ঠিক তখনি আমি দুরে সরে যাই। পরিবার, সমাজ, ইজ্জতের অজুহাতে। যদিও তুমি কখনোই বলো নি, যে তোমার হাতটা আমি শক্ত করে আকড়ে ধরি! সময়ের অসহায়ত্বের কাছে নিজে কে ছোট করোনি।

আমি যে এখনো বাঁচি, রোজ যাচি, আমার অবশিষ্ট আকাঙ্খার কামরায় নিমগ্ন অনুভবে। তোমাকেই আঁকি প্রত্যহ নিজের জানতে অজান্তে। নেই শুধু আগের সেই দীপ্ত শহর। নেই সেখানে প্রচলিত তোমার বহর। তুমি কখন এতটা পরিসরে আমার মধ্যে বসবাস করতে শুরু করলে তা হয়ত ভাবনার অন্তরালেই থেকে যায়।

যদিও উভয়ে জানতাম, তুমি আর আমি শুরুটাই হয়েছিল অপ্রাপ্তির মেঘ পল্লব সংবলিত আকাশের পরিসংখ্যান থেকে। যা শুধু ভেসেই যাবে কখনো মাটির সন্ধান পাবে না। মানুষ কত লালিত সুখই না বিসর্জন দেয়, পাশের কিছু মানুষকে ছোট হতে হবে এই ভেবে।

তোমার কাছে আমার সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি হল অভয়। তুমি স্পষ্ট করেছিলে সত্যিকারের ভালবাসায় কোন ভয় নেই, কোন ক্ষয় নেই। আমি নিজেকে সবচেয়ে উন্মাদ রেখেছিলাম তোমার কাছে। কারণ তোমার কাছে ছিল অফুরান বিশ্বাস, যার তিল পরিমাণ অসম্মান হতে দাও নি তুমি। না হয় আজকাল স্বার্থহীন সম্পর্ক বড়ই দুস্প্রাপ্য সাধন।

মেজবাহ উদ্দিন

 

ভালোবাসার স্পষ্ট নিশ্বাস তুমি, এ তুমি আমার, তুমি সকল অনুযোগের অমলিন স্পর্শধারা।
কখনো কোন অধিকার সংবরনে নিজেকে উপস্থাপন করোনি, হারিয়ে দিয়েছো আমাকে। আমার মাঝে সৃষ্টি করেছো ভালোবাসার শত যুগল সত্য ধারা।

জানি কোন পৌষ কিংবা বসন্তের মাঝামাঝি আর হয়তো নিয়মিত নিয়মে অনিয়ম করে তোমার মাঝে ডুবে থাকা হবে না। তবে তুমি আমার মাঝে সকল অনিয়মে নিয়ম করে রবে কোন যোগাযোগ ছাড়াই। তুমি সেই রাস্তা, যে রাস্তায় পথিক কোন দিন পথ হারায় নি। যার চারপাশে গভীর ছায়ানট আর ক্লান্ত পথিকের সেই পথ ধরে স্বর্গে ফেরা।

 

 

ঢাকা, ২১ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।