“বাংলাদেশেরও মালেশিয়া হওয়ার স্বপ্ন আছে”


Published: 2018-05-16 20:44:54 BdST, Updated: 2018-05-21 13:07:57 BdST

মুকুটহীন সম্রাট: ওয়ালটন আমাদের পণ্য কিন্তু ব্যাটারিতে লেখা থাকে made in China but it might have made in Bangladesh.সবচেয়ে দু:খ লাগে স্বাধীনতার ৪৭ বছরে আমরা একটা মোবাইলের ব্যাটারিতে made in Bangladesh দেখতে পাচ্ছিনা।

অন্য দেশ থেকে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে রোবট নিয়ে আসি, উন্নত চিকিৎসার জন্য এখনও অন্য দেশের কথা না বললেও প্রতিদিন ভারতে যাচ্ছে হাজার হাজার রোগী।কেন?।১৯৮০ সালের আগে মালেশিয়ার অবস্থান তেমনটা উল্লেখ করার মতো ছিল না।৮১ সালে মাহাথির ক্ষমতায় এসে দেশ নিয়ে তাঁর চিন্তাগুলোর বাস্তবে রূপ দেওয়ার কাজ শুরু করেন।

জাপানকে অনুসরণ করে তিনি মালয়েশিয়াকে ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি, স্টিল ও গাড়ির উৎপাদক দেশে পরিণত করেন। অথচ এর আগে মালয়েশিয়া শুধু রাবার ও টিন রপ্তানি করত। টানা ২২ বছর ক্ষমতায় ছিলেন মাহাথির মোহাম্মদ। এই দীর্ঘ সময়ে মালয়েশিয়াকে এশিয়ার অন্যতম অর্থনৈতিক শক্তিতে পরিণত করেন তিনি।

স্বাধীনতার ৪৭ বছরে এসে ওয়ালটনের ব্যাটারিতে লিখা থাকে made in China.প্রযুক্তিগত ভাবে পিছিয়ে থেকে একটা দেশ কিভাবে এগিয়ে যাবে?আমাদের রাজনেতিক দল গুলো কিসের খেলায় মত্ত ছিল ।দেশের রাজনৈতিক প্রতিষ্টানের প্রাতিষ্টানিকীকরণ শূন্যের কোটায়।৭১ সালে দেশ স্বাধীন হলেও ৭৫ সাল থেকে ৯১ ষাল পর্যন্ত দেশ জিম্মী ছিল সামরিক বাহিনীর হাতে এর পরে দেশের রাজনীতি চলে অাসে রাজনৈতিক দল গুলোর হাতে, সেই হিসেবে রাজনৈতিক দল গুলো ২৭ বছর দেশের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করছে।

এ সময়ে আমাদের দেশ ,রাজনৈতিক,অর্থনেতিক এবং প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে কি পরিমাণ উন্নত হয়েছে।রাজনৈতিক সংস্কৃতি বলতে,দোষারুপের,প্রতিশোধের,ক্ষমতা কুক্ষিগতের রাজনীতি আমাদের রাজনৈতিক দল গুলো খুব ভালভাবে প্রতিষ্টিত করতে পেরেছে।নিবাচনে জয় লাভ করার পর মাহাথিরের বক্তব্যটা থেকে আমাদের দেশের রাজনীতিবিদদের অনেক কিছু শেখার আছে,সে সাংবাদিকদের বলেছে“কোন প্রতিশোধ নিতে চাই না আইনের শাসন প্রতিষ্টা করতে চাই”।

আজকে যে আনোয়ার ইব্রাহিমের সাথে জোট করে নিবাচনে জয় লাভ করল অথচ ১৯৯৮ সালে সেই আনোয়ারকেই বরখাস্ত করেন মাহাথির।প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় মাহাথিরই প্রথম নাজিবকে মন্ত্রী বানিয়েছিলেন। নাজিব প্রধানমন্ত্রীও হয়েছিলেন তাঁর সমর্থন নিয়ে। এবার শিষ্যের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মাহাথির বলেছেন, “আগে তিনি ভুল করেছিলেন! এবার সেগুলো শুধরে নিতেই ক্ষমতায় আসতে চান তিনি”।

দুই বছর আগে বাংলাদেশ প্রতিদিনে একটা আর্টিকেল পড়েছিলাম,সে আর্টিকেলটা ছিল এই শিরোনামে,“বর্তমান সরকারের লক্ষ্য কি” সেই লেখায় সৈয়দ আবুল মকসুদ লিখেছিলেন,“সরকার মাহাথিরের স্টাইলে দেশ চালাবে,দশ বিশ বছর ক্ষমতায় থাকবে” এখন কথা হল কতটুকু মাহাথিরের মতো চালালো। বর্তমান সরকার দশ বছর ক্ষমতায় আছে আরও বারো বছর ক্ষমতায় থাকলে দেশ কি মালেশিয়ার মতো হয়ে যাবে? ২০১৮ সালে দেখছি ,আমাদের দেশের ছাত্ররা মালেশিয়ায় পড়াশুনা করতে যাচ্ছে, ২০৩০ সালে কি আমরা দেখতে পাব মায়ানমার থেকে ছাত্ররা আমাদের দেশে পড়তে আসবে?

আমাদের দেশে বিশ্ববিদ্যালয় আছে কিন্তু বিশ্বের বিদ্যালয় হয়ে উঠতে পারেনি ,২০৩০ সালে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় গুলো কি বিশ্বের বিদ্যালয় হয়ে উঠবে? আমদের ছাত্ররা যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস রুমে ঢুকবে সে কি তার অন্য দেশের বন্ধুকে বলতে পারবে, hi! What’s up? এ সরকারের আমলে যোগাযোগ ক্ষেত্রে দৃশ্যমাণ উন্নয়ন হয়েছে।দেশের অথনীতির আকার বড় হয়েছে কিন্তু দেশের লাইভিং কস্ট দ্বিগুণ হয়েছে যেটি দশ বছর আগে কল্পনাও করা যেতো না।

কাল একটা লেখায় পড়লাম,"ভারত যদি নিজে নিজে স্যাটেলাইট তৈরি করতে পারে আমরা কেন পারছি না?যে টাকা গুলো স্যাটেলাইট ক্রয় করতে ব্যয় করেছে ,সেই টাকা যদি আমাদের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে বাজেটে বরাদ্দ দিত তাহলে কি হতো?"হয়তো আমরা স্যাটেলাইট তৈরি করতে পারতাম না কিন্তু আমাদের দেশ প্রযু্ক্তিগত দিক দিয়ে অনেক দূর এগিয়ে যেত। আমাদের কি মেধাবী নেই।

আমাদের মেধাবীরা বাইরের দেশে চলে গিয়ে সেই দেশের উন্নয়নে অবদান রাখছে,আমরা কি পারিনা আমাদের দেশের ছাত্ররা এখানে থাকতে ইচ্ছুক হওয়ার মতো একটা দেশ বানাতে?সেই স্বপ্ন কত দূর?

মুকুটহীন সম্রাট
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা, ১৬ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিসিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।