রায়হানের মৃত্যু: দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্তে মিলল চাঞ্চল্যকর তথ্য


Published: 2020-11-29 17:29:21 BdST, Updated: 2021-01-23 13:40:52 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত রায়হানের প্রথম ময়নাতদন্তের ভিসেরা রিপোর্টে তার শরীরে কোনো ধরনের বিষক্রিয়ার উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। অতিরিক্ত আঘাতের কারণেই মারা যান রায়হান। এছাড়া নির্যাতনের সময় রায়হানের দুইটি নখও উপড়ে ফেলা হয়েছে।

এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. শামসুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘২৬ নভেম্বর ওই রিপোর্টটি মামলার তদন্তকারি সংস্থা পিবিআই এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

ডা. শামসুল ইসলাম আরো বলেন, ‘প্রথম ময়নাতদন্ত রিপোর্টের সঙ্গে এ রিপোর্টের মিল আছে। ভোঁতা অস্ত্রের অতিরিক্ত আঘাতে শরীরে জখম হয়েছে এবং অতিরিক্ত জখমের কারণেই রায়হানের মৃত্যু হয়েছে।’

এর আগে, গত ১৫ অক্টোবর পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা প্রথম ময়নাতদন্ত রিপোর্টে উল্লেখ করা হয় রায়হানের শরীরে ১৪টি গুরুতরসহ ১১১টি আঘাতের চিহ্ন আছে।

সেদিনই রায়হানের মরদেহ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয় এবং ডা. শামসুল ইসলামকে প্রধান করে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১০ অক্টোবর রাতে নগরীর নেহারীপাড়ার মৃত. রফিকুল ইসলামের ছেলে রায়হান আহমদকে ধরে নেওয়া হয় বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে। ১১ অক্টোবরে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি করা হয় ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে মারা যান রায়হান।

পরে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ছিনতাইকালে গণপিটুনিতে আহত হন রায়হান। কিন্তু পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশের দাবিকে প্রত্যাখ্যান করা হয়। বলা হয়, ফাঁড়িতে নির্যাতনে মারা গেছেন রায়হান। রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নী বাদী হয়ে ১২ অক্টোবর নগরীর কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলাটি দু'দিন পর পিবিআইতে স্থানান্তর করা হয়।

ঘটনার পরদিন ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করে নেয় এসএমপি।

ঢাকা, ২৯ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।