একি করলেন ফজল মাহমুদ ‘পাসপোর্টকাণ্ড’ তদন্ত কমিটি


Published: 2019-06-08 00:08:26 BdST, Updated: 2019-09-17 04:57:15 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: একি করলেন একজন সিনিয়র পাইলট। এর আগেও কি তিনি এসব করেছিলেন? না এটাই প্রথম। এনিয়ে চলছে নানান হিসাব-নিকাশ। চলছে তদন্ত। শুরু হয়েছে গোয়েন্দা নজরদারি। চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইটেরই এই হাল? তাহলে এর আগে তিনি কি কি ঘটিয়েছেন। চরম দায়িত্বহীন ওই ক্যাপ্টেন এর নাম ফজল মাহমুদ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আনতে পাসপোর্ট ছাড়াই তিনি গত বুধবার রাতে ফিনল্যান্ডের উদ্দেশে রওয়ানা দিলে দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনা তদন্তে শুক্রবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাসিমা বেগমকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটিকে আগামী তিন কর্ম দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের (রাজনৈতিক-১) যুগ্ম সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলমকে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব (রাজনৈতিক-৪) মো. হেলাল মাহমুদ শরীফ ও বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মুস্তাকিম বিল্লাহ ফারুকী।

এবার তদন্ত কমিটি গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। শুক্রবার (৭ জুন) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করে আদেশ জারি করা হয়। চার সদস্যের এ তদন্ত কমিটির সভাপতি করা হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (নিরাপত্তা ও বহিরাগমন) মো. আজহারুল হককে।

দীর্ঘ ৩০ বছরের পেশাগত জীবনে পাসপোর্ট সঙ্গে না নেওয়ার মতো ভুল কখনও করেননি বাংলাদেশ বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ চৌধুরী। আজ শুক্রবার ক্যাম্পাসলাইভকে এমনটিই জানিয়েছেন তিনি।

ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ চৌধুরী বলেন, 'আমার ট্রিপ কনফার্ম হওয়ার পর সোমবার (৩ জুন) পাসপোর্ট নিয়ে গিয়েছিলাম ডলার এনডোর্স করাতে গুলশানের একটি ব্যাংকে। সাধারণত আমার ব্যক্তিগত ছোট একটি ব্যাগে আমি পাসপোর্টটা রাখি। ওখানেই ছিল। তো, কাজ শেষ হওয়ার পরে আমি শাহজালাল বিমানবন্দরে ফ্লাইট অপারেশন অফিসে গিয়ে ব্যাগটা মনে হয় ভুলে রেখে আসি। আমার কলিগরা সেটা দেখে লকারে রেখে দেয়।’

তিনি বলেন, 'বুধবার (৫ জুন) রাতের ফ্লাইটে ঢাকা থেকে দোহার ট্রিপ করি। আমাদের দেশে যেমন পাসপোর্ট হলো মেশিন রিডেবল। ওখানে কিন্তু মেশিনটাই পাসপোর্ট রিডেবল। তো আমি ওখানে যাওয়ার পর পাসপোর্ট দেখেনি। কিন্তু দুই আঙুলের ছাপ নেওয়া হয়েছে। পরে যখন দোহায় ল্যান্ড করি, তখন আমি আমার ওই ব্যাগ আর পাসপোর্ট খুঁজে পাই নাই। বিষয়টা নিয়ে পরে আমি দোহা এয়ারপোর্টে বিমানের স্টেশন ম্যানেজারের সঙ্গে যোগযোগ করি।'

জানা গেছে, এই ঘটনার পর ফজল মাহমুদকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বিমানের ভিভিআইপি ফ্লাইটটি দোহা থেকে ঢাকায় নিয়ে আসার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ক্যাপ্টেন আমিনুল ইসলামকে। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় বিমানের দোহাগামী নিয়মিত ফ্লাইটে (বিজি-০২৫) তিনি ঢাকা ত্যাগ করেছেন।

এর আগে ফিনল্যান্ড সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আনতে গত বুধবার (৫ জুন) রাতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের (বিজি-০২৫) নিয়মিত ফ্লাইটে ৩ জন ককপিট ক্রু ও ১২ জন কেবিন ক্রু ঢাকা ছেড়ে কাতারের উদ্দেশে রওনা দেন। ফ্লাইটটি ওইদিন স্থানীয় সময় রাত ১২টায় দোহা পৌছে।

এই ফ্লাইটে ছিলেন পাইলট ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ। অন্যদের কাছে পাসপোর্ট থাকলেও ফজল মাহমুদের কাছে তার পাসপোর্ট ছিল না। দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর তা ধরা পড়ে। পাসপোর্ট না থাকায় ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদকে বিমানবন্দর থেকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বের হতে দেয়নি।

কিন্তু বাকী ১৪জন বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে দোহা নগরীর ক্রাউন প্লাজা হোটেলে চলে যান। ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ বিমানবন্দরে থেকে যান। এ সময় ফজল মাহমুদ কাতার ইমিগ্রেশনকে জানান, তার পাসপোর্ট বিমানের ফ্লাইট অপারেশন রুমের লকারে রেখে এসেছেন। ঘটনাটি নিয়ে ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।

এদিকে পাসপোর্টটি দোহাতে পাঠানোর জন্য ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ ঢাকায় বিমান কর্তৃপক্ষকে ফোনে অনুরোধ জানান। পরে একটি ডুপ্লিকেট চাবি দিয়ে ফ্লাইট অপারেশনের অফিস খুলে ফজল মাহমুদের পাসপোর্ট উদ্ধার করা হয় এবং বৃহষ্পতিবার বিমান কর্তৃপক্ষ তার পাসপোর্টটি ঢাকা থেকে দোহাগামী কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে পাঠানোর চেস্টা করেন।

কিন্তু কাতার এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষ পররাস্ট্র মন্ত্রণালয়ের ফরোয়ার্ডিং ছাড়া কোন বিদেশি নাগরিকের পাসপোর্ট বহন করতে অস্বৃকৃতি জানান। এরপর বৃহষ্পতিবার রাতে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে ক্রুদের মাধ্যমে সেই পাসপোর্টটি দোহায় পাঠানো হয়। তারা বিমানবন্দরে ফজল মাহমুদের হাতে পাসপোর্টটি পৌছে দেন।

পাসপোর্টটি হাতে পেয়ে তিনি তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে প্রদর্শন করে ২৪ঘন্টা পর বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে শহরে বিমান নির্ধারিত ক্রাউন প্লাজা হোটেলে উঠেন। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২৮ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত টোকিও সফর করেন। সেখান থেকে তিনদিনের সফরে সৌদিআরব যান। ৩জুন সৌদিআরব থেকে ফিনল্যন্ড সফরে যান তিনি।

ফিনল্যন্ড থেকে রওনা হয়ে শুক্রবার দিবাগত রাতে দোহা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন তিনি। এরপর দোহা থেকে বিমানের ভিভিআইপি ফ্লাইট ড্রিমলাইনারে আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা আসবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঢাকা, ৭ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।