কৌশলে চলছে কোচিং বাণিজ্য, দেখার কেউ নেই


Published: 2019-03-19 14:14:10 BdST, Updated: 2019-04-24 10:36:40 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: সরকারের নির্দেশনা অমান্য করে নানা কৌশলে ময়মনসিংহে কোচিং বাণিজ্য চলছে খুবই চমৎকার ভাবেই। তবে ঠিক করে বলা যাচ্ছেনা কার আশীর্বাদ পেয়ে কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষকরা। সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে বিভিন্ন নামি-দামি প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষকরা এ বাণিজ্যের সাথে জড়িত।

ময়মনসিংহ নগরীর কোচিংপাড়া হিসেবে পরিচিত বাউন্ডারি রোড, নাহা রোড, নতুনবাজার, কালীবাড়ী, গোলকি বাড়ি এবং জিলা স্কুল রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে বহু কোচিং সেন্টার। এর সঙ্গে জড়িত সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষক।

জানা গেছে, বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানের শিক্ষক আনোয়ার কাদের, জিলা স্কুলের ভৌত বিজ্ঞানের শিক্ষক আশরাফুল হক ভূঁইয়া ও মোহাম্মদ মকবুল হোসেন, কাশিগঞ্জ কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক তোফায়েল আহমেদ সবুজ, আফরোজ খান মডেল স্কুলের বিজ্ঞানের শিক্ষক মাহবুব হোসেন, মুসলিম গার্লস স্কুলের গণিতের শিক্ষক বাবুল হোসেন ও জালাল উদ্দিন, প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাইস্কুলের গণিতের শিক্ষক রিপন কুমার দাস এবং আশরাফুজ্জামান, ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের বিজ্ঞানের প্রভাষক সুব্রতসহ ৫০-৬০ জন কোচিং বাণিজ্যে জড়িত রয়েছেন।

কোচিং বাণিজ্যের কথা অস্বীকার করে বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানের শিক্ষক আনোয়ার কাদের রতন বলেন, আমি সরকারের নিয়ম মেনেই বাসায় প্রাইভেট পড়াচ্ছি, কোনো কোচিং নয়। কোচিং করতে আসা দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী যুবরাজ হোসাইন বলেন, আনোয়ার কাদের স্যার বিজ্ঞান ভালো পড়ান। স্যার প্রতিদিন ৮-১০টি ব্যাচ পড়ান।

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী রিয়াজ হাসান জানান, শিক্ষকদের কোচিং বন্ধে সরকারি নির্দেশনার আগে আনোয়ার কাদের স্যার বাসা ভাড়া নিয়ে কোচিং করাতেন। এখন নিজের বাসায় কোচিং করান। সকাল-বিকাল বিদ্যাময়ী এবং জিলা স্কুলের শিক্ষার্থীদের বেশ কয়েকটি ব্যাচ পড়ান।

রতন’স ক্রিয়েটিভ সায়েন্স কোচিং সেন্টারের পরিচালক ও ফুলবাড়ীয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের জীববিজ্ঞানের লেকচারার হাসান মতিউর রহমান রতন জানান, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আগেই দুই মাসের টাকা অগ্রিম নেয়া হয়েছে। তাই দুই মাস শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোচিং বন্ধ করা যাবে না।

জিলা স্কুলের বিজ্ঞানের শিক্ষক আশরাফুল হক ভূঁইয়া বলেন, শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকের চাপে ৮-১০ জন করে প্রাইভেট পড়াচ্ছি। সামান্য বেতনে জীবন চলে না। সরকার চাইলে তাও বন্ধ করে দেবে। প্রিমিয়ার আইডিলায় স্কুলের গণিতের শিক্ষক এনামউল্লাহ দৈনিক ৮-১০টি ব্যাচ পড়াচ্ছেন। প্রতিটি ব্যাচে ২৫-৩০ জন করে শিক্ষার্থী রয়েছেন। তিনি বলেন, স্কুল থেকে যে বেতন পাই তা দিয়ে সংসার চলে না। তাই বাধ্য হয়ে কোচিং চালু রেখেছি।

ময়মনসিংহ মহিলা ডিগ্রি কলেজের প্রিন্সিপাল গোলাম সরওয়ার, জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোহসিনা খাতুন ও বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক দিল খুরশীদ জামান জানান, আমাদের প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষক আগে কোচিং করাতেন। কোচিং বন্ধে সরকারের নির্দেশনার পর থেকে জানামতে কোনো শিক্ষক কোচিং করান না। তবে কেউ যদি কোচিং করান তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে জেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম জানান, প্রতিষ্ঠানের কিছু কিছু শিক্ষক কোচিং এবং প্রাইভেট কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে শুনেছি। আমরা তাদের তালিকা তৈরি করছি। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা উপ-পরিচালক আবু নূর মোহাম্মদ আনিসুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, প্রতিষ্ঠানের বাইরে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ১০ জনের বেশি শিক্ষার্থী পড়ালে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ক্ষেত্রে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার হলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া সহজ হবে বলেও তিনি জানান।


ঢাকা, ১৯ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।