এমপিওভূক্তি বাতিলের দাবি জানিয়েছে পটুয়াখালীর আ'লীগ সমর্থকরা


Published: 2019-12-04 04:56:46 BdST, Updated: 2020-04-11 00:08:31 BdST

পটুয়াখালী লাইভঃ এমপিওভূক্তি নিয়ে সারা দেশে সমালোচনার ঝড় যেন থামছে না। নানান প্রশ্ন উঠেছে এই এমপিওভূক্তি নিয়ে। সমালোচনা, আলোচনা ও নানানমূখি ভূল তথ্য দিয়ে এমপিওভূক্তি করানোর অভিযোগ এখন ওপেন সিক্রেট। এমনই একটি ঘটনা পটুয়াখালী জেলা সদরের একটি মাদ্রাসা নিয়ে। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডসহ আওয়ামী ও বামপন্থিদের অভিযোগ স্বাধীনতার সময় বিরোধীতাকারী মৌলভী শামসুল হক (শামসু) প্রতিষ্ঠা করেন পটুয়াখালী ওয়ায়েজীয়া কামিল মাদ্রাসা। যাহার ইআইআইএন নম্বার ১০২৫৪১।

সংশ্লিষ্টরা আরও অভিযোগ করেছেন মাদ্রাসাটির অধ্যক্ষ বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং ওলামাদলের আহ্বায়ক ও সাবেক মহাসচিব শাহ মো. নেছারুল হক। পটুয়াখালী সদরের সুবোধচন্দ্র লাল অভিযোগ করে বলেছেন, প্রতিষ্ঠাতার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তিনি স্বাধীনতার সময় সরাসরি মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছেন। আর সরকারি খাসজমি দখল করে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মাদ্রাসা কমিটির একজন প্রভাবশালী সদস্য বলেছেন এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এসব অভিযোগের কোনই প্রমাণপত্র নেই অভিযোগকারীদের কাছে। তারা ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে নানান কথা বলে একটি দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি করার চেষ্টা করছেন। আমরা এমনটি চাই না। আমরা দেশপ্রেমিক ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ছিলাম, আছি ও থাকবো।

জাতীয়তাবাদী ওলামাদল

 

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, কামিল মাদ্রাসা এমপিও ভুক্তির জন্য পৌর এলাকার প্রতিষ্ঠানের নামে ১ একর জমি রেকর্ড থাকা প্রয়োজন। দু:খজনক হলেও সত্য প্রতিষ্ঠানের নামে কোন রেকর্ডি জমি নেই। প্রতিষ্ঠানটি সরকারি খাসজমিতে প্রতিষ্ঠিত। খাস জমিতে প্রতিষ্ঠিত বা এক সনা বন্দবস্তো পাওয়া জমিতে প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাটি এমপিওভূক্তি হওয়া সম্পূর্ণ বেআইনী। অধ্যক্ষ দলীয় প্রভাব খাটিয়ে জামায়াত, বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর এক্ষেত্রে মাদ্রাসাটি ফাজিল ও কামিল স্তরের পাঠ দানের অনুমতি পান। তৎকালীন সরকারের ক্ষমতাবলে মাদ্রাসাটির ফাজিল ও কামিলের একাডেমিক স্বীকৃতি লাভ করেন।

মহান স্বাধীনতার স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কন্যা ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে এলাকার বিভিন্ন স্তরের আওয়ামীলীগ সমর্থকরা আবেদন জানিয়েছেন, যাতে ২৩.১০.২০১৯ তারিখে প্রকাশিত নতুন এমপিওভূক্তির তালিকা থেকে পটুয়াখালী ওয়ায়েজীয়া কামিল মাদ্রাসাটির নাম বাদ দেয়া হয়। এ নিয়ে একাবাসীর মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।
পক্ষে বিপক্ষে রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন মত।

ঢাকা, ০৩ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।