'ইবিতে সেশন জট কমেছে'


Published: 2017-11-02 21:08:27 BdST, Updated: 2017-11-24 06:12:18 BdST

 

ইবি লাইভ: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ভিসি প্রফেসর ড. মো. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকদের আন্তরিকতায় সেশন জট আগের চেয়ে অনেক কমেছে।

তিনি বলেন, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ জেলার মধ্যবর্তী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ সমাবর্তন ২০১৮ উদযাপন উপলক্ষে আজ বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিক ও সম্পাদকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

বিশ‌্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক, ইবিতে কর্মরত সাংবাদিক এবং জেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

ভিসি বলেন,পাঠদানে বিদেশী শিক্ষকদের আনা ও শিক্ষার্থীদের ভর্তির ব্যবস্থা করাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমানে রেনেসাঁ চলছে। এ রেনেসাঁ রক্ষার্থে মিডিয়াকর্মীদের কোন বিকল্প নেই।

সমাবর্তনের প্রচার উপ-কমিটির কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. মেহের আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মো. শাহিনুর রহমান, অতিথি হিসেবে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ প্রমুখ বক্তৃতা দেন।

ভিসি আসকারী আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীত করতে ইবি পরিবার দুর্বার গতিতে কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়া ক্যাম্পাসে সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গী বিরোধী ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে প্রতিনিয়ত।
তিনি আরও বলেন, উন্নয়নকল্পে যে কাজ করা হচ্ছে সেখানেও শতভাগ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করেছি।

যা ইবিকে সবার আস্থা ও ভরসার স্থানে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। আর এ আস্থার মূল্যায়ন হলো বিশ্ববিদ্যালয়েরর ৪র্থ সমাবর্তন ২০১৮।

ইবির ৪র্থ সমাবর্তন আগামী ২০১৮ সালের ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে।
ইতোমধ্যে সমাবর্তনকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করেছে।

যা গত ২২ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে। রেজিস্ট্রেশনের এ প্রক্রিয়া চলবে আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত।


ঢাকা, ০২ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

 

 

 

 

 

 

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।