টেস্টে ফেল, শিক্ষককের বকায় প্রিন্সিপালের কক্ষেই ছাত্রীর আত্মহত্যা!


Published: 2019-12-11 11:59:36 BdST, Updated: 2020-01-19 13:40:41 BdST

কুষ্টিয়া লাইভ : নূপুর খাতুন। এইচএসসির টেস্টে ফেল করায় শিক্ষকদের বকা খেয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন তিনি। খোদ প্রিন্সিপালের কক্ষে আত্মহত্যা করেছে ওই ছাত্রী। এর আগে ওই ছাত্রী একটি চিরকুট লিখে গিয়েছেন। ওই ছাত্রী উপজেলার দোয়ারকাদাস আগরওয়াল মহিলা কলেজের ছাত্রী ছিলেন তিনি। মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) দুপুরে কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। নূপুর স্থানীয় হরিণারায়রপুরের বাবুল আহমেদের মেয়ে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে নুপুরকে সঙ্গে নিয়ে তার মা কলেজে যান। এ সময় শিক্ষকরা জানান, চারটি বিষয়ে নূপুর ফেল করায় তার মা তাকে বকা দেয়। সে সময় নুপুর চুপচাপ দাঁড়িয়ে ছিলো। কিছুক্ষণ পরে হঠাৎ সে মেঝেতে পড়ে যায়। তখন তার কাছে থাকা কাঁচের বোতল ছিটকে পড়ে। বোতলে বিষাক্ত কিছু ছিলো বলে ধারণা করা হচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে কলেজের শিক্ষকরা উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায় তাকে। চিকিৎসক তার বিষপানের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নূপুরের মা লাভলী খাতুন বলেন, বাড়ি থেকে স্বাভাবিকভাবে মেয়ে কলেজে যায়। সেখানে সে আর সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছিল না। কথা বলতে বলতেই মাটিতে পড়ে যায়। কলেজে যাওয়ার আগেই বিষপান করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কলেজের প্রিন্সিপাল আসাদুজ্জামান বলেন, কয়েক দিন আগে এইচএসসিতে অংশগ্রহণের জন্য বাছাই পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল দেয়া হয়। পরীক্ষায় নুপুর চারটি বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। সে কলেজেও অনিয়মিত ছিলো।

নূপুর চিরকুটে লিখে যান, ‘আব্বু-আম্মু আমায় ক্ষমা করে দিও। আমি কখনও চাই না আমার জন্য তোমরা কষ্ট পাও। আমি ভালোভাবে পড়াশোনা করতে চেয়েছিলাম, অনেক স্বপ্ন ছিল আমার। আমি জানি আমাকে নিয়েও অনেক স্বপ্ন ছিল তোমাদের। আমি যে তোমাদের একমাত্র মেয়ে। আমি পৃথিবী থেকে চলে গেলাম। আমায় ক্ষমা করো। আর আমার জন্য একটুও কষ্ট পাবে না। আমি চাই আমার মরাটা (লাশ) যেন স্বাভাবিকভাবে মাটি দেয়া হয়। আত্মহত্যা করলে পুলিশ আসে, তারা যা সব করে (ময়নাতদন্ত) আমার যেন না করা হয়। এভাবে মরে গেলে তো কোথায় যেন পাঠায় লাশ কাটার জন্য। ওটাতে আমার খুব ভয় লাগে। আমাকে স্বাভাবিকভাবেই মাটি দিও। পুলিশরা যেন অন্য সবার মতো আমার লাশকে কষ্ট না দেয়, আমায় যেন স্পর্শ না করে। আমায় ভালোভাবে মাটি দিও। ও আম্মু আমার যে মরে যাওয়ার পর অনেক ভয় লাগবে, আমাকে তো কবরে জায়গা দেবে না, আমার যে খুব কষ্ট হবে। ক্ষমা করে দিও। কলেজের স্যাররা চাইলে হয়তো আমার ভবিষ্যৎ নষ্ট হতো না।’

নূপুরের বাবা বাবুল আহমেদ জানান, ‘মেয়েটা আমার অভিমানী। নির্বাচনী পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার কারণে হয়তো বিষপান করেছে।’

ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।