ইবি ভর্তি পরীক্ষা, তিন ছাত্র সংগঠনের মিছিল, ছাত্রদলে বাঁধা


Published: 2019-11-06 21:18:27 BdST, Updated: 2019-12-14 20:05:39 BdST

ইবি লাইভঃ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আগত ভর্তিচ্ছুদের স্বাগত জানিয়ে মিছিল করেছে শাখা ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন এবং ছাত্র মৈত্রী।

বুধবার বিকেল ৫টায় প্রধান ফটক থেকে তিন ছাত্র সংগঠন পৃথকভাবে তাদের মিছিল শুরু করে। এদিকে ভর্তিচ্ছুদের মাঝে কলম ও ফুল বিতরণে বাঁধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পুলিশের বিরুদ্ধে।

বুধবার দুপুর ১টার দিকে লালন শাহ হলের পকেট গেটে তারা ভর্তিচ্ছুদের মাঝে কলম ও ফুল বিতরণ করতে গেলে এ বাঁধার শিকার হয়েছে বলে জানা গেছে।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষ স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শেষ হয়েছে। এবারের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয় গত ৪ নভেম্বর। এবছর ২হাজার ৩০৫ আসনের বিপরীতে প্রায় ৬২ হাজার পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে ভিসি প্রফেসর ড. হারুন উর রশিদ আসকারী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক সহায়তায় সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু পরিবেশে এবারের ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। কোন ধরনের ভর্তি জালিয়াতির খবর আমরা পাইনি। এবছর প্রশ্নপত্রে কোন ত্রুটি পাওয়া যায়নি। এছাড়াও এবারের পরীক্ষায় সারাদেশ থেকে সর্বোচ্চ সংখ্যক ভর্তিচ্ছু উপস্থিত ছিল।’

ভর্তি পরীক্ষার শেষ দিনে দিনের শেষ শিফটের পরীক্ষা শেষ হয় বিকেল ৫টায়। এসময় প্রধান ফটক থেকে ভর্তিচ্ছুদের স্বাগত জানিয়ে মিছিল বের করে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের নেতারা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, সাবেক আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক রিজভী আহমেদ পাপন, সাবেক ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন, সাবেক সহ-সম্পাদক ফয়সাল সিদ্দীকি আরাফাত প্রমূখ।

একই সময় শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জি কে সাদিকের নেতৃত্বে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানিয়ে মিছিল করে ছাত্র ইউনিয়ন। এদিকে একই সময় শাখা ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি আব্দুর রউফ ও সাধারণ সম্পাদক এ বি পাপ্পুর নেতৃত্বেও একটি মিছিল বের হয়।

এদিকে দুপুর ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা লালন শাহ হলের পকেট গেটে ভর্তিচ্ছুদের মাঝে কলম ও ফুল বিতরণ করে। খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ এবং বিশ্ববিদ্যালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আরিফ ঘটনাস্থলে যান।

এসময় তারা ছাত্রদলের ফুল কেড়ে নিয়ে ক্যাম্পাস থেকে তাদের বের করে দেয়। এসময় ছাত্রদলের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ওমর ফারুক, সাধারন সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, দফতর সম্পাদক শাহেদ আহম্মেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রদলের দফতর সম্পাদক শাহেদ আহম্মেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা ভর্তিচ্ছুদের ফুল ও কলম বিতরণের সময় প্রক্টর স্যার এবং ওসি এসে ফুল কেড়ে নেয়।

এসময় তারা দ্রুত ক্যাম্পাস ত্যাগ না করলে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। এমনকি গ্রেফতারেরও হুমকি দেয় ওসি। ক্যাম্পাসে অন্যান্য সংগঠন তাদের কার্যক্রম চালালেও আমাদের বের করে দেওয়ায় নিন্দা জানাই। একই সাথে ক্যাম্পাসে সকল ছাত্র সংগঠনের সহাবস্থান নিশ্চিতের দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সকলের সহযোগিতায় সুষ্ঠুভাবে ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করায় সকলকে ধন্যবাদ। আর ছাত্রদল লালন শাহ হলের পকেট গেটে ফুল বিতরণের সময় আমি গিয়ে তাদের গায়ে হাত বুলিয়ে বুঝিয়ে চলে যেতে বলেছি। যাতে ক্যাম্পাসে কোন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা সৃষ্টি না হয়।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আরিফ সাংবাদিকদের বলেন, ‘পরীক্ষা চলাকালীন ছাত্রদলের কর্মীরা লালন শাহ হলের পকেট গেটে আসে। পরীক্ষার সময় ক্যাম্পাসে কোন ছাত্র সংগঠনের কার্যক্রমই চলতে দেইনি আমরা। তাই তাদের সেখানে কার্যক্রম চালাতে দেয়নি।’

ঢাকা, ০৬ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।