নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে জড়িতদের শাস্তি চায় ইবি ছাত্রলীগ


Published: 2019-06-29 19:06:18 BdST, Updated: 2019-07-22 04:02:26 BdST

ইবি লাইভ: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যের অডিও ফাঁস হয়েছে। এর সাথে জড়িতদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কার এবং এর মূলহোতাদেরও উপযুক্ত শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। শনিবার এসব দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে তারা।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার বেলা ১২টায় দলীয় টেন্ট থেকে মিছিলটি শুরু হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনর রহমান শাহিন ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিম। এসময় মিছিলে বিভিন্ন প্রতিবাদমূলক স্লোগান দিতে থাকে নেতা-কর্মীরা।

দলীয় টেন্ট থেকে শুরু হওয়া মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবন ও ডায়না চত্বর হয়ে অনুষদ ভবনে গিয়ে শেষ হয়। পরে ছাত্রলীগের একটি প্রতিনিধি দল ভিসি প্রফেসর ড. হারুন উর রশিদ আসকারীর সঙ্গে দেখা করেন। এসময় তারা নিয়োগ বাণিজ্য ও দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বরখাস্ত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান এবং অডিও রেকর্ডে যেমস্ত ব্যক্তিদের নাম এসেছে তাদেরও সুষ্টু তদন্ত সাপেক্ষে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে কথা বললে তারা জানান, নিয়োগ বাণিজ্যের মূলহোতাদের কেন আইনের আওতায় আনা হচ্ছে না? অডিও ফাঁসের মাধ্যমে বোঝাই যাচ্ছে কে মূলহোতা। তারা বলেন, আমরা ঘটনার সাথে জড়িত সবার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বরখাস্ত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৮ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যের একটি অডিও ফাঁস হয়। এতে নিয়োগের ব্যাপারে একজন প্রার্থীর সঙ্গে বিভাগের শিক্ষক অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর রুহুল আমিন ও ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর আবদুর রহিমের কথোপকথন শোনা যায়।

এ ঘটনায় ওইদিন সকাল ১১টার দিকে ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডটি স্থগিত করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। একইসাথে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার প্রাথমিক প্রমান পাওয়ায় বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর রুহুল আমিন ও ইইই বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর আবদুর রহিমকে বিশ্ববিদ্যালয় হতে সাময়িক বরখাস্ত করেন প্রশাসন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৯ অক্টোবর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম স্থগিত করে কেন্দ্রীয় কমিটি।

ঢাকা, ২৯ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।