ইবির বাস থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বেগম খালেদা জিয়ার নাম মুছে দিল


Published: 2018-10-02 00:15:02 BdST, Updated: 2018-10-20 15:13:09 BdST

ইবি লাইভ: এবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাস থেকে খালেদা জিয়ার নাম মুছে দিয়েছে প্রশাসন। যদিও এই কাজটি আগে করতো ছাত্রলীগের অতি উৎসাহী নেতা-কর্মীরা। তবে ছাত্রলীগের দীর্ঘদিনের দাবির মুখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কিন্তু কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে এমনটি সচরাচর দেখা যায়নি। এবারই প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই কাজটি করেছে। এবিষয়টি ভাল ভাবে নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। তাদের ভাষ্য এটি তো খালেদা জিয়ার আমলে উপহার দেয়া। এই নামটি রাখলে কি এমন অসুবিধা হতো।

এ ব্যাপারে জিয়া পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক এম ইয়াকুব আলী ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, এ ঘটনায় আমরা মর্মাহত। আমরা মার্জিত ভাষায় নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে খালেদা জিয়ার নাম সংযোজন করতে বলেছি। প্রশাসন নাম সংযোজন করলে এটা তাদের জন্য সাহসী পদক্ষেপ হবে।


বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানাগেছে ১৯৯৫ সালে খালেদার উপহার দেয়া একটি বাস থেকে তার নাম মুছে দেয়া হয়। একই সঙ্গে ১৯৯২ সালে দেয়া অন্য আরও একটি বাস থেকে তার নাম মুছে ফেলার প্রক্রিয়া চলছে বলেও তথ্য মিলেছে।

এদিকে প্রশাসনের এ সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিম। তবে এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় জিয়া পরিষদের নেতৃবৃন্দ ভিসির কাছে লিখিত প্রতিবাদ জানিয়েছেন। কিন্তু এর কোনো প্রতিকার করেনি প্রশাসন। কোন কিছু জানানোও হয়নি।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তাদের জন্য ১৯৯২ ও ১৯৯৫ সালে দুটি বড় বাস উপহার দেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। ওই সময় তার সম্মানে গাড়িতে ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপহার’ লিখে দেয়া হয়।

সম্প্রতি ছাত্রলীগের দাবির প্রেক্ষিতে ১৯৯৫ সালে দেয়া বাস (কুষ্টিয়া, চ-০৮-০০০৩) থেকে খালেদা জিয়ার নাম মুছে দিয়ে শুধু ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়’ লেখা হয়। একই সঙ্গে ১৯৯২ সালে দেয়া অন্য বাসটির থেকে (কুষ্টিয়া, চ-০৮-০০০২) নাম মুছে দেবার উদ্দেশ্যে ঝিনাইদহের একটি গ্যারেজে পাঠানো হয়েছে।

তবে এর তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় জিয়া পরিষদ ও শাখা ছাত্রদল। সোমবার জিয়া পরিষদের সভাপতি-সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তারা ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এর আগে জিয়া পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক এম এয়াকুব আলী ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ইদ্রিস আলী ভিসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে পুনরায় খালেদা জিয়ার নাম লেখার দাবি জানিয়েছেন।

পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, অনেক গাড়ি নতুন করে সংস্কার করা হচ্ছে। এতে খালেদার নাম মুছে গেছে। দেশের অনেক স্থান থেকে বিভিন্ন নাম মুছে দেয়া হয়েছে। আমাদের সার্বিক পরিবেশ পরিস্থিতির ওপর কথা বলতে হবে। অযৌক্তিক কিছু বলার সুযোগ নেই। আমরা যা করেছি এটি হলো সমপযোগী সিদ্ধান্ত।



ঢাকা, ০১ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।