নারায়নগঞ্জের নবীন ভোটারদের মনের কথা


Published: 2018-12-27 21:24:26 BdST, Updated: 2019-12-13 14:22:32 BdST

সারোয়ার হোসাইন: আমরা নবীন ভোটার। যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দিতে চাই। জীবনের প্রথম ভোটতো। ভাবছি নানান কথা। কিন্তু ঝামেলাটা হলো ভোটের মাঠের হিসাবে গড়মিল দেখা যায়।

কেউ বলছেন, নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই কেন্দ্রে যাওয়া না যাওয়ার হিসেব মিলাবো। মা-বাবা বলছেন অবস্থা ভাল হলে কেন্দ্রে যাবে। অন্যথায় ভোট দেয়ার দরকার নেই। আবার অনেকেই বলছেন আমরা তরুণ গণতন্ত্রের স্বার্থে যে কোনো মূল্যে ভোট কেন্দ্রে যেতে চাই। আমরা শান্তিকামী তরুণ। আমরা কারো প্ররোচনায় অথবা কারো কথায় বিশৃঙ্খলায় জড়াবো না। এভাবেই নারায়নগঞ্জের নবীন ভোটার ও তারুণ্যের ভোট ভাবনা চলছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মনোভাব নিয়েই এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

শেষ পর্যায়ের হিসাব-নিকাশ মিলিয়ে নিচ্ছেন ভোটাররাও। বিশেষ করে নির্বাচনকে ঘিরে নবীন ভোটারদের আবেগ-উত্তেজনা অন্যদের চেয়ে একটু বেশিই বটে! অনেকেই জীবনে প্রথম ভোট দেবেন এবার। সঙ্গত কারণেই তাদের চাওয়া-পাওয়া প্রবীণদের চেয়ে ভিন্ন। ক্যাম্পাসলাইভের সাথে আলাপচারিতায় উঠে এসেছে নতুন প্রজন্মের নির্বাচনী ভাবনা।

নারায়নগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষার্থী আরিফুল ইসলাম আরিফ ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, ভোটার লিস্টের তালিকায় আমার নাম অন্তর্ভুক্তি হওয়ার পর এই প্রথম আমি ভোট দিব। আমার ভাবতেই অবাক লাগছে যে, আমার ভোট প্রদানের মাধ্যমেই দেশে নতুন প্রধানমন্ত্রী আসবে। এ কথাটা ভাবতেই আমার অনেক ভাল লাগে।

এমবিএ পড়ুয়া ওই শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে আরও বলেন, বাংলাদেশে বেকারের সংখ্যা দিন দিন যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, এতে করে মনে হচ্ছে পড়াশুনা শেষ করে বের হওয়ার পর আমাদের কি অবস্থা হবে!

বর্তমান সময়ে বেকার সমস্যা একটি মারাত্বক ব্যাধির আকারে রুপ নিয়েছে। এর থেকে নিস্তার পেতে চায় দেশের সকল শিক্ষার্থী ভাই-বোনেরা। এ সমস্যা নিরসনে যে সরকার কাজ করবে নবীন ভোটারের ভোট তাঁরই হবে।

তোলারাম কলেজের অপর এক শিক্ষার্থী জিনাত মুক্তা ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমি একজন নবীন ভোটার। এবারই প্রথম ভোট দিব। ভোটার হওয়ার পর এই প্রথমবারের মত জাতীয় নির্বাচন পেয়েছি। এতে অনেক আনন্দ লাগছে আবার কষ্টও লাগছে। কষ্ট লাগার কারণ হলো দেশের সার্বিক পরিস্থিতি দেখে। এমতাবস্থায় ভোট কেন্দ্রে যাওয়াটাই অসম্ভব হয়ে পড়বে। নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত আমি!

দ্বিতীয় বর্ষে পড়ুয়া ওই শিক্ষার্থী জিনাত আরও বলেন, ছোটবেলা থেকে আজ অবধি বেশ কয়েকটি ইউপি নির্বাচন এবং দু-তিনটি জাতীয় নির্বাচন দেখেছি। আগের তুলনায় এখন একটু সমস্যাটা বেশিই মনে হচ্ছে। এই যে, মারামারি, কাটাকাটি, সন্ত্রাসী, নর হত্যা, বোমা-হামলা ও ইভটিজিং এগুলো ব্যাপক হারে বেড়েছে।

শেষে আমি একটা কথাই বলবো আমরা যারা নবীন ভোটার তারা ভালভাবে চিন্তা করেই ভোট প্রদান করবো। আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আমার একটাই অনুরোধ আপনারা যেনো আপনাদের দায়িত্বটুকু সঠিকভাবে এবং গুরুত্ব সহকারে পালন করেন।

এদিকে কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী আরএ তীব্রর কাছে নির্বাচন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমি তো এখনও ভোটার হই নাই। কবে ভোটার হবো আর কবেই বা ভোট দিবো। এটি আমার মাথায় সব সময় ঘুরপাক খায়। আশা রাখি খুব দ্রুতই ভোটার লিস্টের তালিকায় আমার নাম চলে আসবে। ব্যাক্তিগতভাবে নির্বাচন নিয়ে আমার অনেক কৌতুহল। আমার শত কথার শেষ কথা হলো একটি সুষ্ঠু নির্বাচন যেনো আমরা আগামীর ভোটাররা দেখতে পাই।

অন্যদিকে নারায়নগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষার্থী অধরা ইসলাম নির্বাচনে তরুণ ভোটারদের চাওয়া পাওয়া সম্পর্কে ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, তরুণরা সব কিছু সুন্দর এবং স্বাভাবিক আশা করে। অস্বাভাবিক কিছুই মেনে নিতে চায় না তারা। পরিবর্তন চায় দেশ ও জাতির। বাংলাদেশ নামক দেশটির নাম ছড়িয়ে যাক পুরো বিশ্বের বুকে। দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রেখে একটি সুন্দর ও সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার চাই আমরা ছাত্র সমাজ।

রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ওই শিক্ষার্থী আরও বলেন, আমি নিজেও নবীন ভোটার। আমারও অনেক চাওয়া পাওয়া আছে। তবে এই মুহুর্তে আমার একটাই চাওয়া একটি সুষ্ঠু নির্বাচন।

নির্বাচন কেমন হওয়া উচিৎ এমন প্রশ্নের উত্তরে স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী লিমন ও আলামিন ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, যদিও আমরা ভোটার না তবুও আমাদের চাওয়া পাওয়া হচ্ছে আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচন বিশৃঙ্খলামুক্ত একটি সুষ্ঠু নির্বাচন। যা দেখে আমরা কিছু শিখতে পারি।

নারায়নগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী মো. রাসেল ক্যাম্পাসলাইভের সাথে আলাপচারিতায় বলেন, আমি রাজনীতি নিয়ে তেমনভাবে কখনও মাকামাকি করি না। এমনকি রাজনৈতিক কোনো দলের সঙ্গে জড়িত না। আমি নতুন ভোটার হয়েছি। সামনে নির্বাচন। অনেক স্বপ্ন দেখছি। ভোট কেন্দ্রে যাবো, সবার মতো করে আমিও ভোট দিবো। আমার মধ্যে অনেক আনন্দ কাজ করছে। আসন্ন নির্বাচনটি যেনো সুন্দর একটা পরিবেশে হয় এটি আমার চাওয়া।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলোর বড় সমস্যা হলো দ্বন্দ ও বৈষম্য। এটি একটি মারাত্বক সমস্যা। এই সমস্যা দূর করতে পারলে আমাদের দেশ হবে সোনার বাংলাদেশ।

 

 

 

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।