নতুন ভোটারের আকুতি: ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবো তো!


Published: 2018-12-25 19:16:09 BdST, Updated: 2019-03-25 00:24:27 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: নির্বাচন মানেই উৎসব। এমনটি যুগ যুগ ধরে বাংলাদেশের জনগণের মাঝে বিরাজ করছে। এই উৎসবে আবাল বৃদ্ধবনিতা অর্থাৎ সকলের মাঝেই উৎসব উৎসব দেখা যেত। কিন্তু এমনটি এখন আর দেখা যায় না।

কে হবেন দেশের কান্ডারী, কারা নেতৃত্ব দিবেন দেশের এই ভাবনাই মূলত নির্বাচনের মূল লক্ষ্য। এ বিষয়ে রাজধানীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেলো ভিন্ন সুর ভিন্ন কথা। তারা বলছেন আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেই আমেজ আর পরিবেশ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

মানুষের মাঝে সেই তৎপরতা ও উৎসব মনোভাবও নেই। তরুণদের এসব কথা নিয়েই আজকের এ আয়োজন। নির্বাচনের ব্যাপারে তরুণরা তাদের মনোভাব ব্যক্ত করেছেন আমাদের লাইভ প্রতিবেদকের কাছে। প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন সারোয়ার হোসাইন

আসন্ন জাতীয় একাদশ নির্বাচনকে সামনে রেখে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে নানান পদক্ষেপ নিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। সারা দেশে মোতায়ন করা হয়েছে সেনাবাহিনীসহ অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য। জানা যাক আসছে নির্বাচনকে ঘিরে তরুণ শিক্ষার্থীদের কি চাওয়া পাওয়া। তারা কি ভাবছেন আগামীর নেতৃত্ব নিয়ে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের ছাত্র অলি আহমেদ ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, বর্তমান সময়ে নির্বাচনের উৎসাহ-উদ্দীপনা কেবল আওয়ামীলীগের মধ্যেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে! বিএনপির মধ্যে আতংক ও গ্রেফতারের ভয়। নিজ ঘরেও বিএনপির কোনো নেতা কর্মী শান্তিতে থাকতে পারছে না। প্রচার-প্রচারণার কোনো উপায় নেই। প্রচারে নামলেই গ্রেফতার!

ইংরেজী বিভাগের ওই শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে আরও বলেন, এবারের ইলেকশন সামনে রেখে সামাজিক তথা মানুষের ব্যক্তিগত সম্পর্কে একটা বিশাল অবনতি হয়েছে! সমাজের মধ্যে মানুষের দীর্ঘদিনের সুসম্পর্ক রাজনৈতিক কারনে নষ্ট হয়েছে। বলা যায় এবারের ইলেকশনে সামাজিক অবক্ষয় অতিমাত্রায় লক্ষ্য করা যাবে। এ ইলেকশন বাংলাদেশকে একটা ভয়ংকর পরিস্থিতির দিকেই ঠেলে দিচ্ছে বলে আমি মনে করি।

অন্যদিকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের ছাত্র রাফসান জানী খান ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আমি একজন প্রথম ভোটার বা তরুণ ভোটার হিসাবে আমার একধরনের অন্যরকম অনুভূতি কাজ করছে। যেটা একেবারেই প্রথম, যে আনন্দ নতুন কোন কিছু সম্পর্কে জানা এবং নিজের অভিজ্ঞতার খাতা সমৃদ্ধ করা।

তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে আরও বলেন, আমার ভাবতেই অবাক লাগছে যে, আমি ভোট দিব। আমার মতো অনেকে ভোট দিবে যাদের ভোটের মাধ্যমে আসবে আমাদের সরকার জনগনের সরকার। তবে নির্বাচন বলতে আমাদের জানামতে এবং বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সহিংসতায় ভরপুর। তবে এবার একটু আলাদা, সহিংসতার স্থানটা একটু হলেও কম।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী লিমা আক্তার ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, সত্যি বলতে কি আমার নির্বাচন নিয়ে তেমন কিছু বলার আগ্রহ নেই। এমনিতেই দেশের ‍অবস্থা ভাল না। তুলনামূলক হারে দেশের পরিবেশ পরিস্থিতি খুবি বাজেভাবে যাচ্ছে। আমরা ছাত্র সমাজ আশা করি আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও বিশৃঙ্খলামুক্ত হোক। একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে ফিরে আসুক এই কামনা করি।

সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে পড়ুয়া ওই শিক্ষার্থী আরও জানান, আমরা আশা করছি সেনাবাহিনী নির্বাচনী মাঠে নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করে যাবেন। আর তারা যেনো সন্ত্রাসী ও ভোট কেন্দ্রের বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নেন। এটাই আমাদের আশা প্রত্যাশা।

আশা ইউনিভার্সিটির ছাত্র মাহফুজুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, আমরা চাই একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও স্বাভাবিক নির্বাচন। যে নির্বাচনের হাত ধরে দেশে ফিরে আসবে সঠিক গণতন্ত্র।

আইন বিষয়ে দ্বিতীয় বর্ষের ওই শিক্ষার্থী আরও জানান, আমরা শান্তি শৃঙ্খলায় বিশ্বাসী। দেশের মানুষ নিজের ভোট নিজেই দিতে চান। আর সেজন্যই সুষ্ঠু পরিবেশ চাই। আমি নতুন ভোটার। আমার ইচ্ছে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় যারা কাজ করবেন তাদেরকেই ভোট দেব। কিন্তু এলাকায় ভিন্ন চিত্র দেখতে পাচ্ছি। কেবল একটি দলেই পোস্টার আর প্রচারণা চোখে পড়ে। আর অন্য কোনো দলের কাউকে চোখে পড়ে না। তাই আমরা নানান শঙ্কা ও সংশয়ে আছি। জানি না ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবো কিনা?

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী নাইলার লিমু ক্যাম্পাসলাইভকে আসন্ন নির্বাচন সম্পর্কে বলেন, এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচন সকলের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে হতে যাচ্ছে তা যেনো কোনো ভাবেই বানচাল না হয়। আমাদের চাওয়া পাওয়া হচ্ছে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন। এ নির্বাচনের মাধ্যমে জাতি অনেক কিছু ফিরে পাবে বলে আমরা মনে করি।

আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজির শিক্ষার্থী মো. রুম্মন ক্যাম্পাসলাইবকে বলেন, এবারের নির্বাচনের পরিবেশ সাধারণ নির্বাচনের মতো নেই। এখন পর্যন্ত দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপির কোনাে প্রচার প্রচরণা আমি ব্যাক্তিগতভাবে দেখিনি। অপরপক্ষে সবখানেই নৌকার নির্বাচনী প্রচারণা দেখা যাচ্ছে। তাহলে
এ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে হবে কিভাবে?

ইসলামী ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী হায়দার আলী মৃধার সঙ্গে আসন্ন নির্বাচনের প্রসঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, নির্বাচন বলতেই উৎসবের কথা চলে আসে। ঈদের আনন্দের মতই নির্বাচনের আনন্দ। কিন্তু আমার প্রশ্ন আসলেই কি তাই? সমস্যা কি পুনরায় জানতে চাইলে তিনি অপ্রস্তুত ভাবেই বললেন আপনারা দেখছেন না? কি হচ্ছে নির্বাচনী মাঠে। তিনি পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, পুলিশ ও প্রশাসন কি নিরপেক্ষ? তারা কি সকল দলের জন্য সমান ভাবেই কাজ করছেন?

 

 

ঢাকা, ২৫ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।