''তরুণদের প্রাধান্য: সফটওয়্যার মার্কেটিং এজেন্সি গড়ে তুলব''


Published: 2018-03-29 17:03:50 BdST, Updated: 2019-06-19 11:29:54 BdST

তারেক মাহমুদ: মো. সহিবুর রহমান খান রানা। একটি নাম। একটি বিপ্লবী কন্ঠস্বর। একটি প্রতিভা। হালে আলোচিত। সাদামাটা মানুষ বটে। চলেন নিরবে। থাকতে চান বিতর্ক ও ঝামেলা মুক্ত। নিরবে আর নিবৃতে কাজ করতে চান। কর্ম পাগল মানুষ। ভালবাসেন দেশ ও দেশের উন্নয়ন। যুব সমাজকে নিয়ে তার যত ভাবনা। আরও ভালবাসেন তথ্য ও প্রযুক্তির উন্নয়ন। দেশের চালিকা শক্তির হাতকে সব সময় দেখতে চান উন্নত ও মজবুত হিসেবে।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) নির্বাহী কমিটির ২০১৮-২০ মেয়াদের নির্বাচন ৩১ মার্চ। এই নির্বাচনের বহুল আলোচিত প্যানেল ‘টিম দুর্জয়’ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সল্যুশন নাইন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সহিবুর রহমান খান রানা। বেসিস নির্বাচন নিয়ে তিনি ক্যাম্পাসলাইভের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন। জানিয়েছেন তিনি নির্বাচিত হলে তার স্বপ্নের কথা। কি করতে চান, তার কি চাওয়া পাওয়া সবই বলেছেন তিনি।

বিদেশিদের সঙ্গে সল্যুশন নাইন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সহিবুর রহমান খান রানা

তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেছেন, তার ইচ্ছার কথা। নির্ব‍াচিত হলে সফটওয়্যার মার্কেটিং এজেন্সি গড়ে তোলবেন। একই সঙ্গে তিনি অ্যাকসেস টু ফিন্যান্স ব্যবস্থা আরো সহজ করবেন বলে জানিয়েছেন। বলেছেন, আমার সততা, সুন্দর মানসিকতা আমাকে সামনে বাড়াবার সাহস ও হিম্মত যুগিয়েছে। তৃণমূল থেকে উঠে আসা একজন সফল মানুষ তিনি। ছোটবেলা থেকেই ছিলেন যথেষ্ট বুদ্ধিমান। মেধাবী ও দূরন্ত প্রকৃতির। সেই সঙ্গে ছিলেন বৈষয়িক ও নৈতিক ভাবনার অধিকারী। পড়া শুনার প্রতি ছিলেন অদম্য উৎসাহী। চলার পথে নানা-ঘাত-প্রতিঘাত ও বিপত্তি এলেও, তাঁর পথচলা রুদ্ধ করতে পারেনি। জীবন সংগ্রাম তাঁকে শিক্ষা দিয়েছে সামনে এগোবার। মেধাবী, নান্দনিক ও উন্নত মন-মানসিকতার মুর্তপ্রতিক। তিনি গড়ে উঠেছেন জীবন শিক্ষায় সশিক্ষিত হয়ে তার সল্যুশন নাইন লিমিটেড নামের প্রতিষ্ঠান।

কেন আপনি বেসিসে প্রতিদ্বন্দিতায় আসলেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, একেবারে নবীন উদ্যোক্তা হিসেবে শুরু করেছিলাম। হাটিহাটি পা পা করে আজ এখানে। এই আইটি শিল্পের সঙ্গে যুক্ত আছি গত নয় বছর ধরে। কিন্তু সফলতা পেতে খুব বেগ পেতে হয়েছে। খুব কঠিন সময় পার করেছি। তবে বর্তমানে আমি সফলভাবে কাজ করছি। তাই নতুন উদ্যোক্তারা যেসব বাঁধার সম্মুখ হন সেসব বিষয় এবং তা থেকে কীভাবে ‍উতরে যাওয়া সম্ভব তা আমি জানি। এ কারণে বেসিসের মাধ্যমে তরুণ ও নতুনদের জন্যে আইটি ব্যবসায়ীদের কাজ করতে হবে। আমি সে কাজই করবো। যেহেতু বেসিস হচ্ছে এমন একটি সংগঠন, যেটির মাধ্যমে সহজে এ খাতের উদ্যোক্তাদের সহায়তা করা যায়। এই কাজটি হবে আমার মিশন ও ভিশন।

নির্বাচনী ইশতেহার কি আপনার জানতে চাইলে রানা বলেন, আমি দুটি বিষয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। একটি হলো: দেশে সফটওয়্যার মার্কেটিং এজেন্সি গড়ে তোলা।
অন্যটি হলো: অ্যাকসেস টু ফিন্যান্স ব্যবস্থা আরও সহজ করা। এর মধ্যে সফটওয়্যার মার্কেটিং এজেন্সি গড়ে তোলার কারণ হচ্ছে, অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই ভালো সফটওয়্যার বানাচ্ছে কিন্তু মার্কেটিংয়ের অভাবে আন্তর্জাতিক বাজারে সেভাবে প্রবেশ করতে পারছে না। দেখা যায়, বেশিরভাগই প্রযুক্তিতে অভিজ্ঞ কিন্তু মার্কেটিংয়ে সেই হারে ভালো না। এছাড়া এ রকম প্রতিষ্ঠান থাকলে সফটওয়্যার বেচা-কেনা নিয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোকে তেমন ভাবতে হবে না। আর ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য অ্যাকসেস টু ফিন্যান্স ব্যবস্থা সহজ করা। সে ক্ষেত্রে এই ধরনের প্রতিষ্ঠানগুলোকে বেসিস নির্দিষ্ট কোনো সার্টিফিকেট দেবে। আর সেটির মাধ্যমে তারা অর্থ লেনদেনের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করতে পারবে।
নির্বািচিত হলে কি ভাবে কাজ করবেন, প্রতিশ্রুতি ঠিক থাকবে তো, এ প্রসঙ্গে সহিবুর রহমান খান রানা বলেন, আমার যে অভিজ্ঞতা এবং বেসিসের মতো সংগঠন থেকে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা সহজ। সফটওয়্যার মার্কেটিং এজেন্সির জন্য উদ্যোক্তাদের অনুপ্রাণিত করা হবে। আর এ জন্য সচেতনতাও বাড়ানো হবে।

টিম দুর্জয় নামের একটি প্যানেল থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। টিম দুর্জয়ের মূল লক্ষ্য কী? জানতে চাইলে তিনি বলেন, আইটি শিল্পে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব বহন করে তরুণ উদ্যোক্তারাই। তাঁরা নিজেদের সমস্যা সম্পর্কে জানে এবং অন্যদের সমস্যা সম্পর্কেও অবগত থাকে। তাই আইসিটি শিল্পের উন্নয়নে আমরা একে অপরকে সহায়তা করতে চাই। এ জন্য আমাদের প্যানেলে সিনিয়ররাও আছেন। উনারা আমাদের নির্দেশনা দেবেন। তাই আমরা সঠিক পথেই থাকব।

প্রসঙ্গত, বেসিস নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্প্রতি ‘টিম বিজয়’ নামের প্যানেলটির ঘোষণা দিয়েছিলেন ফ্লোরা টেলিকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা রফিকুল ইসলাম। তবে দুরন্ত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে টিম আর ভোটারদের অনুরোধে এই প্যানেলের নাম পরিবর্তন হয়ে ‘টিম দুর্জয়’ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মো. সহিবুর রহমান খান রানা। ‍তিনি ছাড়া এই প্যানেলের বাকি আট সদস্য হচ্ছেন ফ্লোরা টেলিকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা রফিকুল ইসলাম, এটম এপি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে এম আহমেদুল ইসলাম, এলিয়ন টেকনোলজির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আমিন উল্লাহ, স্টার হোস্টের চেয়ারম্যান কাজী জাহিদুল আলম, স্পিন্ট অব স্টুডির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম আসাদুজ্জামান, চালডালের প্রধান পরিচালনা কর্মকর্তা জিয়া আশরাফ, রেইজ আইটি সলিউশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে এ এম রাশেদুল মজিদ এবং জামান আইটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জামান খান।

টিম দূর্জয়ের টিম লিডার ফ্লোরা টেলিকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা রফিকুল ইসলামের সঙ্গে অন্যান্য প্রার্থীরা

দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠন বেসিসের ২০১৮-১৯ সেশনের নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৪০ জন।এর মধ্যে জেনারেল সদস্য ক্যাটাগরিতে ৩৪ এবং অ্যাসোসিয়েটে ৬ জন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন ছিল।নির্বাচন কাণ্ডে ২০১৭ সাল জুড়ে সরগরমের পর অবশেষে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে তৃতীয় বারের মতো সংগঠনটির নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা হয়।চলতি মাসের ৩১ তারিখে হবে এ নির্বাচন। ডিটিও’র নির্দেশনা অনুযায়ী ২ বছর মেয়াদের জন্য ৯ পদে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
ঢাকা, ২৯ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।