বিশ্বকাপ জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন ১৭৮ রান


Published: 2020-02-09 22:56:52 BdST, Updated: 2020-04-01 13:01:26 BdST

স্পোর্টস ডেস্কঃ শুরু থেকেই বাংলাদেশের যুবাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং সামলে রান তুলতে হিমশিম খেয়েছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। শেষেও অভিষেক দাস-শরীফুল ইসলামদের বোলিংয়ের সামনে ধুঁকেছে তারা। তবে মাঝখানে কেবল ওপেনার যশস্বী জসওয়াল ও তিলক ভার্মা যা একটু প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন। কিন্তু তাতেও খুব বড় সংগ্রহ করতে সফল হয়নি ভারত।

প্রথমবারের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে ইতিহাস গড়ার জন্য বাংলাদেশের দরকার ১৭৮ রান। ৪৭.২ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ১৭৭ রান করতে সক্ষম হয়েছে ভারত।

চলতি আসরের সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস গড়ে স্বপ্নের ফাইনালে ওঠে আকবর আলীর দল। প্রথমবারের মতো আইসিসি’র কোনো ইভেন্টে এবং বিশ্বকাপের মতো কোনো আসরে ফাইনাল খেলছে বাংলাদেশ। তাই প্রত্যাশার পারদটা একটু ওপরেই থাকবে। সেই লক্ষ্যে শুরুটা ভালোই করেছে যুবারা।

রবিবার পচেফস্ট্রমে যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে টসে জিতার পরে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ।

পরে ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশের যুবাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের চাপে পড়ে যায় ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। তানজিম হাসান সাকিব আর শরিফুল ইসলাম মিলে প্রথম ৬ ওভারে খরচ করেছেন মাত্র ৮ রান। এরপর ৭ম ওভারে এসেই মেডেন ওভারের পাশাপাশি ১ উইকেট তুলে নেন অভিষেক।

তবে ১ম উইকেট হারানোর পর থেকেই উইকেট ধরে রাখায় মনোযোগ দেয় ভারত। দুই ব্যাটসম্যান জসওয়াল ও তিলক মিলে উইকেট আকড়ে ধরে রাখেন। এমনকি মাঝে ৫০ বলে কোনো বাউন্ডারিও হাঁকানোর সাহস করেননি তারা।

তবে ২৫ ওভারের পর থেকে রান বৃদ্ধির দিকে ঝুঁকতে শুরু করে ভারত। কিন্তু সাকিবের বলে তিলকের বিদায়ে বড় ধাক্কাই খায় দলটি। শরিফুল ইসলামের হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৬৫ বলে ৩৮ রানের ইনিংস।

এরপর দলীয় ১১৪ রানে প্রিয়মকে (৭) হারায় ভারত। ভারতের যুব অধিনায়ককে সাজঘরে পাঠিয়ে দেন রাকিবুল হাসান। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মধ্যে মাটি লড়াই করতে থাকেন জসওয়াল। কিন্তু সেঞ্চুরি থেকে ১২ রান দূরে থাকতেই শরীফুলের বলে তানজিদের হাতে বন্দী হন তিনি। তার ১২১ বলে ৮৮ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ৭ চার ও ১ ছক্কায়।

জসওয়ালকে বিদায় দেওয়ার বলেই সিদ্ধেশ ভীরকে শূন্যহাতে সাজঘরে ফেরান শরীফুল। এরপর রানআউটের শিকার হয়ে বিদায় নেন উইকেটরক্ষক ধ্রুব জুয়েল (২২)। সেই সাথে রান আউটের শিকার হন রবিও (২)। এরপর অভিষেক এসে বোল্ড করেন অথর্বকে (৩)। কার্তিক তিয়াগিকে ডাক উপহার দিয়ে নিজের তৃতীয় উইকেট তুলে নেন অভিষেক। এরপর শেষ উইকেট হিসেবে আউট হোন সুশান্ত মিশ্র (৩)। ১ রানে অপরাজিত ছিলেন আকাশ সিং।

ঢাকা, ০৯ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।