মাঠে বসে ছেলের খেলা দেখার অনূভূতিই আলাদাসাবাশ বাবা, আরো ভাল খেল! ‌‌''দেখিয়ে দে''


Published: 2019-06-25 07:25:22 BdST, Updated: 2019-12-16 05:36:28 BdST

স্পোর্টস লাইভঃ সাবাশ বাবা। আরো ভাল খেল বাবা। দেখিয়ে দে, আমাদের ছেলেরাও পারে। তারাও মাত করতে পারে দুনিয়াকে। সুনাম বয়ে আনতে পারে দেশ মাতৃকার। এভাবেই সাহস যুগিয়েছিলেন আমাদের আহংকার সাকিব আল হাসানের মা। তিনি শুধু সাকিবের নয় খেলাপ্রেমিদেরও মা বনে গেছেন তার উৎসাহ আর উদ্দীপনার কারণে।

সাকিব আল হাসানের মা ও বাবা মাঠে বসেই ছেলের কৃতিত্ব দেখলেন। আর প্রাণ ভরে দোয়া করলেন গোটা টাইগারদের জন্যে। তারা যেন বিজয়ের মালা পড়ে মাঠ ছাড়তে পারে সে কথা তারা মাঠেই বলেছিলেন। এমন গর্বিত বাবা-মা আর ক’জনের হতে পারে।

স্নায়ুর উত্তেজনায় ভুগতে পারেন না বলে ছেলের খেলা মাঠে বসে তো দূরে থাক, টিভির সামনে বসেও দেখেন না সাকিব আল হাসানের বাবা মসরুর রেজা। মা শিরিন আক্তারের কথা নাইবা বললাম। তারা দু'জন হাজারো আর্শিবাদ দেন গোটা বাহিনীকে। বলেন, তোমরা এগিয়ে যাও জয় তোমাদেররই জন্যে।

অথচ সেই বাবা-মাকে সামনে রেখেই আজ নিজেকে যেন পুরোপুরি উজাড় করে দিলেন সাকিব আল হাসান। গ্যালারিতে মা-বাবা বসে আছে, এটাও হয়তো একটা বিশেষ অনুপ্রেরণার কারণ হতে পারে সাকিবের।

ব্যাট হাতে ৫১ রান করার পাশাপাশি, বল হাতে ৫ উইকেট নেয়ার পেছনে যে শক্তি কাজ করেছে, তার উৎস কি? মা-বাবাকে ইংল্যান্ডের স্টেডিয়ামে বসিয়ে নিজের খেলা দেখাবেন এবার সাকিব- এটা যেন আগেই পণ করে রেখেছিলেন তিনি।

এ কারণে ইংল্যান্ড যাওয়ার আগেই বাবা-মা’র যাওয়ার সব ব্যবস্থা করে রেখে যান তিনি। মাঠে খেলা দেখা কিন্তু মা বাবার আবদার নয়। কেবল সাকিবের একান্ত ইচ্ছা আর শক্ত মনোবল সাহস যুগিয়েছিল তাকে। তাই সব ঠিক করে সারপ্রাইজ দিতেই ছিল এই আয়োজন।

ছেলে বলে কখা। মা বাবা ফেরালেন না তার আবদার। শেষ পর্যন্ত ছেলের খেলা দেখার জন্য ১৮ জুন, ঢাকা ছেড়ে যান মসরুর রেজা এবং শিরিন আক্তার। ১৯ জুন গিয়ে তারা পৌঁছান ইংল্যান্ডে এবং সেদিনই নটিংহ্যামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে বসে ছেলের বিশ্বকাপের খেলা দেখার কথা থাকলেও দেখতে পারেননি তারা। কারণটা নিশ্চিত ভ্রমণ ক্লান্তি। তরে তাদের মনে সামান্যও ক্লান্তি ছিল না।

হ্যা সে দিন ছিল অনেকটাই ব্যতিক্রম। সাকিবরা আগে থেকেই অনেকটা ফুর ফুরে ছিলেন। কেন ছিলেন সেটা জানবার সময় আসেনি। যদিও সেদিন বাংলাদেশ খুব ভালো খেলেছিল, কিন্তু জয় পায়নি।

তবে আজ হ্যাম্পশায়ারের রোজ বোল স্টেডিয়ামেই প্রথম সাকিবের খেলা দেখতে হাজির হন তার বাবা-মা। গর্ভধারিণীর মুখে হাসি ফোটালেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সে সঙ্গে হাসি ফুটিয়েছেন ১৬ কোটি বাংলাদেশির মুখেও। আমাদের সেই টাইগাররা আমাদের সম্পদ। আমাদের গর্ব। আমাদের প্রেরণার লিলাভূমি। এ বিজয় যেন ওরা ধরে রাখতে পারে দীর্ঘদিন...

ঢাকা, ২৫ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।