প্লাজমা থেরাপি পুলিশ হাসপাতালের আরও ২ রোগীকে


Published: 2020-05-27 18:56:51 BdST, Updated: 2020-07-10 08:29:29 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় ও জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছে ৪ হাজারের বেশি পুলিশ সদস্য। সেই সাথে নিজেদের জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন ১৪ জন পুলিশ সদস্য। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে সারাদেশে পুলিশ হাসপাতাল ও একটি ভাড়া করা হাসপাতালে চলছে করোনা আক্রান্ত সদস্যদের চিকিৎসা।

সম্প্রতি রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও দুই ক্রিটিক্যাল রোগীকে প্লাজমা থেরাপির চিকিৎসা দেয়া শুরু হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা যায়, পুলিশ সদস্যদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি কমাতে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদের নির্দেশে বিভিন্ন ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের জন্য সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়া করাসহ সব পুলিশ হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ উন্নত চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়েছে। এ কারণে একদিকে পুলিশ আক্রান্তের হার যেমন কমছে, তেমনি দ্রুততার সঙ্গে বাড়ছে সুস্থতার হার।

রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, করোনা আক্রান্ত রোগীদের প্লাজমা থেরাপিতে চিকিৎসা দেয়ার পুরো প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। প্লাজমা থেরাপির মেশিন বসানো হয়েছে। ক্রিটিক্যাল রোগীদের জন্য প্লাজমা সংগ্রহ করা হচ্ছে। ডোনার হিসেবে সুস্থ হওয়া পুলিশ সদস্যদেরকেই পাচ্ছে পুলিশ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

সম্প্রতি রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দুই আক্রান্ত পুলিশ সদস্যকে প্লাজমা থেরাপি দেয়া হয়। করোনা উপশম কমলেও অন্য একাধিক রোগের কারণে মারা যান দুই রোগী। তবে পুলিশ হাসপাতাল প্লাজমায় করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে উন্নতি দেখা যাচ্ছে। করোনার ক্রিটিক্যাল রোগীর বাইরেও প্লাজমা থেরাপি দেয়ার চিন্তা করছে পুলিশ হাসপাতাল।

বুধবার রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মনোয়ার হাসানাত খান জানান, সম্প্রতি আমরা দুই রোগীকে প্লাজমা থেরাপির ব্যবস্থা করি। তাদের বেশ উন্নতি দেখেছি। তাদের ভেন্টিলেটর ছাড়াই অক্সিজেন গ্রহণের ক্ষমতা বাড়তে দেখা গেছে। যেটা করোনার রোগীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

কিন্তু বেদনার কথা হলো- দুজনকে আমরা হারিয়েছি কারণ তারা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আগে থেকেই কার্ডিয়াক ও পেডিয়াট্রিকের মতো অন্যান্য কঠিন সব রোগে ভুগছিলেন। তবে আমরা এটা মোটামুটি অনুধাবন করেছি যে, শুধু করোনা আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে প্লাজমা কার্যকরী একটা চিকিৎসা পদ্ধতি হতে পারে।

ডা. মনোয়ার হাসানাত খান জানান, এতেদিন যাবৎ আক্রান্ত ৪ হাজারের অধিক সদস্যের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১২৮০ জন। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল ও এর তত্ত্বাবধানে ইমপালস হাসপাতালে মোট ১ হাজার ১১৯ করোনা রোগী চিকিৎসাধীন। তাদের মধ্যে সবচেয়ে ক্রিটিক্যাল ও ভেন্টিলেশনে থাকা দুই রোগীকে নতুন করে প্লাজমা দেয়া হয়েছে। তাদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, তুলনামূলক কম অসুস্থ করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদেরও খুব সহসায় আমরা প্লাজমা থেরাপিতে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করবো।

ঢাকা, ২৭ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।