হৃদরোগ নির্ণয়ে সাশ্রয়ী পদ্ধতি ‘রেডিয়াল এনজিওগ্রাম’


Published: 2019-08-25 15:22:06 BdST, Updated: 2019-12-13 19:03:22 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: করোনারি বা হার্টের রক্তনালির রোগ নির্ণয় করতে বাংলাদেশে বেশির ভাগ এনজিওগ্রাম, স্ট্যান্টিং বা এনজিওপ্লাস্টি করা হয় পায়ের রক্তনালি দিয়ে। কিন্তু সারাবিশ্বেই জনপ্রিয় পদ্ধতি হলো ‘রেডিয়াল এনজিওগ্রাম’ যা হাতের কবজির সামান্য ওপরে ছোট ছিদ্র করে করা হয়।

আমেরিকায় ৭০ ভাগ, যুক্তরাজ্যে ৯০ ভাগ, ইউরোপে ৬০-৭০ ভাগ এনজিওগ্রাম ও এনজিওপ্লাস্টি করা হয় রেডিয়াল পদ্ধতিতে। এই পদ্ধতির এনজিওগ্রামের জন্য মাত্র ৪ ঘণ্টা হাসপাতালে অবস্থান করতে হয়। এমনকি এনজিওপ্লাস্টির পরও কোন ক্ষেত্রে একদিনেই রোগীকে বাড়ীতে পাঠানো যায়।

অল্প সময়ের মধ্যে রোগী দ্রুত চলাফেরা করতে পারে, ওই হাত দিয়ে কাজকর্মও করতে পারে। আশঙ্কা থাকে না বড় ধরনের রক্ত জমাট বাধা বা হেমাটোমা হওয়ার। হার্ট অ্যাটাকের পর রেডিয়াল এনজিওপ্লাস্টিতে মৃত্যুর হারও অনেক কম, খরচও অনেক কম। ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব কার্ডিওলজি (ইএসসি) হার্ট অ্যাটাকের রোগীদের প্রথম নির্দেশনা হিসেবে রেডিয়াল এনজিওপ্লাস্টির পরামর্শ দিয়েছেন।

কিন্তু বাংলাদেশে এখনো রেডিয়াল এনজিওগ্রাম সেভাবে জনপ্রিয়তা পায়নি। দেশীয় চিকিৎদের এ ব্যাপারে আরো দক্ষ করতে এবং রেডিয়াল এনজিওগ্রামকে ব্যাপক জনপ্রিয় করতে শিগগিরই নানা উদ্যোগ নেয়া হবে।

বাংলাদেশ রেডিয়াল ইন্টারভেনশন কোসের্র (বিআরআইসি) আয়োজনে প্যান প্যাসিফিকি সোনার গাঁ হোটেলে আয়োজিত রেডিয়াল এনজিওগ্রাম বিষয়ক প্রথমবারের মতো দুইদিনব্যাপি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের শেষ দিনে বক্তারা এসব কথা বলেন।

এর আগে সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রফেসর ব্রিগেডিয়ার (অব.) ডা. আব্দুল মালিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেডিয়াল ইন্টারভেনশন কোর্সের (বিআরআইসি) কোর্স ডিরেক্টর প্রফেসর ডা. মীর জামাল উদ্দিন।

দুইদিনব্যাপি এই সম্মেলনে ১৪টির মতো টেকনিক্যাল সেসন পরিচালনা করা হয়। এসব টেকনিক্যাল সেসনগুলো উপস্থাপন করেন ডা. এন এ এম মোমেনুজ্জামান, প্রফেসর ডা. সোহরাবুজ্জামান, প্রফেসর ডা. আব্দুস জাহের, ডা. মাহবুবর রহমান, ডা. মাহবুব মনসুর, প্রফেসর মাকসুমুল হক,প্রফেসর ডা. মাসুদ জিয়া চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. ওয়াদুদ চৌধুরী, প্রফেসর ডা. সাহাবুদ্দিন, প্রফেসর ডা. একিউএম রেজা, প্রফেসর ডা. মোস্তফা জামান, ডা. কর্নেল জিহাদ খান, ডা. কর্নেল আলেয়া সুলতানা প্রমূখ।

প্রথমবারের মতো আয়োজিত এই সম্মেলনের বিভিন্ন পর্বে আমেরিকা, যুক্তরাষ্ট, মালয়েশিয়া, চীন, ভারতের প্রখ্যাত ইন্টারভেনশাল কার্ডিওলজিস্টগণ বেশ কয়েকটি জটিল পিসিআই লাইভ কেস পরিচালনা করেন।

চীনের হুয়াং হসপিটাল থেকে এই প্রথম ৫জি প্রযুক্তি মাধ্যমে হৃদরোগের জটিল লাইভ কেস দেখানো হয়। উপস্থিত চিকিৎগণ এসব লাইভ কেস থেকে প্রভূত জ্ঞান অর্জন করেন। সম্মেলনে ৭ শতাধিক বাংলাদেশী হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, কার্ডিয়াক সার্জন ও ভাসকুলার সার্জনগণ অংশ নেন।

বাংলাদেশ রেডিয়াল ইন্টারভেনশন কোর্সের (বিআরআইসি) কোর্স ডিরেক্টর প্রফেসর ডা. মীর জামাল উদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশে তিন বছর আগে কব্জির নিচে ডিস্টাল রেডিয়াল আর্টারিতে এনজিওগ্রাম ও এনজিওপ্লাস্টি শুরু করে ইতিমধ্যে প্রায় দুই হাজারের অধিক সফল এনজিওগ্রাম ও এনজিওপ্লাস্টি সম্পন্ন করেছি।

তিনি বলেন, ‘এখন আমরা উদ্যোগ নিচ্ছি বাংলাদেশী চিকিত্সকদের বিদেশে পাঠিয়ে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলতে। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন কার্ডিয়াক সেন্টারেও আমরা হাতেকলমে প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ নিচ্ছি। তিনি জানান, বাংলাদেশে দ্বিতীয় বারের মতো রেডিয়াল এনজিওগ্রাম বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন হবে ২০২০ সালের ১১-১২ সেপ্টেম্বর।

ঢাকা, ২৫ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম.কম)//আরএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।