রাষ্ট্র অসুখে, সরকারের ভেতরে অস্থিরতা


Published: 2020-05-29 13:19:56 BdST, Updated: 2020-10-28 08:53:52 BdST

মতিউর রহমান চৌধুরী: জীবন আর জীবিকা। এ দু'টার মধ্যে লড়াই আদিকাল থেকেই। আখেরে জীবন জিতেছে। জীবিকা হেরে গেছে। কারণ জীবন না থাকলে জীবিকা অর্থহীন। কিন্তু আমরা বাংলাদেশে কি দেখতে পাচ্ছি? ভয়ঙ্কর ভাইরাসের থাবা যখন তুঙ্গে তখনই আমরা সব দরজা, জানালা খুলে দিচ্ছি। কারণ নাকি একটাই। মানুষ জীবনকে তুচ্ছ করে জীবিকার লড়াই চালিয়ে যেতে চায়।

এটা ঠিক মানুষ আর কতদিন পেটে গামছা বেঁধে থাকবে। সে ঘরে বসে ছটফট করছে। বাঁচার তাগিদে সে দরজা, জানালা খুলে বের হয়ে আসতে চাচ্ছে। নিঃসন্দেহে এটা একটা নতুন মুসিবত। অর্থনীতির চাকা ঘুরছে না। চারদিকে শুধু আফসোস আর আফসোস। কি হবে, কি হবে রব। মন খারাপের অসুখে পেয়ে গেছে অনেককে। মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন দীর্ঘদিন বন্দি থাকলে এমনটাই হবে। এর একমাত্র দাওয়াই কি দরজা ভেঙে বের হয়ে যাওয়া! তাই যদি হয় তাহলে রেখে ঢেকে কেন? এক ঘোষণায় বলে দিলেই হয়।

বাংলাদেশ চলবে তার মতো করে। এই যুক্তি মন্দ নয়। কিন্তু আমরা যখন সকাল বিকাল সিদ্ধান্তের পরিবর্তন দেখি তখনই মনে হয় রাষ্ট্রকে অসুখে পেয়ে বসেছে। অস্থিরতাও দেখছি সরকারে। ২৪ ঘণ্টায় কতগুলো সিদ্ধান্ত দেখলাম! শিরোনাম এলো আর ছুটি বাড়বে না। বলা হলো সবকিছু স্বাভাবিক হলেও গণপরিবহন চলবে না। দু'ঘণ্টা পর আরেক ফরমান। সীমিত আকারে গণপরিবহনও চলবে।

গণপরিবহন চলছে সীমিতভাবে এটা নিশ্চিত করবে কে? এই শক্তি কি আমাদের আছে? হুড়মুড় করে সব পরিবহন রাস্তায় নেমে পড়বে। তখন নিয়ন্ত্রণ করবে কে? বাস্তবে এর বিপরীতটাই ঘটবে। অতীত অভিজ্ঞতা তাই বলে। ক'দিন আগেই তো আমরা দেখলাম নতুন অ্যাপের জন্ম হচ্ছে। আপনি কোথায় যাবেন, কেন যাবেন তা জানাতে হবে অ্যাপের মাধ্যমে। সে সিদ্ধান্তও নিমিষেই হারিয়ে গেল।

২৪ ঘণ্টায় আরেকটা সিদ্ধান্ত হলো। এখন থেকে সব হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসা হবে। আচ্ছা বলুনতো কয়টা হাসপাতালে এই সুবিধা রয়েছে? যেখানে শয্যাই নেই সেখানে কোভিড রোগীর চিকিৎসা হবে কীভাবে? করোনা রোগীদের বেশিরভাগের জন্য ভেন্টিলেশন অপরিহার্য। হাসপাতালগুলোর চেহারা আমাদের সামনে ভাসছে। পাঁচ তারকা হাসপাতাল ছেড়ে কেন সিএমএইচ-এ যাওয়ার প্রাণান্তকর চেষ্টা? স্বীকার করতেই হবে স্বাস্থ্যসেবা একদম নুইয়ে পড়েছে। পড়ারই কথা।

কারণ স্বাস্থ্যসেবা বছরের পর বছর ধরে উপেক্ষিত। দুর্নীতি আর লুটপাটে একদম কাহিল। এক সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পরিবার যেভাবে দুর্নীতি করেছে তাতো দেশি বিদেশি মিডিয়ায় এসেছে। কোনো তদন্ত হয়নি। কারণ অজ্ঞাত। কেউ জানার চেষ্টাও করে না। মিডিয়াও ক্লান্ত হয়ে পড়েছে। অন্য দেশ খুলে দিয়েছে তাই আমি ঘরে বসে থাকব কেন? এমন যুক্তিও দেখানো হচ্ছে। অন্য দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাতো আমাদের মতো নয়। সবাই জানে করোনা ভাইরাস যখন পিকে তখন আমেরিকা কিংবা ইংল্যান্ডের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার মতো অতি উন্নত ব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছিল। আমাদের এখানে স্ববিরোধিতা ভরপুর। একদিকে আমরা সব ওপেন করে দিচ্ছি।

অন্যদিকে সব হাসপাতালকে কোভিড-১৯ হাসপাতালে পরিণত করছি। তার মানে কি? আমরা কি ধরে নিচ্ছি যা হবার হবে দেখা যাক না! অনেক রাষ্ট্রনায়ক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ উপেক্ষা করে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে গিয়ে অনেক মূল্য দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন। উদাহরণ হিসেবে ব্রাজিলের কথা বলা যায়। দেশটির প্রেসিডেন্টের একগুয়েমি সিদ্ধান্তের কারণে দু'জন স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বিদায় নিতে হয়েছে। সংক্রমণের দিক থেকে দেশটির স্থান এখন যুক্তরাষ্ট্রের পরেই। প্রতিদিনই মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের একজনও বলেননি এই পিকের সময় দরজা খুলে দিতে। বরং তারা প্রতিদিনই মিডিয়ার সামনে এসে বলছেন কোথায় যেন ভুল হচ্ছে। তারা কারফিউ দেয়ার পরামর্শও দিয়ে চলেছেন। কে শুনে কার কথা! শুধু শহরে নয়। গ্রামেও পৌঁছেছে অদৃশ্য এই ভাইরাসটি। দলে দলে গ্রামে যাবার মিছিল না থামাতে পারাই কি এর মূল কারণ? যে যাই বলেন মৃত্যুভয় কার নেই! নিজের মাকে যেখানে বাড়িতে ঢুকতে দেয় না সেখানে আমরা বলছি জীবন তুচ্ছ।

জীবিকার লড়াইয়ে শামিল হোন। মানছি আবেগ একটা সমুদ্রের ঢেউয়ের মতো। তাই মানুষের আবেগ কঠিন বাস্তবকেও শুষে নেয়। অনেকে আমার সঙ্গে একমত নাও হতে পারেন। এই কঠিন সময়ে বলবো করোনার সংক্রমণের গ্রাফ যেখানে ঊর্ধ্বমুখী সেখানে তাড়াহুড়ো করে সব প্রত্যাহার করে নেয়াটা হবে আত্মঘাতী। সবই যখন প্রত্যাহার হয়ে গেল তখন আর স্বাস্থ্য বুলেটিনের প্রয়োজন কি? এটাও প্রত্যাহার হয়ে যাক।

মানুষ আর জানবে না। মনও খারাপ করবে না। যদিও এর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে শুরু থেকেই বিস্তর কানাঘুষা। অনেকে এখানে প্রয়াত সাংবাদিক ফয়েজ আহমেদকে স্মরণ করেন। ফয়েজ আহমেদ লিখেছিলেন- সত্যবাবু মারা গেছেন। যাই হোক, সব সত্য যে সত্য নয় এটা আমরা অনেকদিন আগেই রপ্ত করেছি। পবিত্র সুরা আল-বাকারার একটি আয়াত এখানে উদ্ধৃত করে লেখাটা শেষ করতে চাই। আয়াতে বলা হয়েছে, 'তোমরা সত্যকে মিথ্যার সঙ্গে মিশিও না, জেনেশুনে সত্যকে গোপন করো না।'

শেষ কথা: কামনা করছি যেন দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন দিতে না হয়।

লেখক: প্রধান সম্পাদক

         দৈনিক মানবজমিন।

                                                                                 সৌজন্যে মানবজমিন

ঢাকা, ২৯ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।