রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা পেলে বেকারদের জন্য আমি যা করতাম!


Published: 2018-02-03 14:01:29 BdST, Updated: 2018-04-24 06:47:15 BdST

সত্যজিৎ চক্রবর্তী : হ্যালো গ্র্যাজুয়েটস, যদি আমাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমতায় বসানো হতো, তবে এই মুহুর্তে বেকারত্ব দূরীকরণে আমি কিছু পদক্ষেপ নিতাম :

১) সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা ৩৫ করে দিতাম, যা এখন গণ চাহিদায় পরিণত হয়েছে।

২) প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের যারা মালিক আছেন তারা প্রত্যেকে শিল্পপতি; তাদের একাধিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান আছে। প্রাইভেট ভার্সিটি চালানোর অনুমোদন দিতাম শুধু তাদেরকেই, যারা তার নিজের গড়া ভার্সিটি থেকে পাশ করা স্টুডেন্ট থেকে মিনিমাম প্রতিবছর ১০% চাকরি দেবে নিজের প্রতিষ্ঠানে এবং ভার্সিটির মালিকের রেফারেন্সে আরো বাকি ২০% কে অন্যান্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান / মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে চাকরির ব্যবস্থা করে দিতে হবে। কারণ ভার্সিটি কর্তৃপক্ষ দাবি করে তাদের প্রতিষ্ঠানে মানসম্মত শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। তাহলে মানসম্মত গ্র্যাজুয়েটদের আপনার নিজের প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দিয়ে আপনার কথার সত্যতা প্রমাণ করুন।

৩) বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলোতে মোট নিয়োগের ৩৫% ফ্রেশার ( অনভিজ্ঞ) নিয়োগ বাধ্যতামূলক বলে আইন প্রণয়ন করতাম।

৪) প্রতিবছর পলিসি মেলা করে বেকার গ্র্যাজুয়েটদের থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ব্যবসার পলিসি নিতাম। এতে করে যারা পুরো পলিসি দেখিয়ে ২ বছরের মধ্যে নিজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারবে বলে মনে করবে তাদের সরকারিভাবে লোন দিতাম। এবং ২ বছর পর যারা প্রতিষ্ঠিত হয়ে যাবে তাদের মোট লভ্যাংশের ২০% নিয়ে নিতাম লোন হিসেবে। এই লোন দিতাম নতুন উদ্যোক্তা হতে চাওয়া ব্যক্তিদের। এতে করে ১০ বছরেই অনেক উদ্যোক্তা তৈরি হবে। একজন উদ্যোক্তা হওয়া মানেই, আরো কয়েকশ মানুষের চাকরির ব্যবস্থা হয়ে যাওয়া।

৫) যেকোনো সরকারি চাকরিতে প্রিলি, লিখিত পাশ করা ক্যান্ডিডেট যারা ভাইভা দেবে তাদের মধ্যে যারা চাকরি পাবে না, তাদের জন্য সে নিয়োগ পরীক্ষার উল্লেখিত পদের মোট বেতনের অর্ধেক প্রতি মাসে তাকে বেকার ভাতা দিতাম। কারণ একজন ক্যান্ডিডেট প্রিলি ও লিখিত পাস করেই তার যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছে। এখন ফাইনালি অনেককেই নিয়োগ দিতে না পারাটা পদসংখ্যা কম থাকার কারণে হয়না। এটা রাষ্ট্রের সীমাবদ্ধতা। ক্যান্ডিডেটের নয়।

আমি সত্যজিৎ রাজনৈতিক ব্যক্তি নই। তবে দায়িত্ব নিয়ে বলছি রাষ্ট্রীয় ছায়া পেলে এসব বাস্তবায়ন করা আমার পক্ষে সম্ভব। রাষ্ট্রীয় অনেক গুরুত্ত্বপূর্ণ ব্যক্তি আমার ফেসবুক আইডির সাথে যুক্ত আছেন। সাবেক এবং বর্তমান অনেক এমপি, মন্ত্রীও আছেন; প্রশাসনের অনেক উচ্চপদস্থ অফিসাররাও আছেন। তাদের দৃষ্টিতে আনতেই এই লেখা।

[আগামী নির্বাচনে যে কোনো দলের ইশতেহার ও হতে পারে]

Satyajit Chakraborty
Writer, Public Speaker & Corporate Trainer
Founder, Bangladesh Career Club

ঢাকা, ০৩ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।