জাপানের নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শিখছেন বাংলা ভাষা


Published: 2019-12-13 14:50:00 BdST, Updated: 2020-01-26 15:40:11 BdST

ইন্টারন্যাশনাল লাইভ: বাংলা ভাষা দক্ষিণ এশিয়ার বাঙালি জাতির প্রধান কথ্য ও লেখ্য ভাষা। বাংলা বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম ভাষা। সময়ের সঙ্গে বাংলা ভাষার প্রতি মানুষের আগ্রহ বেড়েই চলেছে। জাপানের নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও এখন বাংলা ভাষা চর্চা শুরু করেছেন।

জাপানের নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী হাগিওয়ারা আইয়াকা ও রিমি ওকুয়ামা। আইয়াকা পড়েন চতুর্থ বর্ষে, রিমি দ্বিতীয় বর্ষে। বিশ্বের অনেক জনপ্রিয় ভাষার কোর্স ছেড়ে কেন বাংলা ভাষা বেছে নিলেন এমন প্রশ্নের উত্তরে ওই ২ শিক্ষার্থী সোজাসাপ্টা উত্তরে বলেন, বাংলা অক্ষরের গঠনাকৃতি প্রথমেই দৃষ্টি কাড়ে। অক্ষরগুলো দেখতে আসলেই চমৎকার। এ কারণেই ভাষাটি শেখার সিদ্ধান্ত নেয়া।

শুক্রবার সোহেল রানার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই দুই শিক্ষার্থী আইয়াকা ও রিমি জানিয়েছেন বাংলা ভাষার প্রতি তাদের ভালবাসার কথা। বাংলা শেখা ও পড়া শুরুর পর ভাষাটির প্রতি তাদের ভালোবাসা কয়েক গুণ বেড়ে যায়। বাংলা অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ ও প্রাণবন্ত ভাষা।

এসময় তারা আরও জানান, বাংলা শেখার মধ্য দিয়ে শুধু বাংলাদেশকেই নয়, পুরো দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সমাজ, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ও জানার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। কারণ এ ভাষার জন্যই ১৯৫২ খ্রিষ্টাব্দের ২১ ফেব্রুয়ারি বুকের রক্ত দিয়েছে দামাল ছেলেরা। ভাষার জন্য প্রাণ দেয়ার ইতিহাস শুধু বাঙালি জাতিরই রয়েছে।

শুধু আইয়াকা-রিমিই নন; গৌরবময় বাংলা শিখছেন নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও অনেক শিক্ষার্থী। বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি ছাড়াও দেশের ইতিহাস জাপান তথা বিশ্বের বুকে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কোর্সটি চালু করেছেন বাংলাদেশেরই সন্তান ড. মোহাম্মদ শাহ আলম। তিনি ছিলেন নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। লেখাপড়া শেষে সেখানে শিক্ষকতা শুরু করেন। তার নিরলস চেষ্টায় অন্যান্য ভাষা কোর্সের সঙ্গে বাংলাও যুক্ত হয়। এটি ছিল বাংলা ভাষা, বাঙালি জাতি ও বাংলাদেশের জন্য অনন্য অর্জন। রক্ত দিয়ে বাঙালি রক্ষা করেছে যে ভাষা, সেই ভাষা আজ বিদেশে উচ্চশিক্ষার বিদ্যাপীঠে শিখছেন শিক্ষার্থীরা; জানছেন বাংলাদেশকে।

নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী কোবায়আশি হারুকা বলেন, ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দে শিক্ষক শাহ আলমের সঙ্গে বাংলাদেশে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শেখা বাংলার প্রয়োগও করেছি। বাংলা খুব পছন্দ করি। বিশ্বের মাঝে এমন শ্রদ্ধাবোধমূলক ভাষা আর নেই। বাংলা নিয়ে রিমি ওকুয়ামার ইচ্ছাটা আরও এক ধাপ এগিয়ে।

নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা ভাষার কোর্স চালু ও বাংলাদেশের শিক্ষার উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে ড. শাহ আলম জানান, একমাত্র বাঙালি জাতিই মাতৃভাষা রক্ষার জন্য জীবন দিয়েছে। এ ভাষার ইতিহাস অনেক সমৃদ্ধ- বিশ্বের অনেকেই তা হয়তো জানেন না। তার মতে, একটি দেশ-জাতি ও সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার অনেক উপায় রয়েছে। তবে সেই দেশের ভাষা জানা থাকলে বিষয়গুলো দ্রুত বোঝা যায়।

ড. শাহ আলম বলেন, কোর্স শেষে শিক্ষার্থীরা নানাভাবে বাংলা ভাষার প্রয়োগ করবে। বাংলায় তারা নানা কিছু লিখবে। এর মধ্য দিয়ে তারা মূলত বাংলাদেশকেই তুলে ধরবে। এভাবে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ছড়িয়ে পড়বে বাংলা, বাংলাদেশ ও তার ইতিহাস। নিহন বিশ্ববিদ্যালয়ে এই সিনিয়র লেকচারার বলেন, কোর্সের আওতায় শুধু বাংলা ভাষাই শেখানো হয় না। বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গসহ সর্বোপরি দক্ষিণ এশিয়ার ঐতিহ্য, সমাজ ব্যবস্থা, রাজনীতি, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন বিষয়ও তুলে ধরা হয়।

ঢাকা, ১৩ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।