পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েও ভর্তি অনিশ্চিত মেধাবী ছাত্রীর!


Published: 2019-12-03 01:28:32 BdST, Updated: 2019-12-06 14:25:02 BdST

নাটোর লাইভ : চলতি শিক্ষাবর্ষে (২০১৯-২০) পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েও ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে মেধাবী ছাত্রী ফাতেমা খাতুনের। অর্থের অভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারছেন না তিনি। ফাতেমার বাবা মোঃ ইউসুফ আলী একজন চা বিক্রেতা। ৩ শতাংশ বাড়ির জমিটি ছাড়া যার আর কিছুই নেই তার। মেয়ে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেলেও ভর্তি করানোর টাকা নেই তার কাছে। ফাতেমার বড় বোন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজ বিজ্ঞান (সম্মান) বিভাগের ৪র্থ বর্ষে পড়াশোনা করছেন। ৬৫ বছর বয়সে শুধু চায়ের দোকানের উপর নির্ভর করে দুই মেয়ের লেখাপড়া করানো সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন ইউসুফ আলী।

জানা যায়, ফাতেমা খাতুনের বাড়ি নাটোরের লালপুর উপজেলার তিলকপুর গ্রামে। সে পিএসসি পরীক্ষায় জিপিএ৫.০০, জেএসসি তে জিপিএ-৫.০০, এসএসসি জিপিএ-৫.০০ পেলেও পরীক্ষার সময় অসুস্থ থাকায় এইচএসসিতে পেয়েছে জিপিএ ৪.৯২। ফাতেমা এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় ‘ক’ ইউনিটে মেধাতালিকায় ৭৪৭তম, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় ‘খ’ ইউনিটে মেধাতালিকায় ৩৩৪, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘খ’ ইউনিটে ১৮৩, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘খ’ ইউনিটে মেধাতালিকায় ১৪তম জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘গ’ ইউনিটে ৪৯৫ তম হয়েছেন।

ফাতেমা সাংবাদিকদের বলেন, ভর্তি ও অন্যান্য খরচসহ প্রায় ১৫ হাজার টাকা লাগবে কিন্তু ভর্তির টাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের খরচ জোগানো তার পক্ষে অসম্ভব। তাই তিনি তাকিয়ে আছেন সমাজের বিবেকবানদের দিকে। একটু সহানুভূতিই তাকে উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন সফল করে দিতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে মানুষের মতো মানুষ হতে চান ফাতেমা।

ঢাকা, ০৩ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।