এক হার না মানা তরুণের গল্প


Published: 2019-02-20 21:42:42 BdST, Updated: 2019-10-14 21:53:29 BdST

ফাহিম আজমল: ডানপিটে ছেলেটি সারাদিন খেলার মাঠ আর বন্ধুদের সাথে ঘুরে বেড়াতো। অতিরিক্ত দুষ্টামীর কারণে মা তাকে মাদ্রাসায় ভর্তি করিয়ে দেন যাতে একটু শান্ত হয়। মাদ্রাসায় গিয়েও সেই আগের মতো বন্ধুদের পাঞ্জাবি কালি দিয়ে নষ্ট করা, মাদ্রাসা পালিয়ে সিনেমা দেখতে যাওয়া, অন্যদের সাথে দুষ্টামি আর মারামারি করাই যেনো তার সখ।

তবে ভালো গুন বলতে যা ছিলো তা হলো, ছেলেটি খুব ট্যালেন্ট ছিলো এবং প্রতিটি পরীক্ষায় ফার্স্ট হতো। তাই শিক্ষকেরা অত্যধিক আদর করতেন আর দুষ্টামীগুলো দেখেও না দেখার ভান করতেন। দাখিল এবং আলিম পরীক্ষা বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এ+ পেয়ে পাশ করা ছেলেটিকে ছোটবেলা যখন কেউ জিজ্ঞেস করতো, বড় হয়ে কি হতে চাও? ছেলেটি খুব দ্বিধা ছাড়া বলতো, রাষ্ট্রদূত হতে চাই৷ কিন্তু, ছেলেটি কখনো ভাবতোনা তার সামনে কতো কঠিন পথ পড়ে আছে। যার কথা বলছিলাম সে হলো সিলেট জেলার ছেলে বর্তমানে নয়াদিল্লিতে অবস্থিত সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত রিয়াজ উদ্দিন আবির।

আলিম পরীক্ষার পর রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে জেলে চলে যান রিয়াজ। সেজন্য প্রথমবার কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারেন নি। দ্বিতীয়বার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আইআর এ ২১ তম হওয়ার পরও মাদ্রাসা শিক্ষার্থী হওয়ার কারণে ভর্তি হতে পারেন নি।

এরপর বিইউপিতে ৩ টি ডিসিপ্লিনে রিটেনে প্রথম দিকে অবস্থান করার পরও ভাইভাতে অদৃশ্য কারণে মেধা তালিকায় আসতে পারেন নি। এরপর অনেক ভেঙে পড়েন রিয়াজ। অবশেষে ভর্তি হোন আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামে। সেখান থেকে গ্রাজুয়েশন করেন তিনি।

আইআইইসিতে ভর্তি হওয়ার পর নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা করেন৷ জড়িয়ে পড়েন বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কাজে। শহরের যে প্রান্তে কোনো প্রতিযোগিতা হতো রিয়াজ চলে যেতেন সেখানে। ২০১৪ সালের এটিএন বাংলা টিভিতে 'ওয়ার্ল্ড কাপ কুইজ ২০১৪' তে চ্যাম্পিয়ন হোন। এর পরের বছর চ্যানেল নাইনের 'আলোকিত জ্ঞানী ২০১৫' তে সেরা অষ্টম হন।

বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাহিরে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে অর্জন করেন ৮২ টি পুরষ্কার ও সার্টিফিকেট। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ ট্রেইনিং সেন্টার থেকে লিডারশিপ এর উপর শর্টকোর্সের লিডারশিপ গ্রাজুয়েশন কোর্স করেন।

এর মাঝে জড়িয়ে পড়েন লেখালেখিতে। শুরু করেন বিভিন্ন পত্রিকায় কবিতা আর কলাম লেখা। বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় ২০১৭ ও ২০১৮ সালে প্রকাশিত হয় অনেক উল্লেখযোগ্য কবিতা ও কলাম।

তার কলামের বিষয়বস্তু তারুণ্য, দেশ, বেকারত্ব আর সুশাসন। ২০১৮ সালের একুশে বইমেলায় দাঁড়িকমা প্রকাশনী নিয়ে আসে তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ 'ভুলে যাওয়ার তৃতীয় সূত্র'। যা পাঠক মহলে সমাদৃত হয়। ২০১৮ এর প্রথম দিকে রিয়াজ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০ জন তরুণ নিয়ে শুরু করেন পথশিশুদের জন্য 'ড্রিমস ফর দ্য স্ট্রিট চিলড্রেন ফাউণ্ডেশন' নামে অর্গানাইজেশনের কার্যক্রম। যে সংগঠনটি বিভিন্ন ধরণের সামাজিক কাজ করে যাচ্ছে পথ শিশুদের জন্য।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে রিয়াজ মালেশিয়ার কোয়ালালামপুরে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসাবে 'এশিয়া প্যাসিফিক ফিউচার লিডার কনফারেন্স ২০১৭' এ যোগদান করেন। ২০১৮ সালের নভেম্বরে মিশর সরকারের আমন্ত্রণে যোগদান করেন 'ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ ফোরাম ২০১৮' এ। এরপরের মাসে নেপালে 'এশিয়া প্যাসিফিক সামিট ২০১৮' এ যোগদান করেন।

এছাড়া রিয়াজ ভুটান ও ইন্ডিয়ার বিভিন্ন কনফারেন্সে যোগদান করেন। চলতি বছরের নভেম্বরে তার সুইজারল্যান্ডে হিউম্যান রাইটস কনফারেন্স ২০১৯ এ যোগদান করার কথা। গ্রাজুয়েশনের সময় রিয়াজ পার্ট টাইম চাকরি করতেন রবি কল সেন্টারে আর বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে ক্লাস নিতেন। নিজের গ্রাজুয়েশনের খরচ নিজেই চালাতেন রিয়াজ। তার কাছে কাজ আর পড়াশুনা নেশার মতো।

২০১৮ সালের এপ্রিলে গ্রাজুয়েশন শেষ হতে না হতেই ভর্তি পরীক্ষা দেন নয়াদিল্লিতে অবস্থিত সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে। ভর্তি পরীক্ষায় বাংলাদেশ থেকে আইআর এর প্রথম স্থান অধিকার করে সিলভার জুবলি অ্যাওয়ার্ড স্কলারশিপ লাভ করেন।

এখন অধ্যয়ন করছেন সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে মাস্টার্স প্রথম বর্ষে। জড়িত আছে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংগঠনের সাথে। সেই সাথে চালিয়ে যাচ্ছেন তার সাহিত্য চর্চাও।

ভবিষ্যতের স্বপ্ন সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে বলেন, 'এখনো সেই ছোটবেলার স্বপ্ন ফরেন ক্যাডারটা টানে। ইচ্ছে আছে দেশে ফিরে বিসিএস পরীক্ষাটা দেবো। আর পিএইচডি টা করবো কানাডা থেকে। বিশ্বাস করি, মানুষ তার স্বপ্ন থেকে বড়। আর সারাজীবন লেখে যেতে চাই মানুষের জন্য, মানবতার জন্য।'

 

ঢাকা, ২০ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।