কবি নজরুল সরকারি কলেজজরাজীর্ণ ছাত্রাবাস, ছাত্রীদের জন্য নেই আবাসন ব্যবস্থা


Published: 2020-02-10 01:49:53 BdST, Updated: 2020-04-11 01:36:18 BdST

ইমরান খান, কেএনজিসিঃ রাজধানীর কবি নজরুল সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের আবাসন ব্যবস্থা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। যে সংখ্যক শিক্ষার্থী কলেজ হোস্টেলে অবস্থান করেন, তার দ্বিগুণের বেশি শিক্ষার্থীকে থাকতে হচ্ছে বাইরে বিভিন্ন মালিকানাধীন ছাত্রাবাস কিংবা মেসে।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, ছাত্রদের জন্য একটি ছাত্রাবাস থাকলেও, ৪০ শতাংশ ছাত্রীর জন্য নেই কোন আবাসন ব্যবস্থা। ১৭ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে ১২০ আসনের একটি ছাত্রাবাস। গাদাগাদি করে থাকছেন প্রায় ২০০ জন শিক্ষার্থী। বাকি শিক্ষার্থীদের কলেজের আশেপাশের মেসে কিংবা বাসা ভাড়া করে থাকতে হয়।

ফরাশগঞ্জের মোহিনীমোহন দাস লেনে কলেজ ছাত্রাবাসটি অবস্থিত। স্বাধীনতা সংগ্রামে শহীদ ছাত্র শামসুল আলমের নামে নামকরণ করা হয় ‘শহীদ শামসুল আলম ছাত্রাবাস’।

সরেজমিনে দেখা যায়, ছাত্রাবাসের বিভিন্ন রুমের ছাদ থেকে পলেস্তারা খসে পরে রড বের হয়ে আছে। জানালা ভাঙা। দরজা ভাঙা। শৌচাগারের বেহাল দশা। আবাসিক শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, প্রতি বছর টাকা নিলেও ছাত্রাবাসটি সংস্কারে উদ্যোগ নেই কলেজ প্রশাসনের। সাত বছর হলো নেই হল সুপার।

ছাত্রাবাসের ২০৪ নম্বর রুমের সাইদুল নামের এক শিক্ষার্থী জানান, আমাদের ছাত্রাবাসটি অনেক পুরনো। ভবনটি খুবই ঝুকিপূর্ণ। কলেজ প্রশাসনের প্রতি আমাদের দাবি তারা যেন ছাত্রাবাসটির ভবন মেরামতের দিকে একটু নজর দেয়।

২০৮ নম্বর রুমের ফোরহাদ হোসেন জয় (ডিগ্রি২০১৬ -১৭ সেশন) নামের এক শিক্ষার্থী জানান, আগে আমাদের ছাত্রাবাসে কোনো ডাইনিং ছিল না, কিন্ত আমরা ছাত্ররা নিজেদের খরচে সম্প্রতি ডাইনিং চালু করেছি।

মুজাহিদুল ইসলাম (২০১৮-১৯) নামের শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের হলে খাবার পানির ব্যাপক সমস্যা রয়েছে। হলে ২০০ জন শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে মাত্র চারটি টয়লেট যার দুটি আবার নষ্ট সকাল বেলা টয়লেটে ভিড় জমে থাকে। এতে আমাদের ব্যাপক সমস্যায় পড়তে হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, হলে নানা সমস্যা রয়েছে। হলের জন্য একজন কেয়ারটেকার অতি প্রয়োজন। রাতের বেলা মহল্লার কিছু ছেলেরা হলের ছাদে আড্ডা দেয়।এতে ছাত্রাবাসে মাদকদ্রব্যের উপদ্রব বেড়ে যাচ্ছে। বিগত সাত বছর যাবত আমাদের হলে কোনো হল সুপার নেই।

উল্লেখ্য যে, কবি নজরুল সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আবাসন ব্যাবস্থা নিশ্চিত করা সহ নানা সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আন্দোলন করলে ও তার কোনো ফলাফল এখনও দৃশ্যমন হয়নি।

কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার জানান, ছেলেদের হল সংস্কারের জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। দ্রুতই সমস্যা গুলো সমাধান হবে বলে আমরা আশাবাদী।

ঢাকা, ০৯ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।