আঁধার ঘরে আলো ছড়ানো সেই ছেলেটি বুয়েটে এসে অন্ধকার জগতে!


Published: 2019-10-11 12:55:11 BdST, Updated: 2019-11-20 06:02:51 BdST

জয়পুরহাট লাইভ : মো. আকাশ হোসেন। বাড়ি জয়পুরহাটের দোগাছি গ্রামে। অভাবের সংসারে খেয়ে না খেয়ে পড়াশোনা করেছেন। এসএসসি ও এইচএসসিতে পেয়েছেন গোল্ডেন জিপিএ-৫। অন্যদিকে স্ত্রী আর তিন ছেলে মেয়ে নিয়ে অভাবের সংসার সামলাতে হয়েছে ভ্যানচালক বাবা আতিকুল হোসেনের। সংসারের ঘানি টানতে না পেরে এলাকার মানুষের কাছেও হাত পেতেছেন তিনি। এলাকার মানুষের সহযোগিতায় পড়াশোনার খরচ চলেছে আকাশের। এর মাঝে আকাশের মা হাঁস-মুরগী পেলে ডিম বেচে মাঝে মাঝে আকাশের পড়াশোনার খরচ দিয়েছেন। এলাকায় ভালো ছেলে হিসেবেই পরিচিত ছিল আকাশ।

তবে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পাল্টে যেতে থাকেন আকাশ। যোগ দেন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে। বড়ভাইদের আবদার মেটাতে টর্চারসেল কালচারে জড়িয়ে যান তিনি। বুয়েটের শেরেবাংলা হলে চিহ্নি সেই কক্ষগুলোতে তার আনাগোনা ছিল। এভাবে হয়ে উঠতে থাকেন বেপরোয়া। এবার অভাবের ঘরে আলো ছড়িয়ে আসা সেই ছেলেটি এখন অন্ধকার জগতে পা বাড়ান। সর্বশেষ আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায়ও তাকে সেই টর্চার সেলের কক্ষ থেকে নির্বিঘ্নে বেরিয়ে যেতে দেখা গেছে। সিসিটিভি ফুটেজ অনুযায়ী নির্যাতনকারীদের মধ্যে তিনিও ছিলেন। এলাকার মানুষের দয়ায় বুয়েটে আসা সেই ছেলেটিই এখন আবরার হত্যার অন্যতম আসামি হয়েছেন। তিনি ৫ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। কারাগারের অন্ধ প্রকোষ্টে কাটতে যাচ্ছে তার আলোকিত জীবন। একটি পরিবারের স্বপ্ন বিনাশ করে দিয়েছেন তিনি। এবার নিজের পরিবারেও নেমে এসেছে অন্ধকার। আলোকের পথ ছেড়ে অন্ধকার জগতের বাসিন্দা হয়েছেন আকাশ।

ভ্যানচালক বাবা আতিকুল হোসেনের স্বপ্ন ভেঙে খানখান করে দিয়েছেন আকাশ। বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ১৬তম ব্যাচের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মো. আকাশ হোসেন।

আকাশের বাবা আতিকুল ইসলাম বলেন, আকাশ ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার সদস্য, এটা জানতাম না। তবে ছেলেকে রাজনীতিতে জড়িত না হত বারবার নিষেধ করেছিলাম। সে যদি আমার কথা শুনতো তাহলে আজ এ পরিস্থিতি হতো না। দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আতিকুল বলেন, সব স্বপ্ন শেষ। এখন স্বপ্ন পূরণতো দূরের কথা, জীবনটাই বাঁচানো দায় হয়ে পড়ছে। পুরো পরিবার দুশ্চিন্তায় চোখে মুখে সব ঝাঁপসা দেখছি।

নির্যাতন কক্ষ থেকে বেরিয়ে যাচ্ছেন আকাশ

তিনি বলেন, ছেলেকে বুয়েটে পাঠায়ছিলাম ইঞ্জিনিয়ার বানাতে। নিজে না খেয়ে তার জন্য মাসে মাসে টাকা পাঠায়ছি আজ এই দিন দেখার জন্য! আকাশের বাবা আরো বলেন, পুরো জয়পুরহাট জেলার লোক তার সুনাম করছিল। এলাকার মানুষ আকাশের পড়ালেখায় সহযোগিতা করেছে বলেও জানান তিনি।

ঢাকা, ১১ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।