ঢাবিতে নির্বাচনী দেয়াল লিখনে ছাত্রলীগ: আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ!


Published: 2018-12-23 20:28:50 BdST, Updated: 2019-07-17 19:26:49 BdST

ঢাবি লাইভ: কোথায় নেই ছাত্রলীগ। সর্বত্র তারা বিরাজমান। হেন কাজ নেই যা তারা করছেন না। কিন্তু তাতে কি? কোন সমস্যা নেই তো তাদের। সবই চলছে ঠিকঠাক। কোন কিছুতেই তাদের স্পর্শ করা যাচ্ছে না। বহাল তবিয়তেই তারা সংগঠন চালাচ্ছেন। এবার নির্বাচনী আচরণ বিধি নিয়ে চারদিকে হৈচৈ পড়েছে।

রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে তাদের দেয়াল লিখন চোখে পড়েছে সবার। কিন্তু নির্বাচন কমিশন কিছুই বলছেন না বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্রদল ও ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্র শিবিরের নেতারা। তরা বলেছেন ক্ষমতাসীনদের ছাত্র সংগঠন হওয়ায় কেউ তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলছেন না। সবাই যেন মুখে কুলুপ লাগিয়ে আছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রোকেয়া হল থেকে উপাচার্যের বাসভবন পর্যন্ত দেয়ালে নৌকায় ভোট ও সরকারের উন্নয়ন নিয়ে দেয়ালের ছবি এঁকেছে ছাত্রলীগ। বিষয়টি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন বলে অভিযোগ করেছে নানান মহল থেকে সমালোচনা ও আলোচনা হচ্ছে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শাখা সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক রাজীব দাস স্বাক্ষরিত এক যৌথ সংবাদ বিবৃতিতে এ অভিযোগ এনে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নির্বাচনে রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা ২০০৮-এর বিধি ৯ (ক) ও খ অনুযায়ী, দেয়ালে কোনো প্রকার নির্বাচনী প্রচারণা চালানো যাবে না। কোনো কালি বা রং দ্বারা বা অন্য কোনোভাবে দেয়াল ছাড়াও কোনো দালানে নির্বাচনী প্রচারণামূলক কোনো লেখা বা আঁকা যাবে না।

কিন্তু আচরণবিধি লঙ্ঘন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়ালে নির্বাচনী প্রচারকাজে ব্যবহার করে শাসকগোষ্ঠী তাদের ক্ষমতার চর্চা ধরে রাখতে চাইছে।’

এ ছাত্র সংগঠন প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানীকে অবহিত করেন। তারা স্পস্ট করেই তাকে এ বিষয়ে অ্যাকশনে যেতে বলেছেন। যদিও তিনি এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

গত ১৮ ডিসেম্বর মহাজোট প্রার্থী রাশেদ খান মেনন ঢাবির টিএসসিতে নির্বাচনী প্রচারণায় এলে সেখানে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সামাদের সঙ্গে দেখা করেন।

সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে আশঙ্কা উঠতে দেখা গেছে, একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের প্রধান একটি রাজনৈতিক দলের প্রচারণার সঙ্গে যুক্ত থাকা এবং স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের সম্পদ (টিএসসি অডিটরিয়াম) নির্বাচনী প্রচারকার্যে ব্যবহার তথা আনুগত্য প্রকাশ আইনি ও নৈতিকভাবে সেই প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ক্ষুন্ন করেছে।

বিবৃতিতে ছাত্র ইউনিয়ন অনতিবিলম্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে এরকম সব দেয়াললিখন/গ্রাফিতি মুছে দেওয়া, আচরণ লঙ্ঘনকারীদেরকে শাস্তি দেওয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ নির্বাচনী প্রচার কাজে ব্যবহার বন্ধ করার দাবি জানান।

অভিযোগের বিষয়ে ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইনের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁরা ফোন ধরেননি।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রাব্বানী ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো দেয়ালে কোনো কিছু আঁকার কোনো অনুমতি নেই।

যারা নির্বাচনী গ্রাফিতি এঁকেছে সে বিষয়েও আমার কিছু করার নেই। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ নষ্ট করে সব সংগঠনকে দেয়াল লিখন বা চিত্র আঁকা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

একইভাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক মো. আকরামুল হাসান ছাত্রলীগের এহেন আচরণের নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন। বলেছেন নির্বাচন কমিশন এসব দেখেও না দেখার ভান করছে।

অন্যদিকে ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ ইয়াছিন আরাফাত ও সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন ছাত্রলীগের দেয়াল লিখননের ব্যাপারে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

 

ঢাকা, ২৩ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।