দশ মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা!


Published: 2018-11-23 15:18:31 BdST, Updated: 2019-03-21 10:21:55 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একের পর এক ভয়ংকর পথ বেছে নিচ্ছেন। ক্ষণিকের আবেগের বশে না ফেরার দেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পরিবারের সদস্যদের। গত ফেব্রুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। হতাশা, চাকরি না পাওয়া, অভাব ও প্রেমের বেদনা থেকে এমন ভয়ংকর বোকামি করছেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সর্বশেষ বৃহসম্পতিবার হুজাইফা নামে এক ছাত্র আত্মহত্যা করেছেন।

হুজাইফা রশিদ : গাজীপুরের টঙ্গীতে নিজ বাড়িতে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের শিক্ষার্থী হুজাইফা রশিদ আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে হুজাইফার ফুফাতো ভাই জানান, ‘হুজাইফা একাডেমিক পড়াশুনা নিয়ে কিছুটা হতাশ ছিল। আমরা তাকে বুঝিয়েছি। কিন্তু হঠাৎ করে আত্মহত্যা করে বসল।

মেহের নিগার দানি : যশোরের নিজ বাড়িতে ১৬ নভেম্বর আত্মহত্যা করেন ২০১০-১১ সেশনের ইংরেজি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী মেহের নিগার দানি। তিনি ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ৫০৯ নম্বর কক্ষে থাকতেন।

লায়লা আঞ্জুমান ইভা : ঢাবি অধিভুক্ত গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী লায়লা আঞ্জুমান ইভা ১৪ নভেম্বর আত্মহত্যা করেন। তিনি প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে ধারণা পুলিশের।

ফাহমিদা রেজা সিলভী : বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ফাহমিদা রেজা সিলভী আত্মহত্যা করেন ১২ নভেম্বর। প্রেমঘটিত কারণে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে ধারণা করা হয়।

জাকির হোসেন : অভাবের তাড়নায় সুইসাইড নোট লিখে জাকির হোসেন নামের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেন ১৫ অক্টোবর। তিনি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী। তিনি নিজ ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

আফিয়া সারিকা : রাজধানীর খিলগাঁও চৌধুরীপাড়ার একটি বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে ঢাবির মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ৯ সেপ্টেম্বর আফিয়া সারিকা আত্মহত্যা করেন।

মুশফিক মাহবুব : ১৫ আগস্ট রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় আত্মহত্যা করেন ঢাবির সঙ্গীত বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মুশফিক মাহবুব। দেশের শিক্ষা ও রাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রতি ক্ষোভ থেকে ওই ভয়ংকর পথ বেছে নেন।

তানভীর রহমান : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদ ভবনের নয়তলার ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে সন্ধ্যাকালীন কোর্সের শিক্ষার্থী তানভীর রহমান আত্মহত্যা করেন ৩১ মার্চ। তার সহপাঠীদের বক্তব্য, তানভীর সরকারি চাকরি না পাওয়ায় হতাশায় ভুগছিলেন।

তরুণ হোসেন : ১৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর হাজারীবাগের একটি মসজিদ ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন ফিন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র তরুণ হোসেন। শৈশবে ‘মা’ হারানো এ ছেলেটি সহপাঠীদের ঠাট্টা এবং বিভাগের চাপ নিতে না পেরে চরম হতাশায় আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন বলে ধারণা করা হয়।

এভাবে একের পর এক আত্মহত্যার ঘটনায় উদ্বিগ্ন ঢাবি প্রশাসনের কর্তাব্যাক্তি ও পরিবারের সদস্যরা। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের পর্যান্ত কাউন্সিলিং প্রয়োজন বলে দাবি উঠেছে।

বি:দ্র : ছবিতে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়া উপরে বাঁ থেকে মেহের নিগার দানি, হুজাইফা রশিদ, তরুণ হোসেন, তানভীর রহমান, নিচে বাঁ থেকে আফিয়া সারিকা, মুশফিক মাহবুব, ফাহমিদা রেজা সিলভী ও জাকির হোসেন।

ঢাকা, ২৩ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।