প্রশ্নফাঁস : ছাত্রত্ব যাচ্ছে ঢাবি-রাবিসহ ৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯ জনের


Published: 2017-12-31 13:51:44 BdST, Updated: 2018-06-23 03:07:09 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রত্ব হারাতে যাচ্ছেন চার বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯জন। তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। এদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫ জন, ও বাকী ৪ জন রাজশাহী, কবি নজরুল ও ডেফোডিল ইউনিভার্সিটির ছাত্র। তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে দুটি মামলা হয়েছে। পাবলিক পরীক্ষা আইন ও তথ্যপ্রযুক্তি আইনে দায়ের করা ওই মামলার তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

প্রশ্ন ফাঁসের মতো গুরুতর অপরাধে জড়িত শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেবে মামলার তদন্ত সংস্থা। ওই শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন ফাঁস করে কয়েকজন নিজেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পেরেছেন, আবার বিক্রিও করেছেন বলে তদন্তে উঠে এসেছে। প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত ২৫ জনকে গত তিন মাসে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৯ জন ছাত্র। শিক্ষার্থীদের তথ্য বিশ্ব্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি প্রক্রিয়ায় 'ঘ' ইউনিটসহ একাধিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে শিগগিরই অভিযোগ দেয়া হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর এ কে এস গোলাম রব্বানী সাংবাদিকদের জানান, জালিয়াতির মাধ্যমে কেউ ভর্তি হলে বিশ্ববিদ্যালয় আইনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযোগ যাচাই-বাছাই করে তাদের ছাত্রত্ব বাতিল করা হবে।

ছাত্রত্ব হারাচ্ছেন যারা : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র মহিউদ্দিন রানা, ফলিত রসায়ন বিভাগের আবদুল্লাহ আল-মামুন, প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের ফরহাদ হোসেন নাহিদ, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের নাভিদ আনজুম তনয়, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের রিফাত হোসেন, মনোবিজ্ঞান বিভাগের মো. বায়োজিদ, স্বাস্থ্য ও অর্থনীতি বিভাগের ফারদিন আহমেদ সাব্বির, অর্থনীতির তানভীর আহমেদ মল্লিক, সংস্কৃতের প্রসেনজিৎ দাশ, বিশ্ব ধর্মতত্ত্বের আজিজুল হাকিম, ইতিহাসের টি এম তানভীর হাসনাইন, শিক্ষা ও গবেষণা বিভাগের সুজাউর রহমান, ইসলামিক স্টাডিজের রাফসান কবির, বাংলা বিভাগের আখিনুর রহমান অনিক, পালি ও বুড্ডিস্ট স্টাডিজের নাজমুল হোসেন নাইম, ময়মনসিংহের কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক-প্রশাসন বিভাগের সজীব আহমেদ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের মারুফ হোসেন, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের বনি ইসরাইল ও ডেফোডিল ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের ফরহাদ হোসেন।

ছাত্র ছাড়া প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় এরই মধ্যে আরও যাদের নাম এসেছে তারা হলেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ও নাটোর জেলার ক্রীড়া কর্মকর্তা রকিবুল ইসলাম রকিবুল হাসান ইসামী, ছাপাখানার কর্মচারী খান বাহাদুর নয়ন ও এনামুল হক আকাশ।

ঢাকা, ৩১ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।