ডাকসু : বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হতে ছাত্রলীগ নেতার কৌশল!


Published: 2019-03-05 02:42:30 BdST, Updated: 2019-08-18 17:35:27 BdST

ঢাবি লাইভ : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল সংসদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে কৌশলের আশ্রয় নিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা মিলন খান। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সলিমুল্লাহ মুসলিম হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি। তিনি হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেল থেকে সমাজসেবা সম্পাদক পদে নির্বাচন করছেন।

অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগ নেতা মিলন খান, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হতে একই পদ থেকে নির্বাচনে অংশ নেয়া স্বতন্ত্রপ্রার্থী শাকিলুর ইসলামের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করতে নিজ দলের অনুসারী এক কর্মীকে দিয়ে শাকিলের নামে ‘ভূয়া’ প্রার্থিতা প্রত্যাহারের দরখাস্ত পাঠান। ফলে চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়েন ওই প্রতিদ্বন্দ্বি। পরে হল প্রশাসনের তৎপরতায় প্রার্থীতা ফিরে পান তিনি। শাকিল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও হলে স্বতন্ত্র সমাজসেবা পদপ্রার্থী।

মিলন খান তার অনুসারি আবদুল্লাহ ইমন নামে সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে দিয়ে শাকিলের নাম দিয়ে তার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন করেন। আব্দুল্লাহ ইমনের বাড়ি উত্তরবঙ্গের দিনাজপুরে। হল শাখা ছাত্রলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, প্রাথমিক তালিকায় শাকিলের নাম প্রকাশের পরই তাকে সরাতে ষড়যন্ত্র শুরু করেন মিলন খান। প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে তাকে হুমকি দামকিও দেয়া হয়। কিন্তু শাকিল প্রার্থীতা প্রত্যাহার না করে ঢাকাস্থ এক আত্মীয়ের বাসায় চলে যায়। এসময়ের মধ্যে মিলন খান আব্দুল্লাহ ইমনকে দিয়ে তার প্রার্থীতা প্রত্যাহারের ভুয়া দরখাস্ত করেন। ইমনের আগে তৃতীয় বর্ষের আরেক শিক্ষার্থীকে এ দরখাস্ত নিয়ে যাওয়ার জন্য অনৈতিক প্রস্তাব দিয়েছিলেন মিলন খান। কিন্তু সে রাজি না হওয়ায় পরে আব্দুল্লাহ ইমনকে দিয়ে একাজ করানো হয়।

তবে মিলন খান সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনায় তার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। তিনি নিজেও নাকি জানেন না এটা কিভাবে হয়েছে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী শাকিল বলেন, প্রাথমিক তালিকায় আমার নাম প্রকাশের পর আমি হল ছেড়ে অন্যত্র চলে যাই এবং চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর হলে আসি। পরে আমার নাম না থাকায় আমি হল প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমি প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছি বলে আমাকে জানানো হয়। এদিকে শাকিলের অভিযোগের ফলে রবিবার রাতেই ভুয়া দরখাস্ত যাচাই বাছাই শুরু করে হল কর্তৃপক্ষ। পরে ওই দরখাস্তে পাওয়া যায় নানা অসঙ্গতি এবং বেরিয়ে আসে আব্দুল্লাহ ইমনের নাম। রাতেই প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রার্থিতা ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয় শাকিলকে। হল প্রভোস্ট বিষয়টি ডাকসুর প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রফেসর এস এম মাহফুজুর রহমানকে অবহিত করলে তিনি শাকিলের প্রার্থীতা ফিরে পেতে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

ঢাকা, ০৫ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।