নতুন পরিবেশে কেমন আছেন ঢাবির ১ম বর্ষের শিক্ষার্থীরা


Published: 2020-01-25 22:41:20 BdST, Updated: 2020-03-29 17:35:33 BdST

ঢাবি, মো. মনিরুজ্জামান: অনেক পরিশ্রম আর প্রচেষ্টার পর একটি ছাত্রের সুযোগ মিলে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার। কিন্তু তাতেই শেষ নয়। কথায় আছে স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে রক্ষা করা বেশ কঠিন। তেমনি ভর্তি হওয়ার পরপরই শেষ হয়ে যায়না তাদের সংগ্রামের ইতিহাস। নতুন করে সংগ্রাম শুরু করতে হয় নতুন পরিবেশ খাপ খাওয়ানোর জন্য।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে সরেজমিনে ঘুরে ঘুরে নবীন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে দেখা গেছে তারা অনেকেই মানিয়ে নিতে পারছে না হলের পরিবেশের সাথে। ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ছে অনেকেই। তাদের কাছে একদিকে যেমন পরিবেশটা নতুন তেমনি অন্যদিকে রয়েছে দীর্ঘদেন থেকে চলে আসা গেস্টরুম-গণরুম সংস্কৃতি। গেস্টরুমের অমানবিক নির্যাতনে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ছে অনেক শিক্ষার্থী। তবে গেস্টরুমের নির্যাতনের ভয়ে সাংবাদিকদের কোন কিছু বলতে চাচ্ছে না শিক্ষার্থীরা।

নবীন শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি সমস্যায় ভুগছে গণরুমে ঘুমানোর জায়গা নিয়ে। একদিকে ঘুমানোর জায়গা সংকট অন্যদিকে রাতে তাদেরকে বের করে দেয়া হয় ক্যাম্পাসে বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে। ফলে রাত দুইটার আগে ঘুমাতে পারছেন না নবীন শিক্ষার্থীরা। পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম না হওয়ায় পড়াশোনায় মনোযোগী হতে পারছেন না তারা।

শিক্ষার্থীদের বক্তব্য:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসিমউদদীন হলের ১ম বর্ষের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "নতুন পরিবেশে এসে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে । এখানে সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ফ্লোরিং করে ঘুমানো। তাছাড়াও গ্রামে যে-রকম রাত ১২টার আগেই ঘুমিয়ে পড়তাম এখানে তা আর হচ্ছে না। তার পড়াশুনার অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বর্তমানে নতুন পরিবেশেকে নিজের সাথে খাপ খাওয়ানোর চেষ্টা করছি তারপর পড়াশুনা ধীরে ধীরে শুরু করবো। নতুন পরিবেশের সাথে টিকে থাকাই তার কাছে অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। "

কবি জসিমউদদীন হলের ১ম বর্ষের আরেক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "আমার কাছে হল লাইফ যদিও ভালো লাগে কিন্তু এখানে ঘুমানোর যে পরিবেশ এটা সবচেয়ে খারাপ লাগে। আমাদের এই রুমে আট বা নয়জন ঘুমানো যায় কিন্তু এখানে ঘুমাতে হয় ৩০ থেকে ৩৫ জন। তাছাড়াও এখানে ঘুমাতে হয় অনেক দেরিতে । অনেকে রাতে বাইরে ঘুরতে যা। দেখা যায় ৩ থেকে ৪টা না বাজলে ঘুমানো যায় না । তিনি বলেন, এরকম পরিবেশ যেহেতু থাকতে হবে তাই পরিবেশ কেন্দ্রিক একটা রুটিন করে পড়াশুনা করতে চাই। "

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো থাকার সমস্যা। আমাদের এসএম হলে আমাদের থাকতে হয় বারান্দায়। শীতকালে প্রচুর বাতাস আসে বারান্দায়। এরকম ঠান্ডা লাগার কারনে আমি এই কয়েকদিনে একবার অসুস্থ হয়েছিলাম। তাছাড়া গেস্টরুম-প্রোগ্রাম তো আছেই। বড় ভাইয়েরা যখনই ডাকে তখনেই যেতে হয়। বেশির ভাগ সময় প্রোগ্রাম শুরুর ২ঘন্টা আগে প্রোগ্রামের জন্য দাড়িয়ে থাকতে হয়। প্রতিদিন প্রোগ্রামে অনেক সময় ব্যয় করতে হয় আমাদের।

এরকম পরিবেশে সে নিজেকে কিভাবে তৈরি করবে তা জানতে চাইলে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, এরকম পরিবেশে খাপ খাওয়ানোর জন্য পূর্ব-অভিজ্ঞতা সম্পূর্ণ ভাইদের পরামর্শ নিয়ে কিভাবে চলা যায় তা ঠিক করব।"

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলের ১ম বর্ষের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে যেমন আমার অনেক প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে তেমনি অনেক কিছু পেয়েছি যেগুলো অপ্রত্যাশিত। যেমন গেস্টরুমে যে এরকম ব্যবহার করা হয় তা আমার কখনো জানা ছিল না। আর গণরুমের বিষয়ে জানা থাকলেও এতটা খারাপ হতে পারে তা জানা ছিল না। তবে গণরুমের একটা ভালো দিক হলো গণরুমে প্রায় সকল জেলারই ফ্রেন্ড আছে ফলে আমরা দেশের বিভিন্ন স্থানের কালচার সম্পর্কে জানতে পারছি। আর আমি গণহলের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করতে পরেছে। আমি এর নেগেটিভ ইফেক্ট থেকে দূরে থাকতে গণহলের পরিবর্তে রিডিংরুম কিংবা লাইব্রেরিতে সময় দিচ্ছি।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্যার এ এফ রহমান হলের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণরুমের কথা আগে জানতাম কিন্তু এরকম হতে পারে তা কখনো ভাবিনি। আমাদেরকে সাত বা আট জনের রুমে প্রায় ৩৫ জন থাকতে হয়। আমরা ঘুমানোর জায়গা পাই না। আমাদের রিডিংরুমে যাইতে দেয়া হয় না। আমি এই পরিবেশে নিজেকে খাপ খাওয়াতে পারছি না। তাছাড়াও হল কেন্টিনের খাবারের অবস্থা একেবারে খারাপ। আমরা কেন্টিনের খাবার খাইতে পারছি না। "

মুক্তিযুদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের এক শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমি গ্রামের পরিবেশে বড় হয়েছি। তাই শহরের এরকম পরিবেশের সাথে নিজেকে সামলে নেয়াটা কিছুটা কষ্টকর। তাছাড়া গেস্টরুম নির্যাতনের ফলে নিজেকে অনেক অসহায় মনে হচ্ছে। গণরুমের পরিবেশে অনেক সময় অসুস্থ হয়ে যাচ্ছি । তিনি বলেন, ভালোভাবে ঘুম না হওয়ার কারণে পড়াশুনা করতে পারছি না। অনেক সময় সকালের ক্লাসেও যাইতে পারছি না।


ঢাকা, ২৫ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।