‘ঘুরে আসছি মা’ বলে লাশ হয়ে ফিরলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্স্টবয়


Published: 2019-08-21 00:42:20 BdST, Updated: 2019-09-20 14:32:10 BdST

বরিশাল লাইভ : বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্স্টবয় ছিলেন মো. তাওহীদুল ইসলাম। বাবা-মায়ের আদরের এই সন্তানটি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। একটি দুর্ঘটনা সবকিছু শেষ করে দিয়েছে। মায়ের কাছে বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে আসার কথা বলে তিনি ঘর থেকে বের হয়েছিলেন। তিনি মায়ের কোলে ফিরে এসেছেন তবে লাশ হয়ে। ছেলেকে হারিয়ে এখন বাবা-মা পাগলপ্রায়। শোক কাটিয়ে উঠতে পারছেন না তারা। গত ঈদের দিনে নামাজ শেষে সড়কে প্রাণ গেছে তার। তিনি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস টেকনোলজির ছাত্র ছিলেন। তিনি বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতি গ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম মৃধার ছেলে। তার মা বিবিচিনি স্কুল এন্ড কলেজের সিনিয়র শিক্ষক আলমতাজ কলি।

তাওহীদুল ইসলাম বিবিএ দ্বিতীয় বর্ষে প্রথম স্থান অধিকার করার পর গত ২৯ মে পরিবারের সাথে ঈদ পালনের জন্য গ্রামের বাড়ি বাকেরগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতি বাজারে যান। ৫ জুন ঈদের নামাজ শেষে বাবা আব্দুস সালাম মৃধাকে সাথে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে দাদা-দাদীর কবর জিয়ারত করেন তিনি। কবর জিয়ারত শেষে বাসায় ফিরে বাবাকে বললেন, “আব্বু তুমি অজু কর, একটু পরই এসে দুজনে একত্রে মসজিদে যোহরের নামাজ পড়ব।” বাবার সঙ্গে এটাই ছিল তাওহীদের শেষ কথা। বাসা থেকে বের হওয়ার সময় মাকে বলল, বন্ধুদের সাথে একটু ঘুরে এসে তোমার কাছে আসছি মা। বাবার সঙ্গে নামাজ পড়াও হলো না তাওহীদের। মায়ের কোলে ফিরেছেন তিনি লাশ হয়ে। বাসা থেকে যাওয়ার ১০ মিনিট পরে তাওহীদ বাড়ির পাশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন।

বাবা আঃ সালাম মৃধা বলেন, বাবার কাধে ছেলের লাশ পাহাড় সমান ওজনের চেয়েও ভারি। তাও বহণ করতে হলো। আল্লাহ যেনো ওকে বেহেস্ত নসিব করে।

মা আলমতাজ কলি বললেন ওকে নিয়ে বড় স্বপ্ন ছিল, ও সমাজে একজন মানুষের মতো মানুষ হবে। আজ আমার সব শেষে হয়ে গেছে। আর যেনো কোনো মায়ের কোল এমনিভাবে খালি না হয়। দুই ভাইয়ের মধ্যে তাওহীদুল ইসলাম ছিলেন বড়। ছোট ভাই মহিদুল ইসলাম ক্লাস সেভেনে পড়েন বলে জানিয়েছে তার পরিবারের সদস্যরা।

ঢাকা, ২১ আগষ্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।