অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হচ্ছে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাস!


Published: 2019-04-20 11:11:20 BdST, Updated: 2019-07-18 17:59:44 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হতে যাচ্ছে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসটি। ভাড়া বকেয়া ও লেনদেন সংক্রান্ত জটিলতার কারণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ক্যাম্পাসটি ভাড়ায় পরিচালিত হয়ে আসছে। গত দুই বছরেরও বেশি সময় ভাড়া প্রদান করছে না স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে বহুবার প্রতিশ্রুতি দিয়েও তারা তা ভঙ্গ করেছেন। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফিস থেকে অর্জিত বিপুল অংকের টাকা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান ফাতিনাজ ফিরোজ তার ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ব্যয় করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এমতাবস্থায়, ভাড়া হাল-নাগাদ না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাস বন্ধ করে দেয়া হতে পারে। এজন্য পুলিশ প্রশাসনেরও সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসটি বন্ধ করার দিন সেখানে পুলিশ মোতায়েন থাকবে। বাংলাদেশ ট্রেডিং কর্পোরেশনের স্বত্তাধিকারী ড.অশোক গুপ্ত স্বাক্ষরিত এক প্রেস রিলিজে এমন তথ্য জানানো হয়েছে।

ওই প্রেস রিলিজে বলা হয়, এই মর্মে সর্ব সাধারণকে অবহিত করা যাচ্ছে যে, ৫১ সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হতে পারে। উল্লেখ্য স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় অত্র ক্যাম্পসের ভাড়ায় পরিচালিত হয়ে আসছে। গত ২ বছরের উর্ধ্বে ভাড়া প্রদান করছে না। এ ব্যাপারে বহুবার প্রতিশ্রুতি দিয়েও তা ভঙ্গ করা হয়েছে। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফিস থেকে অর্জিত বিপুল অংকের টাকা স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান ফাতিনাজ ফিরোজ তার ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ব্যয় করেন। এমতাবস্থায়, ভাড়া হাল-নাগাদ না হওয়া পর্যন্ত ৫১ স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হতে পারে। আদেশক্রমে সিদ্ধেশ্বরী কমপ্লেক্সের, ল্যান্ডলর্ড, বাংলাদেশ ট্রেডিং কর্পোরেশন।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়,স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সকল সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও শিক্ষামন্ত্রীকে অবহিত করা হয়েছে।

তবে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ফাতিনাজ ফিরোজ বিষয়টি জানেন না বলে সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করেছেন।

বাংলাদেশ ট্রেডিং কর্পোরেশনের স্বত্তাধিকারী ড. অশোক গুপ্তের আইন উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট কাজী শরিফুল ইসলাম জানান, স্টামফোর্ডের চেয়ারম্যান সিদ্ধেস্বরী ক্যাম্পাসের ভাড়া পরিশোধ করতে না পেরে মিথ্যা কথা বলে সময় ক্ষেপন করে। এদের নিজস্ব কোন ক্যাম্পাস নেই আমাদের ভবনটি দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের বেতন ও ভাড়া বৃদ্ধি করছে আর আমাদের বকেয়া টাকার কথা বললে টাকা নেই বলে জানিয়ে দেয়। শিক্ষার্থীদের দিকে তাকিয়ে এত দিন ক্যাম্পাসটি বন্ধ করিনি। এবার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন অনুমতি দিয়েছে। এ বিষয়ে রমনা থানার সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ঢাকা, ২০ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।