বুয়েটে সবাইকে আমি পাইকারিভাবে শালা ডাকতাম : প্রেসিডেন্ট


Published: 2019-03-19 21:15:12 BdST, Updated: 2019-04-24 10:36:04 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: দীর্ঘ ৮ বছর পর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ১১তম সমাবর্তন মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ। প্রেসিডেন্ট বলেন, ছাত্র আমি ভালো ছিলাম না। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হই নাই। আমি ইন্টারমিডিয়েটে এক বিষয়ে লজিকে (যুক্তিবিদ্যা) রেফার্ড পাইছিলাম।

তখন সারাদেশের রেফার্ড বিষয়ের পরীক্ষাগুলো ঢাকা কলেজে নেয়া হতো। তাই এক বিষয়ে ঢাকা কলেজে রেফার্ড পরীক্ষা দিতে ঢাকায় এসে বুয়েটের শেরেবাংলা হোস্টেলে স্ত্রীর ছোট ভাইয়ের (শালার) রুমে উঠি। এক-দেড় মাস হোস্টেলে থাকার সুবাদে সবাই জেনে যায় আমি একজনের দুলাভাই লাগি। তারা আমারে দুলাভাই ডাকে আর আমি পাইকারিভাবে শালা ডাকতাম।

বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ১৯৬৪ সালে বুয়েটের হোস্টেলে থাকার স্মৃতিচারণ করে আরও বলেন, বুয়েটের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তার মধুর সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছিল। ওই সময় বুয়েটে কোনো নারী শিক্ষার্থী ছিল না। বর্তমানে প্রায় ৩০ ভাগ শিক্ষার্থী ছাত্রী। দেশের মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে এটাই তার প্রমাণ।

প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র না হওয়ায় হলের ডাইনিংয়ে খেতে পারতাম না। পাশেই হাসিনা হোটেলে মাত্র পাঁচ-ছয় আনা হলেই পেট ভরে খাওয়া যেত। আবার একটু পায়ে হেঁটে মেডিকেলের সামনে পপুলার হোটেলে গেলে চার আনা খেলেই পেট ভরতো।

প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, শিক্ষার্থীদের সবসময় বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখতে হবে। আর সেই স্বপ্ন হবে দেশ জাতি ও পরিবারের কল্যাণে। রডের বদলে বাঁশ, সিমেন্টের বদলে বালি দিয়ে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এসময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, এমপি, বুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. সাইফুল ইসলাম, প্রফেসর মো. রফিক উল্লাহ, প্রফেসর ড. শেখ সেকেন্দার আলী প্রমুখ।


ঢাকা, ১৯ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।